৩০শে মে, ২০২০ ইং , ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৬ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :

আমপান থেকে করোনা; প্রতিরোধের কৌশল নয় ভিন্ন

আমপান থেকে করোনা; প্রতিরোধের কৌশল নয় ভিন্ন

যারওয়াত উদ্দীন সামনূন ❑ করোনা পরিস্থিতির শুরুতে অনেককে বলতে দেখা যেতো, দেশে প্রতিদিন যতজন মারা যাচ্ছে করোনায়, এর চেয়ে বেশি মারা যায় অন্যান্য কারণে। যেমন সড়ক দুর্ঘটনা।

পরিসংখ্যানগত দিক থেকে বিষয়টি সঠিক। তবে এটা খুবই বিরক্তিকর এই কারণে যে, পরিসংখ্যান সবসময় আমাদের সঠিক চিত্র দেয় না। কোন জিনিস করোনাকে ভয়ানক করেছে?

কারণ এর প্রতিরোধের ক্ষমতা মানুষকে আল্লাহ্ তা’আলা এখনো দেননি। যদি মানুষ সচেতন না হতো, ঘরবন্দী না হতো, তবে হয়ত গোটা মানবজাতির বিরাট অংশ নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতো এই করোনার আক্রমণে।

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, পানি ফুটিয়ে খাওয়া আর ওরাল স্যালাইনের মত একেবারে সাধাসিধে বিষয়গুলো সামনে রেখে কলেরার মত ভয়াবহ মরণঘাতী রোগকে মানুষ আজ পাত্তাই দেয় না। করোনা প্রতিরোধেও এমন কিছু যদি পাওয়া যায় (শারীরিক দূরত্ব বাংলাদেশী জীবনাচারে মোটেও সম্ভব না), তবে দেখবেন মানুষ আর করোনাকেও পাত্তা দিচ্ছে না।

করোনা প্রতিরোধে সচেতনতার গুরুত্ব ঠিক কোন জায়গায়, তা গতকালের ঘূর্ণিঝড় আবার আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলো।

এরা বাংলাদেশীদের মুসলমান তো নয়ই, এমনকি মানুষও মনে করতো না।

১৯৭০ সালে পাকিস্তান আমলে এমনি এক ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় ৫ লাখ মানুষ মারা গিয়েছিলো। এই যে স্বাধীনতার এতোগুলো বছর পরেও কিছু মানুষের পাকিস্তান প্রেম যায় না, সেই ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকা দেখলেই বুঝবেন, এরা বাংলাদেশীদের মুসলমান তো নয়ই, এমনকি মানুষও মনে করতো না।

১৯৯১ সালে সেই প্রেতাত্মাদের কাঁধে নিয়ে ক্ষমতায় থাকায় প্রায় একই কাণ্ড করে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপি সরকার। বিশেষত বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে একেবারে পঙ্গু করে দেয়া হয়। যার ক্ষতি এখনো বইতে হচ্ছে। মানুষ মারা যায় প্রায় দেড় লাখের মত।

বিপরীতে এবার এই করোনা দুর্যোগের মাঝেও বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রায় ২৪ লাখ মানুষ ও ৫ লাখের বেশি গবাদিপশুকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে সরকারী ব্যবস্থাপনায়। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্যোগ মন্ত্রী বানিয়েছেন সাভারে বিখ্যাত সেই এনাম মেডিকেলের ডা. এনামুর রহমান এমপি কে।

যদি এটা না করা হতো তবে কি হতো? এই ঝড়ের মত, করোনা প্রতিরোধেও সচেতনতার কোন বিকল্প নেই।

পুলিশ লাঠিচার্জ করলে তোলপাড় করে তুলেছি জগৎ, ফলে পুলিশ হাত গুটিয়ে নিয়েছে, আজকে দেশে সর্বোচ্চ মৃত ও আক্রান্ত।

যে সময়টা সাবধানে থাকলে আমরা আজ ‘হয়ত’ স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারতাম, সে সময়টা আমরা ইতালি ফেরত যুবকটির সাথে চা স্টলে আড্ডা দিয়ে বেড়িয়েছি। পুলিশ লাঠিচার্জ করলে তোলপাড় করে তুলেছি জগৎ, ফলে পুলিশ হাত গুটিয়ে নিয়েছে, আজকে দেশে সর্বোচ্চ মৃত ও আক্রান্ত।

এই ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায়ও কিন্তু এমন ঘটনা ঘটেছে। এক আওয়ামী লীগ নেতা মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে যেতে বাঁধা দিচ্ছিলো, পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে দ্রুত মামলা দিয়ে হাজতে পাঠিয়েছে।

কী হতো যদি তার অনুসারীরা এলাকায় এটা নিয়ে দাঙ্গাহাঙ্গামা করবে এই ভয়ে পুলিশ তাকে আটক না করতো? মানুষগুলোকে রেখে আসতো ঝড়ের মুখে? কিন্তু এখানে কেউ পুলিশকে উপদেশ খয়রাত করেনি, কেউ পুলিশকে বাঁধা দেয়নি লাঠিচার্জ, থুক্কু, গ্রেফতার করতে। বরং আমপান মোকাবেলার পুরো কর্মযজ্ঞ সরাসরি মনিটরিং করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বলছিলাম ‘সংখ্যা’ নিয়ে, আমপানে ‘এখন পর্যন্ত’ মৃত ১২ জন (বিকাল ৪টা পর্যন্ত)। সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্ তা’আলার, যিনি আমাদের রক্ষা করেছেন। আর আজকেই কেবল একটি সড়ক দুর্ঘটনাতেই মৃত ১৩ জন। তো এমন কোন আল্লামা আছেন যিনি বলবেন করোনার মত যে, ঘূর্ণিঝড় থেকে সড়ক দুর্ঘটনা ভয়ানক? মানুষ শুধু শুধু আতংক ছড়িয়েছে? সরকার শুধু শুধু লাখ লাখ মানুষকে নিয়ে টানাহেঁচড়া করেছে? বলবেন?

তো করোনা নিয়ে ‘সংখ্যা’ দেখিয়ে কেন এই কথাগুলোই বলেন নিজে নিরাপদে ঘরের ভেতর থেকে?

সড়ক দুর্ঘটনা কিন্তু খুব সহজেই প্রতিরোধ যোগ্য। কেবল একটা উদাহরণ দেই, রাজধানীর মাদানী এভিনিউ (আমেরিকান এমব্যাসি অংশ) থেকে গুলশান ২ হয়ে একেবারে হাতিরঝিল পর্যন্ত, এই রোডে কেন অহরহ দুর্ঘটনা ঘটে না? অথচ এটা নগরীর অন্যতম ব্যস্ত রোড, সম্ভবত দ্বিতীয় বৃহত্তম অফিস পাড়া।

আবার যানজট না থাকলে গাড়িগুলো বেশ জোরে ছুটে চলে৷

আমি বিজ্ঞানী (বিনা জ্ঞানে নিনাদকারী) কাজী ইবরাহীমের বিখ্যাত ‘জানি কিন্তু বলবো না’ আন্দোলনের অনুসারী না, তাও সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কথা বাড়াচ্ছি না কারণ, এতে নানা রকম শ্রেণীবিভাজন ও বৈষম্যের আলাপ আলাপ চলে আসবে। এতে লেখার মূল বার্তাই যাবে হারিয়ে…

[লেখকের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগ্রহীত]

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com