২৫শে অক্টোবর, ২০২০ ইং , ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৭ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

গুজরাটে বিজ্ঞাপনে হিন্দু-মুসলিম বিয়ে নিয়ে জলঘোলা

গুজরাটে বিজ্ঞাপনে হিন্দু-মুসলিম বিয়ে নিয়ে জলঘোলা

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : অহরহ হিন্দুমুসলিম বিয়ে হচ্ছে ভারতে। এরই মধ্যে তানিশক নামের একটি গয়না প্রতিষ্ঠান হিন্দু মেয়ের বিয়ে মুসলমানের ঘরে আসার আনন্দের বিজ্ঞাপন নিয়ে ঘটেছে তুলকালাম কাণ্ড।

বিজ্ঞাপনে দেখানো হয়েছে, মুসলিম পরিবারে বিয়ে হয়ে আসা এক হিন্দু নারী গর্ভবতী। তার সাধভক্ষণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে বাড়িতে সাজ সাজ রব। হাত ধরে তাকে অনুষ্ঠানে নিয়ে আসছেন শাশুড়ি। মুসলিম পরিবারে সাধভক্ষণের অনুষ্ঠানে হিন্দু রীতি দেখে চমকে উঠে পুত্রবধূ শাশুড়িকে বলেন, ‘আপনাদের তো এসব রীতি নেই!’ পুত্রবধূর কথার জবাবে শাশুড়ি বলেন, ‘মেয়েকে খুশি করার রীতি সব জায়গাতেই রয়েছে’।

গয়না প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান তানিশকের একটি বিজ্ঞাপন ঘিরে ভারতে বিতর্ক চলছে। বিজ্ঞাপনটি দেখে অনেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানাতে থাকে। এই ব্র্যান্ডকে বয়কটেরও ডাক ওঠে। তীব্র সমালোচনার জেরে শেষমেশ বিজ্ঞাপনটি সরিয়ে নেয় তানিশক। এর মধ্যে গুজরাটে তানিশকের শোরুমে হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বুধবার গুজরাটের কচ্ছ জেলার গান্ধীধাম শহরে হিন্দুত্ববাদী সমর্থকদের বিরুদ্ধে তানিশকের শোরুমের কর্মীদের হেনস্থা করার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া গয়নার দোকানের গেটে পোস্টার লাগানোরও অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে। ওই পোস্টারে লেখা হয়েছে, ‘সমগ্র কচ্ছ জেলা হিন্দু সমাজের কাছে ওই বিজ্ঞাপনের জন্য ক্ষমাপ্রার্থী তানিশক’।

গান্ধীধাম এলাকার তানিশকের শোরুমের এক কর্মী ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানান, প্রায় ১২০ জনের মতো লোক শোরুমটির সামনে জড়ো হয়। তাদের মধ্যে ৬-৭ জন জোর করে শোরুমে ঢুকে কর্মীদের গালাগালি করেন। তারা বলেন, ‘হিন্দু হয়ে তারা এ ধরনের বিজ্ঞাপন বরদাস্ত করবেন না’।

তিনি আরও বলেন, আমরা তাদেরকে বোঝাতে থাকি। তাদেরকে বলি, বিজ্ঞাপনটি আমাদের গয়নার প্রচার হিসেবে করা হয়েছিল, অন্য কিছুর জন্য না। আরও বলি, আমরাও হিন্দু। কিন্তু আমাদের কথা তারা কানে তোলেনি। কয়েকজন শোরুমের দরজায় জোর করে আমাদের দিয়ে পোস্টার লাগিয়ে নেন। এরপর ছবি তুলে চলে যান।

গুজরাটি ভাষায় হাতে লেখা পোস্টারে লেখা হয়েছে, ‘তানিশকের বিজ্ঞাপনটি যেভাবে তুলে ধরা হয়েছে, তা লজ্জাজনক। গান্ধীধাম তানিশক ক্ষমা চাইছে সমগ্র কচ্ছ জেলা হিন্দু সমাজের কাছে’।

শোরুমের আরেক কর্মী জানান, জানি না তারা কারা। আমরা কোনো বিতর্ক চাই না। এখনও পুলিশকে কিছু জানাইনি। আমাদের অনেক ক্রেতা ফোন করে বিজ্ঞাপনটি নিয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। আমাদের ব্যবসা ধাক্কা খাচ্ছে।

এদিকে গান্ধীধাম শহরে তানিশকের শোরুমে হামলার ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি উঠেছে। এনডিটিভি সম্প্রচারিত খবর দেখে একজন চিকিৎসক সেই শোরুমের ম্যানেজারকে ফোন করেন। ফোনে তিনি জানান, তাদের স্টোরে কোনো হামলার ঘটনা ঘটেনি। ওই চিকিৎসক তার এবং শোরুমের ম্যানেজারের কল রেকর্ড টুইটারে আপলোড করেন।

বিজ্ঞাপনে দেখানো হয়েছে, মুসলিম পরিবারে বিয়ে হয়ে আসা এক হিন্দু নারী গর্ভবতী। তার সাধভক্ষণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে বাড়িতে সাজ সাজ রব। হাত ধরে তাকে অনুষ্ঠানে নিয়ে আসছেন শাশুড়ি। মুসলিম পরিবারে সাধভক্ষণের অনুষ্ঠানে হিন্দু রীতি দেখে চমকে উঠে পুত্রবধূ শাশুড়িকে বলেন, ‘আপনাদের তো এসব রীতি নেই!’ পুত্রবধূর কথার জবাবে শাশুড়ি বলেন, ‘মেয়েকে খুশি করার রীতি সব জায়গাতেই রয়েছে’।

বিজ্ঞাপনটি দেখে অনেকে ক্ষেপে উঠে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিক্রিয়া জানাতে থাকে। তাদের অভিযোগ, এই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ‘লাভ জিহাদে’র তত্ত্ব প্রচার করা হচ্ছে। তারপরই নেট দুনিয়ায় ওই ব্র্যান্ডকে বয়কটের ডাক ওঠে। তীব্র সমালোচনার জেরে শেষমেশ বিজ্ঞাপনটি সরিয়ে নেয় তানিশক।

এ বিষয়ে তানিশকের এক বিবৃতিতে জানায়, অনিচ্ছাকৃতভাবে সংবেদনশীল অনুভূতি নিয়ে এমন কাজ করায় আমরা দুঃখিত। আমাদের কর্মী, স্টোর স্টাফ ও অংশীদারীদের ভাবাবেগে আঘাত হানতে পারে, এদিকটি মাথায় রেখে ভিডিওটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com