বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
হঠাৎ করে আয়শার বাড়িতে হাজির আবুধাবির রাজা! মুর্শিদাবাদে প্রিয়াঙ্কা রেড্ডি ধর্ষকদের শাস্তির দাবীতে হিন্দ জমিয়তের মিছিল ভারতে আবারও ধর্ষণের শিকার নারীর শরীরে অগ্নিসংযোগ শিশুকে শিক্ষার সাথে দীক্ষাও দেই | রেক্স সালমান দুর্নীতি বিরুদ্ধে অভিযান চলমান থাকবে : সেতুমন্ত্রী নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষার কারণেই মানুষ চরিত্রহীন হচ্ছে : চরমোনাই পীর মাওলানা আজিজুল হক হুজি প্রতিষ্ঠাতা উল্লেখ করে সংবাদ; ক্ষমা চাইলো যমুনা কানাকে কানা আর খোঁড়াকে খোঁড়া বলো না : প্রধানমন্ত্রী ইমাম হয়ে কাতার যেতে প্রধানমন্ত্রীর সহাযোগিতা চায় ‘হাফেজ কল্যাণ ফাউন্ডেশন’ তালেবানের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

নো ম্যানস ল্যান্ডে বিএসএফের চৌকি, পরে ভয়ে পলায়ন

নো ম্যানস ল্যান্ডে বিএসএফের চৌকি, পরে ভয়ে পলায়ন

রাজশাহী প্রতিনিধি : সাহসের একটা ব্যাপার আছে।একবার প্রতিবাদ করার জন্য দাঁড়িয়ে গেলে তখন সাহসের সঞ্চার হয়। লাল সবুজের এই দেশের সীমান্তরক্ষীরা বিএসএফের অযাচিত সীমান্তদখলের প্রতিবাদ জানাতে গেলে তারা পালিয়ে যায়। রাজশাহী সীমান্তে অবৈধভাবে অস্থায়ী চৌকি বসায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) রাতে জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার সাহেবনগর সীমান্তের শূন্যরেখায় বিএসএফ চৌকি বসিয়েছিল। তবে সোমবার (০২ ডিসেম্বর) বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা সেখানে গেলে বিএসএফ সদস্যরা পালিয়ে যায়।

বিজিবি জানায়, অস্থায়ী ওই চৌকি নির্মাণের কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি এ সমস্যা দ্রুত সমাধানের জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার সাহেবনগর সীমান্ত ফাঁড়ির এক কিলোমিটার পূর্ব দিকে পদ্মানদী। সেখান থেকে বের হয়ে একটি শাখা নদী উত্তর থেকে দক্ষিণমুখী হয়ে ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার চরলবণগোলা এলাকায় ঢুকেছে। তবে শাখা নদীর ভাঙনে সেখানকার সীমানা পিলারগুলো গত বছরই নদীতে প্লাবিত হয়।

সম্প্রতি শাখা নদীতে পানি কমেছে। এতে পশ্চিম প্রান্তে বাংলাদেশ সীমানার মধ্যে ছোট একটি চর পড়েছে। বিজিবি সদস্যরা শূন্যরেখা সংলগ্ন চরে গিয়ে টহল দিতেন কিছুদিন ধরে। বাংলাদেশ ভূখণ্ডের সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ায় ওই চরে হেঁটেই টহল পরিচালনা করতেন বিজিবি সদস্যরা।

স্থানীয়রা জানায় গত ২৯ নভেম্বর রাতে তড়িঘড়ি করে বাঁশের মাচা পেতে ওপরে খড় ও পাটকাঠি দিয়ে অস্থায়ী চৌকি নির্মাণ করে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। পরদিন শনিবার (৩০ নভেম্বর) সকাল থেকে ভারতীয় সীমান্তের চর লবণগোলা ফাঁড়ির বিএসএফ সদস্যরা সেখানে গিয়ে অবস্থান নিয়ে টহল শুরু করে।

এ ঘটনায় বিজিবি সদস্যরা রোববার (০১ ডিসেম্বর) দিনের আলোতে একবার ও রাতে আরেকবার চরের কাছাকাছি যান। এ সময় তাদের চলে যাওয়ার সিগন্যাল দিলে শেষ পর্যন্ত চৌকি ছেড়ে পালিয়ে যান বিএসএফ সদস্যরা।

এরপর ওই রাতেই আবার নৌকায় করে গিয়ে বিএসএফ সদস্যরা চরে ওঠার চেষ্টা করেন। এ খবরে বিজিবিও চরে গিয়ে অবস্থান নেয়। ফলে বিএসএফ নৌকা ঘুরিয়ে ভারতের ভেতরে চলে যায়। তবে গভীর রাতে বিএসএফ আবারও চরের অস্থায়ী চৌকিতে গিয়ে অবস্থান নেয়। সোমবার (০২ ডিসেম্বর) সকালে বিজিবি সদস্যরা আবারও ওই চরে যায়। তখন বিজিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে বিএসএফ সদস্যরা পালিয়ে যায়।

সীমান্তের নতুন এ চরটির সঙ্গে বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ড সংযুক্ত। চরের আশপাশে বাংলাদেশের ফসলি জমি রয়েছে। যেখানে কৃষকরা নিয়মিত চাষাবাদ করতেন। কিন্তু সেখানে বিএসএফ’র অস্থায়ী চৌকির কারণে এখন কৃষকরা জমিতে যেতে ভয় পাচ্ছেন। তাদের নিরাপত্তায় চরটিতে বিজিবির অস্থায়ী চৌকিও চেয়েছেন কৃষকরা।

বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, চৌকি শূন্যরেখার মধ্যে না ভারতীয় অংশে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি এখনও। সীমান্তে সৃষ্টি অমীমাংসিত এই বিষয়টি সন্তোষজনক সমাধানের জন্য বিএসএফকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় বিএসএফকে সরজমিন পরিদর্শনে আসতে আহ্বান জানানো হয়েছে। তারা এলে উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে আলাপ-আলোচনা সাপেক্ষেই চৌকি স্থাপন নিয়ে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com