২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৯ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

কওমি স্বীকৃতি প্রদান করায় ময়মনসিংহে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আল্লামা মাসঊদকে সংবর্ধনা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি  ● সরকার কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ সনদ দাওরায়ে হাদিসের মাস্টার্সের সমমান দেয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদকে ময়মনসিংহে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। ময়মনসিংহ বিভাগীয় উলামায়ে কেরামের আয়োজনে এই সংবর্ধনা দেয়া হয়।

শনিবার দুপুরে শহরের অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠান হয়। ময়মনসিংহ ছাড়াও আশেপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে আলেম-ওলামারা এই সংবর্ধনায় যোগ দেন।

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষা স্বীকৃতির দাবিতে ৯০ দশকের শেষ ভাগ থেকে আন্দোলন করে আসছে এই মাদ্রাসাভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলো। ক্ষমতায় গেলে স্বীকৃতি দেয়া হবে-বিএনপির এমন আশ্বাসে আদর্শিক বিরোধ সত্ত্বেও জামায়াতের সঙ্গে প্রায় দেড় যুগ আগে জোটবদ্ধ হয় দলগুলো। ২০০১ সালে এই জোট ক্ষমতায় আসে। আর ক্ষমতার শেষ ভাগে জোট সরকার একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে স্বীকৃতির সিদ্ধান্ত জানায়। তবে সেখানে কেবল সরকারি মসজিদের ইমাম ও কাজীর চাকরি পাবে এই শিক্ষার্থীরা-এমন বিধান থাকায় তা প্রত্যাখ্যান করে দলগুলো।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরই এই স্বীকৃতির উদ্যোগ নেয়। তবে নানা কারণে ও কওমি আলেমদের মধ্যে নানা মতবিরোধে হালে পানি পায়রি সে উদ্যোগ। তবে গত ১১ এপ্রিল গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কওমি আলেমদের বৈঠকে এই স্বীকৃতির ঘোষণা আসে। দুই দিন পর জারি হয় প্রজ্ঞাপন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, বর্তমান সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাস্টার্সের সমমান পাওয়া এই শিক্ষার্থীরা সব চাকরির জন্যই আবেদন করতে পারবেন।

সরকার আগেই কওমি মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল জানিয়ে এ নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই বলে মনে করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

কামাল বলেন, ‘কওমি মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য কয়েক বছর আগে (২০০৯ সালে) প্রধানমন্ত্রী একটি কমিটি গঠন করেছিলেন। সেই কমিটির প্রধান ছিলেন হেফাজতের আমির আহমেদ শফি। এছাড়া ফরীদউদ্দীন মাসউদসহ কয়েকজন মাওলানা এই কমিটিতে ছিলেন। কমিটির সবাই সিদ্ধান্ত নিয়ে একত্রিত হয়ে যখন প্রধানমন্ত্রীর কাছে আসেন তখন বেশ কয়েকটি বোর্ড ছিল। সবগুলো বোর্ড যখন একত্রিত হয়ে একই কথায় এসেছেন তখন এটার স্বীকৃতি হয়েছে।’

কওমি মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি আলেম ওলামাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে হেফাজত বা অন্য কিছুর সম্পৃক্ততা নেই। এটা মূলত যারা কওমি মাদ্রাসায় পড়ে তাদের দাবি পূরণের লক্ষ্য।’

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা কখনও জঙ্গি হতে পারে না বলেও মন্তব্য করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, জঙ্গিরা আলেম ওলামাদের ব্যবহার করতে না পেরে বর্তমানে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের টার্গেট করেছে। তারা কেবল মানুষ হত্যা নয়, নিজেদেরকেও উড়িয়ে দিচ্ছে। এদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা কারা তা দেখা উচিত।

ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, জেলা প্রশাসক খলিলুর রহমান, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, আল্লামা আলী আনোয়ার শাহ, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জহিরুল হক খোকা, মহানগর সভাপতি এহতেশামুল আলম প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com