মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৩১ অপরাহ্ন

জিন্নার প্রতিক্রিয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় মুসলমানরা : আল্লামা মাসঊদ

জিন্নার প্রতিক্রিয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় মুসলমানরা : আল্লামা মাসঊদ

পাথেয় রিপোর্ট : বিশ্বজুড়ে মজলুম ও নির্যাতিত মুসলমানদের প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শন ঈমানের প্রশ্ন উল্লেখ করে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে নির্যাতিত মুসলমানদের পক্ষে প্রতিক্রিয়া কী হবে? এমন প্রতিক্রিয়া দেখানো কখনোই উচিত নয় যে, পার্শ্ববর্তী বা বিশ্বের ওই দেশের মুসলমানের আরও বেশি ক্ষতি হয়। নির্যাতিত দেশের অবস্থা ও বাস্তবতা দেখে কূটনৈতিকভাবে কোনো চেষ্টা না করে কেবল প্রতিক্রিয়ায় ক্ষতি সামলানো যায় না।

ইংরেজ খেদাও আন্দোলনের বর্ষীয়ান নেতা পাকিস্তানের জাতির পিতা মুহাম্মদ আলী জিন্নার প্রতিক্রিয়া মুসলমানদের পক্ষে যায়নি দাবি করে ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেছেন, এটা সত্য যে, মুহাম্মদ আলী জিন্না মুসলমানদের পক্ষে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন, দেখিয়েছেন। তবে এতে মুসলমানরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

শুক্রবার (০৪ অক্টোবর) রাজধানীর খিলগাঁও জামিআ ইকরা বাংলাদেশ মিলনায়তনে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা আয়োজিত মাসিক সভায় সাইয়্যিদ মাওলানা আসআদ মাদানী রহ.-এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ এসব কথা বলেন।

ভুল প্রতিক্রিয়ায় মুসলমানদেরই ক্ষতি হয় উল্লেখ করে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, বাবরি ইস‌্যুতেও আমাদের প্রতিক্রিয়ায় ভারতের মুসলমানদের লাভ হয়নি। বিশেষত আলেমদের ভুল প্রতিক্রিয়া দেখানো উচিত নয়।

মুসলমানদের এখন কেবল এক হলেই চলবে না মন্তব্য করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, একত্র হওয়ার পাশাপাশি নেকও হতে হবে। এক ও নেক হওয়ার পরই মহান আল্লাহর নুসরত আসবে। আল্লাহর নুসরত ও রহমত এক ও নেক-এর সঙ্গে থাকে।

এখন মুসলমানদের বিক্ষিপ্ত করার ষড়যন্ত্র চলছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, হযরত উমরের যুগে ইহুদীরা ষড়যন্ত্র শুরু করেছিল। তারা সফল হয়নি। হযরত উসমান রা. ও হযরত আলী রা.-এর শাহাদতের পেছনে তাদেরই হাত ছিল। পাশ্চাত্য দর্শনের প্রভাবের কারণে পরবর্তী যুগে এক ও নেক হওয়ার ক্ষেত্রে মুসলমানদের মধ্যে বিভক্তি আসে। এর সুযোগ নেয় ইহুদীরা।

সবধরনের বিক্ষিপ্ততা থেকে বেঁচে থাকার জন্য ও সবসময় নেক থাকার আহ্বান জানান আল্লামা মাসঊদ।

তিনি বলেন, বিক্ষিপ্ততা এমন জিনিস একজন মুসলমান আরেকজনকে দেখতে পারে না। বর্তমান তাবলিগের যে হালত তৈরী হয়েছে। আল্লাহ আমাদের হেফাজত করুন।

বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাইফীর সভাপতিত্বে ও মাসিক সভায় মাওলানা মাসউদুল কাদির-এর পরিচালনায় স্বাগত ভাষণ দেন, বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারী জেনারেল মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, সংগঠনের মহাসচিব মাওলানা আবদুর রহীম কাসেমী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ইমদাদুল্লাহ কাসেমী।

প্রস্তাবনা ও পরামর্শ প্রদানের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন শাহবাগ চাঁন মসজিদের ইমাম মাওলানা সোলাইমান, তেজগাঁও থানা আহ্বায়ক মাওলানা লিয়াকত আলী মাসঊদ, কোতয়ালী থানা আহ্বান হাফেজ কামাল খাঁন, খিলগাঁও থানা আহ্বায়ক মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com