বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
যে কারণে অন্যদের চেয়ে ভিন্ন মারিয়ার ইসলাম গ্রহণ হঠাৎ করে আয়শার বাড়িতে হাজির আবুধাবির রাজা! মুর্শিদাবাদে প্রিয়াঙ্কা রেড্ডি ধর্ষকদের শাস্তির দাবীতে হিন্দ জমিয়তের মিছিল ভারতে আবারও ধর্ষণের শিকার নারীর শরীরে অগ্নিসংযোগ শিশুকে শিক্ষার সাথে দীক্ষাও দেই | রেক্স সালমান দুর্নীতি বিরুদ্ধে অভিযান চলমান থাকবে : সেতুমন্ত্রী নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষার কারণেই মানুষ চরিত্রহীন হচ্ছে : চরমোনাই পীর মাওলানা আজিজুল হক হুজি প্রতিষ্ঠাতা উল্লেখ করে সংবাদ; ক্ষমা চাইলো যমুনা কানাকে কানা আর খোঁড়াকে খোঁড়া বলো না : প্রধানমন্ত্রী ইমাম হয়ে কাতার যেতে প্রধানমন্ত্রীর সহাযোগিতা চায় ‘হাফেজ কল্যাণ ফাউন্ডেশন’

দেশব্যাপী আলেমদের ইসলাহী প্রোগ্রাম চাই

নোয়াখালী বেগমগঞ্জে এগ্রিকালচার জামে মসজিদে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ তালীম করছেন

দেশব্যাপী আলেমদের ইসলাহী প্রোগ্রাম চাই

মাওলানা আমিনুল ইসলাম : বর্তমানে সামাজিক অবক্ষয় দেখা দিয়েছে চরমভাবে। বিশেষ করে নৈতিকতার অভাব। আখলাক- চরিত্রে চরম অবনতি আমাদের। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলি না। মানুষের চরিত্রের পরিবর্তে পশুর চরিত্র আমাদের মাঝে বাসা বেঁধে আছে।

এত অধঃপতন আমাদের আগে কখনো হয়নি। বর্তমান সময়ে যেভাবে অবনতি হয়েছে, এরকম অবস্থার কথা আমার তো মনে পড়ে না।
আগে যে আমাদের সামাজিক সমস্যা ছিলো না তা নয়। কিন্তু এখন অনেক বেশী নিচে নেমে গেছি আমরা।

সম্প্রতি আমাদের দেশের কিছু কিছু মানুষের অনৈতিক কার্যকলাপ ভাবিয়ে তুলেছে সকলকে। অনেক জঘন্যতম কাজে আমাদের সমাজের মানুষ শরীক হচ্ছে। আর সেগুলো এমন অপরাধ, যা কল্পনা করা যায় না।

আখলাক চরিত্রের এমন অধঃপতন, যা ইতিপুর্বে ছিল না। যিনা- ব্যাভিচার, বলাৎকারের ঘটনা এখন অহরহ ঘটছে। অথচ বিশ বছর আগে এসব কাজ গুলোর এত ব্যাপকতা ছিল না। কিন্তু এখন পাল্লা দিয়ে ঘটছে এসব ঘটনা।

এসব ঘটনায় আমাদের এই শান্ত- শিষ্ট জাতি মুসড়ে পড়ছে। এসব ঘটনার দ্বারা সামাজিক বন্ধন নষ্ট হচ্ছে। সমাজের মাঝে দিনে দিনে অশান্তি সৃষ্টি হচ্ছে।
এই নাজুক পরিস্হিতিতে আমাদের দেশের হক্কানী ওলামায়ে কেরাম এবং পীর মাশায়েখদের এগিয়ে আসা জরুরী। নিঃস্বার্থ ভাবে মানুষকে আল্লাহর দিকে আহবান করুন। কোন কিছুর বিনিময়ে নয়। বা কোন প্রভাব বিস্তারের জন্য নয়। একদম নিষ্ঠার সাথে মানুষকে আল্লাহর রাস্তায় আহবানের সময় এখন।
পথ ভোলা মানুষকে পথের দিশা দেওয়া প্রয়োজন। মানুষের মধ্যে আল্লাহর ভয় তৈরী করা দরকার। ধর্মীয় অনুশাসন মানার ব্যাপারে উৎসাহিত করা। গোনাহের থেকে মানুষকে বাঁচাবার জন্য, গোনাহের পরিণতি, জাহান্নামের ভয়াবহতা, জাহান্নামের আজাব সম্পর্কে মানুষকে জানানোর দরকার বেশী।
আর এসব কাজের জন্য প্রয়োজন সমাজের হক্কানী- রব্বানী আলেমদের। হক্কানী পীর মাশয়েখদের এগিয়ে আসার এখনই সময়।

প্রতিটা জেলায় জেলায়, থানায় থানায়, মহল্লায় মহল্লায়, ইসলাহী প্রোগ্রাম হওয়া চাই। যেখানে সমাজের সব শ্রেণীর মানুষকে একত্র করণ। সম্পূর্ণ রাজনীতি মুক্ত, দল মুক্ত পরিবেশে ওলামায়ে কেরামের নসীহত শোনানো বড্ড প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

দেশের বিভিন্ন জায়গাতে অনেক ওলামায়ে কেরাম,এই মহান কাজ করে যাচ্ছেন। অনেক পীর মাশায়েখ ও সারাটা বছর তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। তবে উনাদের সংখ্যা তো কম। বেশীর থেকে বেশী এই ইসলাহী প্রোগ্রাম হওয়া চাই।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের উপর রহম করুন। আমিন।

লেখক : শিক্ষক ও সমাজ বিশ্লেষক

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com