১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১লা সফর, ১৪৪২ হিজরী

করোনায় দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে?

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে লড়াইয়ের সময়টা আমাদের ধারণার চেয়েও বেশি দীর্ঘ হতে পারে। তাই যখন কোনো করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হওয়ার পর আবারও তার মধ্যে করোনার লক্ষণগুলো দেখতে পাওয়া যায়, তখন তা সত্যিই উদ্বেগের কারণ হতে পারে। যদিও রোগীদের ক্ষেত্রে ভাইরাসমুক্ত হওয়ার কয়েক সপ্তাহ পরেও কিছু উপসর্গে ভোগা স্বাভাবিক। তবে পুনরায় সংক্রমিত হওয়া সম্ভব কি-না, সে প্রশ্নের উত্তর এখনও পাওয়া যায়নি।

বিশ্বব্যাপী, অনেক রোগী সুস্থ হওয়ার পরেও দ্বিতীয়বারের মতো করোনার লক্ষণ দেখা দেয়ার কিছু ঘটনা ঘটেছে। সুতরাং, এ থেকে এই প্রশ্ন আসাটাই স্বাভাবিক যে, করোনা কি সত্যিই দ্বিতীয়বারের মতো আক্রমণ করে? এর উত্তর প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

পুনরায় সংক্রমণ সম্ভব? একজন ব্যক্তি কি একাধিকবার আক্রান্ত পারে?

বিজ্ঞানীরা এখনও অবধি জোর দিয়ে বলেছেন যে, কোনো ব্যক্তি বারবার আক্রমণ প্রতিরোধের জন্য পর্যাপ্ত অ্যান্টিবডি অর্জন করার কারণে পুনরায় সংক্রমণ সম্ভব নয়। সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন তার সর্বশেষ পরামর্শে বলেছে যে, এর প্রমাণ দেয়ার মতো কোনো প্রমাণ নেই। তারা আরও যোগ করেছেন যে, এক্ষেত্রে তদন্তমূলক গবেষণা প্রয়োজন হতে পারে।

প্রথমবারের মতো করোনভাইরাস থেকে সেরে উঠলে কী ঘটে?

আমাদের শরীর বিদ্যমান ভাইরাসের জেনেটিক মেক-আপকে চিনে রাখে, ফলে তার সঙ্গে লড়াই করতে সুবিধা হয়। ভাইরাল সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের পরে আক্রান্ত ব্যক্তি অ্যান্টিবডি অর্জন করে, যা প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে প্রথম আক্রমণটিকে মনে রাখতে এবং ভবিষ্যতের আক্রমণগুলোর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে সহায়তা করে। সুতরাং, সুস্থ হওয়ার পরে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য শরীর আরও ভালো অবস্থায় থাকবে।

কেন পুনরায় সংক্রমণ ঘটবে?

এর সম্ভাব্য কারণ হলো, একবার কোনো ব্যক্তি সংক্রমণ থেকে সেরে উঠলে শরীরে ভাইরাস হ্রাস পায়। কিছু ক্ষেত্রে, পুনরুদ্ধার হওয়া রোগীর শরীরে কম পরিমাণে ভাইরাস থাকতে পারে এবং তাই তাদের লক্ষণগুলো দেখাতে এবং পুনরায় সংক্রামিত হওয়ার প্রবণতা তৈরি করতে পারে। ভাইরাল লোডটি শরীরে তিন মাস পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। এটি এমন সময়কাল যা পুনরায় সংক্রামিত হওয়া বেশিরভাগ লোকেরা সনাক্ত করেছিলেন। তবে বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন যে, সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ার পরে দ্বিতীয়বার লক্ষণ দেখা দেয়া আসলে পুনরায় সংক্রমণের ঘটনা নয়।

ভাইরাস শরীরে দীর্ঘসূত্রতা অব্যাহত রাখতে পারে

কারও কারও ক্ষেত্রে একাধিকবার সংক্রামিত হওয়ার কারণ হতে পারে, করোনাভাইরাস পুনরায় চলে না যাওয়া পর্যন্ত তাদের দেহে সুপ্ত থাকে। বিশেষজ্ঞরা একটি দূরবর্তী সম্ভাবনার দিকেও ইঙ্গিত করছেন, যেহেতু করোনায় অন্যান্য শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতার মতো লক্ষণ রয়েছে তাই যে ব্যক্তি আবার সংক্রামিত হয়, সে অন্য ভাইরাসজনিত রোগে ভুগতে পারে এবং তাকে করোনা ভেবে ভুল করে।

সুস্থ হওয়ার পরে সংক্রমণ ঘটাতে পারে?

করোনাভাইরাসের সবচেয়ে বড় ঝুঁকির মধ্যে একটি হলো, সংক্রামক বাহক থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে যেতে পারে। যদি পুনরায় সংক্রমণ বা ভাইরাল লোড এখনও অব্যাহত থাকে তবে এটি আরও সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়ার ভয় বাড়ায়। বিজ্ঞানীরা এটি নিশ্চিত করতে দ্রুত কাজ করেছেন যে, রোগীর সুস্থ হওয়ার কয়েক সপ্তাহ পরেও তাদের দেহে কম বা মাঝারি ভাইরাল বোঝা থাকতে পারে, তবে তাদের থেকে সংক্রমণের ঝুঁকি মোটামুটি কম বা বিরল। এখনও পর্যন্ত এ নিয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে আসা হয়নি।

অ্যান্টিবডি কতদিন ধরে থাকে?

গত এক-দুই মাস ধরে গবেষকরা অ্যান্টিবডিগুলোর প্রকোপ পর্যবেক্ষণ করতে ডেটা নমুনা করেছিলেন। যদিও এর জন্য স্থায়ী সময়টি ঠিক করা কঠিন হতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করা একটি গবেষণায় মনে হয়েছিল যে, করোনায় সংক্রামিত ব্যক্তিদের মধ্যে, লক্ষণগুলো শুরু হওয়ার প্রায় ২০ থেকে ৩০ দিন পরে অ্যান্টিবডি শীর্ষে উঠবে এবং তারপরে তা হ্রাস পাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com