২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৩রা সফর, ১৪৪২ হিজরী

আফফান মনসুরপুরীর ইমামতিতে তাড়াইলের ইজতেমায় জুমার নামাজ আদায়

আফফান মনসুরপুরীর ইমামতিতে তাড়াইলের ইজতেমায় জুমার নামাজ আদায়

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : অনুকূল আবহাওয়া, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে, হাজার হাজার মুসল্লিদের উপস্থিতিতে ভারতের জমিয়তে উলামা হিন্দের জাদরেল নেতা, প্রাচীন মাদ্রাসা ‘আমরুহা মাদ্রাসার’ সদরুল মুদাররিস ও মুহাদ্দিস মাওলানা কারী সাইয়্যিদ আফফান মনসুরপুরীর ইমামতিতে কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের বেলঙ্কা জামিয়াতুল ইসলাহ ময়দানে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী কয়েক হাজার মুসল্লি ছাড়াও পার্শ্ববর্তী এলাকার হাজার হাজার মানুষ বিভিন্ন যানবাহন এবং পায়ে হেঁটে শরীক হয়েছেন এই বৃহত্তম জুমার জামাতে।

নামাজে আগে জুমার বয়ানে মাওলানা কারী আফফান মনসুরপুরীর বলেন, তিনটি কারণে মানুষ মানুষকে ভালোবাসে। ১. আত্মীয়তার সম্পর্কের কারণে। ২. একে অপরের উপর ইহসানের কারণে। ৩. একে অপরকে একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য ভালোবাসে। তিনি বলেন, হাশরের ময়দানে যখন সূর্য মাথা উপরে থাকবে। তখন আল্লাহ তাআলা এই তৃতীয় শ্রেণীর মানুষজনকে তাঁর আরশের নিচে ছায়া দেবেন।

তিনি বলেন, এই ইসলাহী ইজতেমায় আমরা আত্মীয়তার সম্পর্ক কিংবা ইহসানের কারণে সমবেত হইনি। আত্মীয়তা অথবা ইহসানের কারণে একে অপরকে ভালোবাসছি না। আমরা সমবেত হয়েছি একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য। এক অপরকে ভালোবাসছি আল্লাহ জন্য। তাই আমরা আশাবাদী হাশরে ময়দানে আল্লাহ আমাদেরকে তাঁর আরশের নিচে ছায়া দেবেন।

আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মাওলানা আফফান মনসুরপুরী বলেন, আল্লামা মাসঊদ (দা.বা.) আমাদের জন্য এত সুন্দর মনোরম পরিবেশে এই ইসলাহী ইজতেমা আয়োজন করেছেন। যার কারণে আমরা এখানে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আল্লাহর জিকির করতে পারছি। দ্বীনের আলোচনা শুনছি। ঈমান তাঁজা করছি। আমাদের এসবের সুযোগ করে দেয়ার জন্য আমরা সবাই তাঁর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি।

আল্লাহর সাথে মুসলিম বান্দার যে সম্পর্কে থাকা উচিৎ, সেই সম্পর্ক এখন আমাদের নেই। এজন্য সারাবিশ্বে আমরা নির্যাতিত-নিপীড়িত হচ্ছি বলে- জানান কারী আফফান মনসুরপুরী। তিনি বলেন, ইসলামের হুকুম-আহকাম পালন করে, ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে আল্লাহর সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে হবে। তবেই আমরা মুক্তি-রক্ষা পাবো জালিমদের হাত থেকে।

জুমার নামাজ শেষে আল্লাহর কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করে দেশ-জাতি এবং মুসলিম উম্মাহের জন্য শান্তি কামনা করেন তিনি।

উল্লেখ, আওলাদে রাসূল মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী (রহ.)-এর খলিফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের আহ্বানে কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে আয়েজিত তিন দিনব্যাপী ইসলাহী ইজতেমার আখেরি মোনাজাত ১৬ ফেব্রুয়ারি রোববার সকালে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন ইজতেমা কমিটি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com