২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৫ই সফর, ১৪৪২ হিজরী

উম্মাহর আলেমদের কৈফিয়ত দিতে হয়!

ডাক দিয়ে যাই । লাবীব আব্দুল্লাহ

উম্মাহর আলেমদের কৈফিয়ত দিতে হয়!

মুহতারাম মাওলানা ডক্টর আ ফ ম খালিদ হোসেনকে কৈফিয়ত লিখতে হয়! শায়খ আহমাদুল্লাহ কি মুসলিম না হানাফী তার প্রমাণ দিতে হবে! আর আমি তো দেওবন্দিও না, হানাফীও হতে পারলাম না৷ কওমীরও না৷ আহলে হাদীসও না! আমি তো নামের আগে মাওলানাও লিখি না৷ আমি মানুষ৷ আমি তওহীদ ও রেসালাতে বিশ্বাসী৷ বিশ্বাসী আখেরাতেও৷ আমি তিন দশকে কওমীর সকল বিভাগে শিক্ষার জিম্মাদারি পালন করেও কওমীর কেউ না৷ দেওবন্দি তো হতেই পারলাম না!

তোমাদের এইসব ঘরানায় তোমরা বন্দী থাকো৷ আমি মুসলমান৷ মুসলিম৷ মুসলামানের কোনো ঘরানা থাকে না৷ দেওবন্দ কোনো ঘরানায় বন্দী নয়৷ আমি কৈফিয়ত, জবাবদেহি করে চলি না৷ চলার ইচ্ছেও নেই৷ এইসব বলে আমাকে কারোর কাছে প্রমাণ করতে হবে না আমি কে?
এই সময়ে কওমীর কিছু নাবালেগ, ফালতু প্রজন্ম বা মতলববাজ প্রজন্ম দেওবন্দি দেওবন্দি বা আকাবির আকাবির জপে কী চায় জানি না৷ জানি না দেওবন্দের উদার আকাশকে কোন বোতলে বন্দী করতে চায় এই ফেরববাজরা৷ মুহতারাম মাওলানা ডক্টর আ ফ ম খালিদ দেশের সীমানার বাইরেও পরিচিত৷ অগ্রসর চিন্তার আলেম৷ ইসলামী স্কলার৷ লেখক৷ গবেষক৷ উস্তায৷ পীর৷ মুহাদ্দিস৷ অনুবাদক৷ খতীব৷ আরবী, উর্দু ও ইংরেজি ভাষায় ধর্মীয় আলোচক৷ লেখক৷

তিনি উদারমনের ব্যক্তিত্ব৷ খতীবে আজম আল্লামা সিদ্দিক আহমদ রহ.-এর সুযোগ্য জামাতা৷ পুরো খান্দান দীন, ইলম চর্চায় অগ্রসর৷ ডক্টর খালিদ উম্মাহর আলেম৷ সব ঘরানার জন্য আলেম৷ আলিয়া কওমী কলেজে তিনি আলোর ফেরিওয়ালা৷ বর্ষীয়ান ব্যক্তিত্ব৷ বরেণ্য আলেমে দীন৷

শায়খ আহমাদুল্লাহ বিশ্বমানের দাঈ৷ আলেম৷ আলোচক৷ জনসেবক৷ তিনিও উম্মাহর আলেম৷ সবার জন্য তিনি৷

উম্মাহর আলেমদের কৈফিয়ত দিয়ে চলতে হয়! কাদের কাছে কৈফিয়ত? এরা কারা? এইসব আবর্জানা বা চেতনাব্যবসায়ী বা ধান্দাবাজদের পরচিয় কী? ইলম কি ঘরানার কথা বলে? ইসলাম কি ঘরানার সবক দেয়? ইসলাম এবং ইসলামই আমার ঘরানা৷ চেতনায় উম্মাহ৷ দেওবন্দ সেই কথাই বলে৷ তোমরা যারা দেওবন্দ জপো তোমরা জানো না কাসেমি চেতনা৷ শাইখুল হিন্দের চেতনা৷ তোমরা পড় না ইমাম শাহ ওয়ালিউল্লাহ রহ এর ফিকর৷ আফকার৷ তোমরা জানতে চাও না শহীদে বালাকোট সৈয়দ আহমদ বেরলবি রহ.-এর সংগ্রামের কথা৷ তোমরা আরও উদার হও৷ একটু উদার হও৷

তোমরা ফিরে তাকাও তোমাদের দিল, মন ও চিন্তা কতটা সীমিত ও সংকীর্ণ৷ তোমাদের আকাশে নেই চাঁদ সেতারা সুরজ৷ তোমারা উদার আকাশ দেখো৷ দেখো সুউচ্চ পহাড়৷ দেখো সূর্যের আলো৷ এই উদারতা, এই আলো ও বিশালতার নাম দেওবন্দ৷ এই পৃথিবীতে তেমাদের সংকীর্ণ চিন্তা করোনাক্রান্ত হয়ে ধ্বংস ও বরবাদ হোক৷ শরীয়ার সীমায় উদারতা৷ উম্মাহর ভাবনার বিজয় হোক৷

লেখার সময়

সূর্য ডুবছে৷ আঁধার চিড়ে উদিত হচ্ছে পূব আকাশে পূর্ণিমার চাঁদ৷ ভোরে উদিত হবে সূর্য৷
এই আকাশ, চাঁদ সূর্য হলো ইসলাম৷ উম্মাহ৷ দেওবন্দি চেতনা এর বাইরে নয়৷

আমি এক কাপ কফি খাচ্ছি৷ ঘি, গরম পানি ও কফি৷

এটি বৈচিত্র্য৷ আমি টেবিলে ফুলের তোড়া রেখেছি নানা ফুলের৷ এই বৈচিত্র্যের নাম চিন্তা৷ চিন্তার পাঠশালা৷

দেওবন্দি চিন্তায় রয়েছে বৈচিত্র্য৷ এই বৈচিত্র্য যারা অনুভব করে না তাদেরকে আমার উদ্বাস্তু শিবিরে ঘি যোগে কফি তথা রকেট কফির দাওয়াত৷ চিন্তা সতেজতা আসবে৷ কাটবে চিন্তার জড়তা৷

লেখক : কওমী মাদরাসার উস্তায
০৮.০৬.২০২০

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com