রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৪২ অপরাহ্ন

চুরি ডাকাতি বন্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিন

নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ

চুরি ডাকাতি বন্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিন

সামনে ঈদ। ঈদকে কেন্দ্র করে চুরি ছিনতাই তুমুলভাবে বেড়ে গেছে। আইন-শৃঙ্খলা নিয়েও দেখা দিয়েছে উদ্বেগ। সমাজে শৃঙ্খলা ফেরাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব অনেক। যেকোনো কারণেই হোক, এতে কোনো শিথিলতা কাম্য নয়। বর্তমানে চরম সত্যটা হলো, দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি যে চরম অবনতিশীল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ডাকাতি, খুন, ধর্ষণ ও ধর্ষণ-পরবর্তী হত্যা, চাঁদাবাজি ইত্যাদি নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই সঙ্গে আছে জঙ্গিবাদ বিস্তারের হুমকি। অথচ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর সন্ত্রাসবিরোধী তৎপরতা যেন ক্রমেই ঝিমিয়ে পড়ছে। এ অবস্থায় নাগরিকদের উদ্বেগের পারদ শুধুই ঊর্ধ্বগামী হচ্ছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরাখবর থেকে জানা যায়, দেশে এখন রীতিমতো পাড়ায়-মহল্লায় অপরাধীচক্র গড়ে উঠেছে। কিশোররাও জড়িয়ে যাচ্ছে এসব অপরাধচক্রে। অপরাধীদের হাতে চলে আসছে আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র। অনেক শীর্ষ সন্ত্রাসী বিদেশে অবস্থান করে সহযোগীদের মাধ্যমে দেশে অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। কারো কারো রয়েছে অনেক বড় নেটওয়ার্ক। রয়েছে মাদক, মানবপাচারসহ বিভিন্ন ধরনের আন্তর্জাতিক চোরাচালানের নেটওয়ার্ক। অপরাধ বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এভাবে অপ্রতিরোধ্য গতিতে অপরাধ বাড়তে থাকলে এই সমাজে বসবাস করাই কঠিন হয়ে পড়বে। গতকালের পত্রপত্রিকায়ও এমন বেশ কিছু খবর রয়েছে, যা রীতিমতো আতঙ্কের কারণ। শুক্রবার রাতে খিলগাঁওয়ের এক বাসা থেকে গোয়েন্দা পুলিশ একটি স্বয়ংক্রিয় একে-২২ রাইফেলসহ ছয়টি অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র ও প্রচুর গুলি উদ্ধার করেছে। যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, জানা যায় তারা বিদেশে অবস্থানকারী এক শীর্ষ সন্ত্রাসীর হয়ে কাজ করে। চুক্তিতে মানুষ খুনসহ এমন কোনো অপরাধ নেই, যা তারা করে না।

একই রাতে মিরপুরের রূপনগরের একটি বাসা থেকে পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ) নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সন্দেহভাজন পাঁচ সদস্যকে আটক করে। এ সময় তাদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তিন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হন। সেখান থেকে বোমা তৈরির সরঞ্জাম, দেশি অস্ত্রশস্ত্রসহ প্রচুর জিহাদি বই উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার রাতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে মুখোশধারী ডাকাতরা গৃহকর্তাকে জবাই করে ঘরের টাকা-পয়সা, মালামাল নিয়ে গেছে। একই রাতে নারায়ণগঞ্জে মুখোশধারী দুর্বৃত্তদের চাপাতির আঘাতে একজন নিহত এবং ছয়জন গুরুতর আহত হয়েছে। শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে এক মাদরাসাছাত্রীকে দুর্বৃত্তরা এসিডে ঝলসে দিয়েছে। এ রকম ঘটনা তো অহরহ ঘটছে।

সামনে পবিত্র ঈদুল আজহা। লাখ লাখ মানুষ পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করতে বিভিন্ন গন্তব্যে ছুটবে। সারা দেশে পশুর হাটগুলো জমে উঠবে। বিপণিবিতানগুলোও জমজমাট থাকবে। আর এই সুযোগে অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টি, জাল টাকার কারবারিসহ বিভিন্ন অপরাধীচক্র সক্রিয় হয়ে উঠবে। সেই সঙ্গে সন্ত্রাসীরা নেমে পড়বে ছিনতাই-চাঁদাবাজিতে। আমরা মনে করি, গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হোক। কোনো রকম বাছবিচার না করে অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com