১৩ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২রা জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

ক্রমশ নিচে নেমে যাচ্ছে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক ● ক্রমশ নিচে নেমে যাচ্ছে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর। মাত্রাতিরিক্ত নির্ভরশীলতার কারণে ইতোমধ্যে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর ৩ থেকে ১০ মিটার পর্যন্ত নেমে গেছে। সুপেয় পানি ও কৃষিকাজে ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর অধিক হারে নির্ভরশীলতার কারণেই এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যদিও একসময় নদীমাতৃক এদেশে নদী-নালা, পুকুর ও অন্যান্য জলাধারের পানি কৃষি আবাদ ও সুপেয় পানি হিসেবে ব্যবহৃত হতো। কিন্তু সে ক্ষেত্রে এখন ভূ-গর্ভস্থ পানিই একমাত্র ভরসা। এমন পরিস্থিতিতে ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীলতা কমানোর উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, সরকার ভূ-গর্ভস্থ পানির উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে ক্রমান্বয়ে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে। সে পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ঢাকা ওয়াসার আওতায় ৩টি প্রকল্প অর্থাৎ পদ্মা পানি শোধনাগার প্রকল্প, ঢাকা এনভার্নমেন্টালি সাসটেনেবল ওয়াটার সাপ্লাই প্রজেক্ট এবং সায়েদাবাদ পানি শোধনাগার শীর্ষক প্রকল্পের মাধ্যমে ৩টি বড় ভূ-উপরিস্থ পানি শোধনাগার নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। তবে ওসব প্রকল্প থেকে পানি সরবরাহ পেতে আরও কয়েক বছর সময় প্রয়োজন। শোধনাগারগুলো নির্মাণ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত অন্তবর্তীকালীন পানি সরবরাহের কভারেজ ধরে রাখার জন্য চলমান ওই প্রকল্পটির অনুমোদিত কার্য পরিধি বাড়িয়ে সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, বিগত শতকের সত্তরের দশকের আগে দেশের মানুষের কাছে সুপেয় পানির প্রধান উৎস ছিল পুকুর-নদী-খাল আর বৃষ্টির জমিয়ে রাখা পানি। আর সত্তরের দশকের শুরুতে কৃষিকাজের জন্য এদেশে প্রথম ভূ-গর্ভস্থ পানির ব্যবহার শুরু হয়। আশির দশকে তা ব্যাপকতা পায়। তারপর ভূগর্ভস্থ পানির ব্যাপক ব্যবহার আর থামানো যায়নি। পাশাপাশি দেশের উজানে পদ্মা ও তিস্তাসহ অভিন্ন নদীগুলোতে ভারত কর্তৃক বাঁধ নির্মাণসহ নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারণে ভূ-গর্ভস্থ পানির চাহিদাও বেড়ে গেছে। গত চার দশকে দেশে ভূ-গর্ভস্থ পানির ব্যবহার বেড়েছে প্রায় শতভাগ। খাবার পানি, রান্না, গোসল, সেচসহ সব কাজে ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে মানুষ। এখন সুপেয় ও চাষাবাদের পানির চাহিদার প্রায় ৮০ শতাংশই মেটাতে হচ্ছে ভূ-গর্ভ থেকে। অপরিকল্পিতভাবে গভীর ও অগভীর নলকূপ দ্বারা ওই পানি উত্তোলনের ফলে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর আশঙ্কাজনকভাবে নিচে নেমে যাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে ঢাকা ওয়াসা মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন করেছে। ওই মাস্টারপ্ল্যানের আওতায় ২০২১ সাল নাগাদ ঢাকায় ৭০ ভাগ পানি ভূ-উপরিস্থ পানির উৎস থেকে সরবরাহ করার জন্য কাজ চলছে। ঢাকা ওয়াসা ৩টি বড় পানি শোধনাগার প্রকল্প গ্রহণ করেছে। চট্টগ্রাম ওয়াসা শেখ হাসিনা পানি শোধনাগার নামে একটি শোধনাগার চালু করেছে। ফলে ভূ-গর্ভস্থ পানির উৎসের নির্ভরতা কমে ৫৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ হয়েছে। আরও ৩টি শোধনাগার প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে। তাছাড়া রাজশাহী ওয়াসা দৈনিক ২৭ মিলিয়ন লিটার ক্ষমতাসম্পন্ন শহীদ কামারুজ্জামান শোধনাগার নির্মাণ করেছে। খুলনা ওয়াসা ২ হাজার ৫৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘খুলনা পানি সরবরাহ’ প্রকল্প গ্রহণ করেছে। প্রকল্পটি ২০১৮ সালের মধ্যে বাস্তবায়িত হবে। সেটি বাস্তবায়ন হলে দৈনিক ১১ কোটি লিটার ভূ-উপরিস্থ পানি সরবরাহ করা হবে।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন জানান, ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর ৩ থেকে ১০ মিটার পর্যন্ত নেমে গেছে। সুপেয় পানি ও কৃষিকাজে ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর অধিক হারে নির্ভরশীলতার কারণেই পানির স্তর নেমে যাচ্ছে। ভূ-গর্ভস্থ পানির পরিবর্তে ভূ-উপরিস্থ পানির ব্যবহার নিশ্চিত করতে পুকুর খনন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। তাছাড়া ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে প্রায়োগিক গবেষণা চালানো হচ্ছে। ভূ-উপরিস্থ পানির ব্যবহার নিশ্চিত করতে সরকার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের মাধ্যমে পুকুর খনন প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com