৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং , ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১৩ই জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী

জন্মগাঁয়ের ধন্যভূমি

জন্মগাঁয়ের ধন্যভূমি ● আশরাফ উদ্দীন রায়হান

স্নিগ্ধ শ্যামলিমার নৈসর্গিক ও নয়নাভিরাম আবহে পুলক আর সঞ্জাত আবেশ-জাগানিয়া পল্লীটির নামই বেলংকা। সবুজের সমারোহ আর ফসলী খেতের ঢেউ-খেলানো ছবির মতোন সুন্দর গ্রামবাংলার অপরূপ রূপের দেখা এখানেই মেলে! কিশোরগঞ্জের তাড়াইল থানাধীন এ গ্রামটিতেই জন্ম নিয়েছেন ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ নামক বিংশ শতাব্দীকে চমক লাগিয়ে দেয়া এক কিংবদন্তী প্রতিভা! আজন্ম শৈশব, বাল্য, কৈশোর ও যৌবনের ঊষালগ্ন বেলংকার আলো-বাতাস আর ধূলিকণায় কেটেছে বলে নিজেকেও সৌভাগ্যবান মনে হয়। তিনি কেবল গোবরে পদ্মফুল হয়েই প্রস্ফুটিত হননি, মানুষটি যে আমাদের সবেধন নীলমণি। তাঁর কৃতিত্ব আর অত্যাশ্চর্য মেধার সাক্ষ্য আজ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সবদিক থেকে ছড়িয়ে পড়ছে। সর্ববৃহৎ ঈদগাহ শোলাকিয়ার গ্র্যান্ড ইমাম হিসেবে সমধিক পরিচিতি থাকলেও তাঁর পরিচয়ের ব্যাপকতাকে জগজ্জোড়া বললে অতিশয়োক্তি হবে না।

বেলংকা—কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলায় অবস্থিত একটি গ্রাম| শতভাগ ধর্মপ্রাণ মুসলমানের বসবাস এখানে। ভাটি-বাংলার হাওর-বাঁওর বিধৌত গ্রামটিকে নিয়ে গর্ব করার মতো অনেক কিছুই উল্লেখ করা যায়। পাশের আর চারটি গ্রাম— ইছাপশর, হাছলা, বোরগাঁও ও নগরকূলের সম্মিলিত পঞ্চগ্রাম ঈদগাহ, পঞ্চগ্রাম গোরস্থান, পঞ্চগ্রাম হাই স্কুল— সবই অবস্থিত এই গ্রামে। মজার ব্যাপার হলো, আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ (দা. বা.)-কে এলাকার মানুষ তথা আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা “মাসুদ মৌলানা” বলে ডাকে।

দারুল উলূম দেওবন্দের সর্বোচ্চ রেকর্ড-করা রেজাল্টের তকমাও এই গ্রামেরই পদ্মফুল মাসুদ মৌলানার। প্রত্যন্ত এ গ্রামটিতে দাওরায়ে হাদীসের ক্লাসের সূচনাও হয়েছে এই মানুষটির কল্যাণেই। প্রতি বছরে দেশ-বিদেশের ওলামা-বুযুর্গের আগমনেও বরকতময় হয়ে ওঠে বেলংকার আকাশ-বাতাস থেকে শুরু করে প্রতিটি ধূলিকণা।

আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ (দা. বা.)-এর পিতা জনাব মাস্টার আবদুর রশীদ (রহ.) ছিলেন বাংলা সাহিত্যের এক নিভৃতসাধক। তাঁর জীর্ণকুটীরে সৌভাগ্যের পালক সঙ্গী করে “মাসুদ মৌলানা” জন্মেছিলেন বলেই বেলংকার মাটি ধন্য হয়েছে আওলাদে রাসূলের পদস্পর্শে। দারুল উলূম দেওবন্দের সর্বোচ্চ রেকর্ড-করা রেজাল্টের তকমাও এই গ্রামেরই পদ্মফুল মাসুদ মৌলানার। প্রত্যন্ত এ গ্রামটিতে দাওরায়ে হাদীসের ক্লাসের সূচনাও হয়েছে এই মানুষটির কল্যাণেই। প্রতি বছরে দেশ-বিদেশের ওলামা-বুযুর্গের আগমনেও বরকতময় হয়ে ওঠে বেলংকার আকাশ-বাতাস থেকে শুরু করে প্রতিটি ধূলিকণা। খেটে-খাওয়া গ্রামের মানুষ অবাক বিস্ময়ে একাধিকবার দেখেছে আকাশপাখি হেলিকপ্টারের উড্ডয়ন আর অবতরণ।

