১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৮শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি

‘বঙ্গবন্ধুর মুক্তির মাধ্যমে স্বাধীনতা পূর্ণতা লাভ করে’

‘বঙ্গবন্ধুর মুক্তির মাধ্যমে স্বাধীনতা পূর্ণতা লাভ করে’

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ‘পাকিস্তান আমলের ২৩ বছরে নানান আন্দোলন সংগ্রাম হয়েছে। মানুষের অধিকার আদায়ে প্রতিটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু। পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধ করে আমরা ১৯৭১ সালে বিজয় দিবস পেয়েছি। কিন্তু তখন স্বাধীনতা পূর্ণতা লাভ করেনি। স্বাধীনতা পূর্ণতা লাভ করে ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধুর মুক্তির মাধ্যমে।’

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে ‘মহান স্বাধীনতা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের সূচনায় তৃণমূল চিত্র এবং জাতীয় ইতিহাস’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। উনিশে মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ দিবস উদযাপন পরিষদ ও বাংলাদেশ সাংবাদিক অধিকার ফোরাম (বিজেআরএফ) এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আ. ক. ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘পাকিস্তানিরা বুঝেছিল বাঙালির কাছে অস্ত্র থাকা নিরাপদ নয়। তাই বাঙালিদের নিরস্ত্র করতে গাজীপুর থেকে অস্ত্র নিয়ে আসে পাকিস্তানি সৈন্যরা। তখন মানুষ লাঠিসোটা নিয়েই পাকিস্তানি সৈন্যদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে আসে। ১৯ মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ দিবস গৌরবের, এ গৌরব পুরো বাঙালি জাতির।’

মূখ্য আলোচকের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারতের অবদানের কথা আমরা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি। শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী যে ভূমিকা রেখেছিলেন, তা কখনো ভোলার নয়। বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগার থেকে বের হয়ে বাংলাদেশে ফিরে সদ্য স্বাধীন দেশগঠনে আত্মনিয়োগ করেন। তখন দেশে কোনো প্রশাসনিক কাঠামো ছিল না। বঙ্গবন্ধু কূটনীতি, ডিফেন্সনীতিসহ সব নীতি গ্রহণ করে দেশ গঠনের কাজ শুরু করেন। কিন্তু ৭৫ সালে স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

উনিশে মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ দিবস উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এবং গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বিজেআরএফের সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভুঁইয়া।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com