২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং , ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৩রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

আল্লামা শফীর ইন্তেকালে রোহিঙ্গা উলামা পরিষদের শোক

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : চট্টগ্রামের আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রোহিঙ্গা উলামা পরিষদ আরাকানের সদস্যরা।

এক শোকবার্তায় মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম আল-সৌদি ও ডক্টর আব্দুল হাই আল-ফজল বলেন, আল্লামা শফী সারাজীবন ইসলাম ও মুসলানদের খেদমতে নিয়জিত ছিলেন। সরকারিভাবে তিনি ধর্মীয় শিক্ষার মর্যাদা বৃদ্ধি করার জন্য কাজ করেছেন [কওমি স্বীকৃতি]। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের ব্যানারে তিনি সাধারণ মুসলিম জনগণ ও রোহিঙ্গাদের জন্য যেভাবে কাজ করেছেন তা কখনোই ভোলার নয়। বিশেষ করে ২০১৭ সালে সরকার ও জনগণকে যেভাবে নিপীড়িত-নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের পাশে আর্থিক ও নৈতিকভাবে দাঁড় করিয়েছিলেন, তা নজিরবিহীন।

তারা বলেন, আল্লামা শফীর ইন্তেকালে আমরা রোহিঙ্গা উলামায়ে কেরাম, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, জনগণ ও বাংলার এক চতুর্থাংশ জুড়ে থাকা আলেম-উলামা, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, নারী, পুরুষ সবার সাথে সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

সেই সাথে আল্লাহ তাআলার কাছে ফরিয়াদ জানাই, তিনি যেন মুসলিম জাতীর এ প্রাণ পুরুষের আঁখিদ্বয়কে শীতল করেন, সিদ্দিকীন, শুহাদা, সালেহীনদের কাতারে তাঁকে শামিল করেন, তাঁর শোক সন্তপ্ত পরিবারকে ধৈর্য্য ধারণ করার তাওফিক দান করুন।

উল্লেখ্য, হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

আল্লামা শফী আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলামে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম নামে একটি ধর্মীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন।

১৯৮৬ সালে হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক পদে যোগ দেন আহমদ শফী। এরপর থেকে টানা ৩৪ বছর ধরে তিনি ওই পদে ছিলেন।

লেখালেখিতেও রয়েছে তার রয়েছে বিশেষ অবদান। বাংলা ও উর্দু ভাষায় তার রচিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৫টি। তার লেখা বইয়ের মধ্যে রয়েছে; বাংলা ভাষায়- হক ও বাতিলের চিরন্তন দ্বন্দ্ব, ইসলামী অর্থ ব্যবস্থা, ইসলাম ও রাজনীতি, সত্যের দিকে করুন আহ্বান, সুন্নাত ও বিদ-আতের সঠিক পরিচয় এবং উর্দু ভাষায়- ফয়জুল জারি (বুখারির ব্যাখ্যা), আল-বায়ানুল ফাসিল বাইয়ানুল হক ওয়াল বাতিল, ইসলাম ও ছিয়াছাত এবং ইজহারে হাকিকাত।

জীবনের শেষ দিনগুলোতেও আল্লামা আহমদ শফী করোনা সংকট, বিশ্ব পরিস্থিতি, ইসরাইল-আরব আমিরাত চুক্তিসহ নানা বিষয় নিয়ে নিয়মিত বিবৃতি ও দিক-নির্দেশনামূলক বক্তব্য দিয়ে দেশ ও জাতি ও সরকারকে সতর্ক করে আসছিলেন।

/এএ

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com