২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৯ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

আগুনমুখা নদীর ভাঙনে দিশেহারা মানুষ

পটুয়াখালী প্রতিনিধি : একদিকে ভাঙছে, আরেকদিকে গড়ছে। প্রকৃতির এই খেলায় দিশেহারা মানুষ। কারও সাজানো ঘরবাড়ি কেড়ে নিয়েছে। কারও আবার আবাদি জমি। এ কারণে কেউ বেড়িবাঁধের ওপর মাথাগোঁজার ঠাঁই নিয়েছে। কেউ আবার প্রিয় মাতৃভূমি ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে।

এ চিত্র আগুনমুখা নদীর ভাঙনকবলিত পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চালিতাবুনিয়া ইউনিয়নের মধ্য চালিতাবুনিয়া, গরুভাঙা, বিবির হাওলা ও গোলবুনিয়া গ্রামের। এসব গ্রামে ৬ হাজার মানুষের বসবাস। নদী ভাঙনে ভিটেবাড়ি হারিয়ে অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে। সরেজমিনে ভাঙনকবলিত ওইসব গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

উপজেলা সদর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট। সেখানে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারযোগে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ৪৫ মিনিটের উত্তাল আগুনমুখা নদী পেড়িয়ে হল চালিতাবুনিয়া। কাছে গেলেই চোখে পড়বে নদী ভাঙনের দৃশ্য। শোনা যাবে ভিটেবাড়ি হারানো মানুষের আর্তনাদ।

মধ্য চালিতাবুনিয়া গ্রামের অসিম মীর (৩৫) পেশায় জেলে। পরিবারের সদস্য সংখ্যা তিনজন। প্রায় দেড়বছর আগে তার ভিটেমাটি আগুনমুখায় বিলীন হয়েছে। এখন তিনি নতুন করে বেড়িবাঁধের ওপর ঘর তৈরি করে ওখানেই বসতি গড়েছেন। তিনি বলেন, ভাঙনের হাত থাইক্কা আমাগো নিস্তার নাই। নদীতে আমার সব শ্যাষ কইরগা দেছে। এ্যাহন আমি সরকারি জাগায় থাহি। নদী এ্যাহন এহানেও আইছে (ভাঙতে ভাঙতে নদী কাছাকাছি চলে এসেছে)। এসময় কথা হয় অসিমের প্রতিবেশী এরশাদ খানের (৪০) সঙ্গে। তিনি বলেন, সাত আসটো (সাত আট) মাস আগেও নিজের ঘরে থাকতাম বউ পোলা মাইয়া লইয়া। এ্যাহন নিজের কিছু নাই।’ তিনি সরকারের কাছে দাবি করে বলেন, ঘরবাড়ি নদীতে গ্যাছে আবার নতুন কইরা বাড়িঘর করছি। এ্যাহন দেহি হ্যাও ভাঙ্গনের দারাদারি (কাছাকাছি)। আমাগো এই দু:খ কষ্ট কেউ দ্যাহে না। সরকার মাগো দিগে একটু হির‌্যা (ফিরে) চাইলে বাঁচতাম।’ শুধু অসিম ও এরশাদ নয়, এই অবস্থা অনেকেরই।


*চার বছরে চার গ্রামের ১৫০টি ঘরবাড়ি ও প্রতিষ্ঠান বিলীন *নতুন করে দেড় হাজার ঘরবাড়ি ও প্রতিষ্ঠান ভাঙনের মুখে


স্থানীয়রা জানায়, ২০১৩ সাল থেকে আগুনমুখা নদীর তীব্র স্রোতের তোরে ওই ইউনিয়নের চার গ্রামের প্রায় ১৫০টি ঘরবাড়ি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিলীন হয়েছে। যারা এলাকায় জমি হারিয়ে টিকে আছে, তারা অধিকাংশই বেড়িবাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে। কিন্তু তাও ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, দুই সপ্তাহ আগে ইয়াকুব আলী হাফিজিয়া মাদরাসার স্থানটি এখন আগুনমুখার গর্ভে। বর্তমানে ভাঙনের তীব্রতা এতই যে, চালিতাবুনিয়া রেড ক্রিসেন্ট ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র এবং পার্শ্ববর্তী জামে মসজিদসহ চার গ্রামের অন্তত দেড় হাজার ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীনের আশঙ্কা রয়েছে। চালিতাবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা আল আমিন বলেন, দ্রুত ভাঙন রোধে সরকার পদক্ষেপ না নিলে মানচিত্র থেকে চালিতাবুনিয়া নিচিহ্ন হয়ে যাবে। আমরা সারাক্ষণ এ আতঙ্কে বসবাস করি।

এ ব্যাপারে কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের বলেন, আগে নদী ভাঙন রোধ করতে হবে। তারপর বেড়িবাঁধ নির্মাণ করতে হবে। প্রতিবছরতো বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য টাকা বরাদ্দ দেবে না কর্তৃপক্ষ। তবুও জরুরি ভিত্তিতে বাঁধ সংস্কারের জন্য প্রস্তাবনা তৈরি করতেছি। যদি বরাদ্দ আসে তাহলে বাঁধ সংস্কার করা হবে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com