সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন

দেওবন্দে পুলিশি তদন্ত; যা বললেন আরশাদ মাদানী

দেওবন্দে পুলিশি তদন্ত; যা বললেন আরশাদ মাদানী

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ভারতের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম দেওবন্দে নির্মাণাধীন ‘শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরি’ বিষয়ে পুলিশি তদন্ত নিয়ে জমিয়তে উলামা হিন্দ-এর সভাপতি ও দারুল উলূম দেওবন্দের মুহাদ্দিস মাওলানা সাইয়্যিদ আরশাদ মাদানী বলেন, কখনো দারুল উলূম দেওবন্দের ভবন নির্মাণ সম্পর্কিত কোন কাজে সরকার নাগ গলায়নি। এ জন্য সারকারের অনুমতি নেওয়ার বিষয়টিও আমরা লক্ষ্য করিনি। তবে বিজেপি সরকার যেহেতু নজর দিচ্ছে, আমরাও এখন থেকে এ বিষয়টি কঠোরভাবে অনুসরণ করার চেষ্টা করবো।

এ প্রসঙ্গে দারুল উলূম দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাসেম নোমানী বলেন, দারুল উলূম দেওবন্দের সমস্ত ভবন সরকারী নিয়মানুযায়ী নির্মিত হচ্ছেে। তবুও যদি সরকারের পক্ষ থেকে কেউ রিসার্চ করতে আসে, তাহলে আমরা তাকে স্বাগত জানাবো। আর ডি এম কর্তৃক গঠনকৃত তদন্ত টিমকে যাবতীয় তথ্য দিয়ে আমারা সবরকমের সাহায্য করার জন্য প্রস্তুত।

এদিকে দারুল উলূম দেওবন্দের নায়েবে মুহতামিম মাওলানা আবদুল খালিক মাদরাজী ‘শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরি’ উপরের অংশে হেলিপ্যাড নির্মিত হওয়ার তথ্য অস্বীকার করেছেন। নির্মাধীন ভবনের নকশাও জমা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি এসডিএম রাকেশ কুমারের প্রাপ্ত নোটিশের জবাবে বলেছেন, দেওবন্দে শুধু লাইব্রেরি নির্মাণের কাজ চলছে, হেলিপ্যাড তৈরি হচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, ভারতের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম দেওবন্দে হেলিপোর্ট নির্মাণের অভিযোগের জেরে শনিবার (৩ জুলাই) মাদরাসায় তল্লাশি চালিয়েছে স্থানীয় জেলা প্রশাসন।

তল্লাশিতে জেলা পুলিশ কর্মকর্তা অলোক পান্ডে, এসএসপি দীনেশ কুমার ও পুলিশ প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অফিসাররা দারুল উলূম দেওবন্দের সীমানায় নির্মাণাধীন শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরির উপরে হেলিপোর্ট নির্মাণের বিষয়ে অনুসন্ধান করেন।

ভারতের অনলাইন পোর্টাল আসরে হাজিরকে ডিএম অলোক পান্ডে জানা, আমরা তদন্ত করেছি। গ্রন্থাগারসহ হেলিপোর্ট নির্মাণের অনুমতি নেওয়া হয়নি দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে। তাই এসডিএম সহ পিডব্লিউডিকে এর প্রযুক্তিগত সক্ষমতাসহ ইত্যাদি যাচাইয়ের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। প্রযুক্তিগত প্রতিবেদন পাওয়ার পরে এ ক্ষেত্রে কী ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

জানা যায়, মুখ্যমন্ত্রী দপ্তরে অভিযোগ করা হয়েছিল, দারুল উলূম দেওবন্দ বিশাল লাইব্রেরির ছাদে হেলিপোর্ট তৈরির প্রস্তুতি চলছে। এ অভিযোগ তদন্ত করতে ডিএমসহ সমস্ত কর্মকর্তা দারুল উলূমে পৌঁছেন।

এর আগে দারুল উলূম দেওবন্দের সীমানায় নির্মাণাধীন শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরি ভবনের তথ্য চেয়ে নোটিশ পাঠিয়েছে সাহারানপুরের ডি এম। এমন খবরে দারুল উলূম দেওবন্দ কতৃপক্ষ যারপরনাই বিস্মিত হয়েছেন এবং ভারতের সাধারণ মুসলিমরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

পা.টো.ড/আদিল

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com