হেদায়েতী বয়ান, জিকির-আযকারের তালিম, কুরআনের মশক ও বিভিন্ন আমলের দ্বারা এলাকাটি নূরানী হয়ে যায়। তিনি শেষরাতে তাহাজ্জুদের পরে সব মানুষকে সাথে নিয়ে “মালিক-মালিক, ও মালিক! মাফ কইরা দাও” বলে যখন মুনাজাতে কান্নায় ভেঙে পড়েন তখন মনে হয় আসমান-জমিনের “মালিক” আল্লাহ সুবহানু তাআলা মাফ না করে আর পারেন না!

আওলাদে রাসুল, শায়খুল আরব ওয়াল আজম, শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমাদ মাদানী (রহ.)-এর জ্যেষ্ঠপুত্র সায়্যিদ আসআদ মাদানী (রহ.)। আর তাঁর পুত্র মাওলানা মাহমূদ মাদানী (দা.বা.) ও মাওলানা মওদূদ মাদানী (দা.বা.)। বেলংকার মাটি ধন্য হয়েছে মাওলানা মাহমূদ মাদানী ও মাওলানা মওদূদ মাদানী দা. বা.-এর একাধিকবার আগমনে। শায়খুল হাদিস মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমূদ (দা.বা.)-এর কথায়, ‘নবীজির রক্ত যাঁর ধমনীতে প্রবাহিত, তিনি আজ আমাদের মাঝে এসেছিলেন।’ নবীজির বংশের লোককে দেখার জন্যে মানুষের বেচাইন অবস্থা আমি নিজের চোখে দেখেছি। সবকিছু ঠিক থাকলে এ বছরের ইজতেমায়ও দুজন আওলাদে রাসুল শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমাদ মাদানী (রহ.)-এর দৌহিত্র ও পৌত্র যথাক্রমে মুফতী আফফান মনসুরপুরী ও মুফতী মওদুদ মাদানীসহ দারুল উলূম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা হুজ্জাতুল ইসলাম কাসিম নানুতবী (রহ.)-এর বংশধর ইমাম কাসিম রশিদ আহমাদ তাশরিফ আনবেন, ইনশাআল্লাহ।

শেষরাতে তাহাজ্জুদের পরে সব মানুষকে সাথে নিয়ে “মালিক-মালিক, ও মালিক! মাফ কইরা দাও” বলে যখন মুনাজাতে কান্নায় ভেঙে পড়েন তখন মনে হয় আসমান-জমিনের “মালিক” আল্লাহ সুবহানু তাআলা মাফ না করে আর পারেন না!

তাঁর উদ্যোগ আর আহ্বানেই নিজের জন্মস্থান বেলংকাতে দীর্ঘ এক যুগ ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসা তিন দিনব্যাপী ইসলাহী ইজতেমার এ বছরের তারিখ হলো : ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি (শুক্র, শনি ও রবিবার)। ২০১৮ সালে মানিকগঞ্জে পেশাগত দায়িত্বে থাকায় ইসলাহী ইজতেমায় শরিক থাকতে পারিনি। গতবছরও কেবল নতুন নতুন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষের ক্লাস আরম্ভ হওয়ায় হাজির হওয়ার সুযোগ হয়নি। এবার আমার হৃদয়ের দু’কূলে উপচে পড়ছে আনন্দ-উচ্ছ্বাসের ঢেউ। খুব শীঘ্রই চলে আসছি প্রাণের ইজতেমায়।

লেখক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com