২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং , ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৩রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

রাজধানীতে ১ টাকার আবাসিক মহিলা হোটেল

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : রাত্রিযাপনে একলা একটি মেয়ের ভোগান্তির শেষ থাকে না। এমন একলা মেয়েদের নিরাপদে রাত্রিযাপনের সুবিধা নিয়ে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা মহানগরীতে চালু হয়েছে প্রথম আবাসিক হোটেল বাসন্তী নিবাস।

ভর্তি পরীক্ষা, চাকুরী ইন্টারভিউ বা অন্য কোন প্রয়োজনে একা একটি মেয়ে বা একজন নারী ঢাকায় এসে নিরাপত্তার সাথে রাত কাটাতে পারেন এ বাসন্তী নিবাসে।

সিসি ক্যামেরার পর্যবেক্ষন সহ সার্বক্ষনিক নিরাপত্তা প্রহরা, শীততাপনিয়ন্ত্রিত কক্ষে সম্পূর্ণ প্রাইভেসি দিয়ে স্ক্যাপসুল বেড, কমন ওয়াসরুম-বাথরুম, কমন পেন্ট্রি স্পেস, কাপড়-ধোয়ার জন্য ওয়াসিং মেশিন আর নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও ওয়াইফাই যুক্ত-এমন সুবিধার জন্য একজন ছাত্রী বা নারীকে প্রথম রাতের জন্য মাত্র এক টাকা বিল দিতে হবে। তবে দ্বিতীয় দিন থেকে তা ১৯৯ টাকা করে পরিশোধ করতে হবে। আর খাবার ও পানীয় এখান থেকে সরবরাহ করা হয় না। অতিথিকে বাইরে থেকে পছন্দের খাবার কিনে আনতে হবে।

শুধুমাত্র নারীদের জন্য দেশে প্রথম এরকম একটি আবাসিক হোটেলের ইনচার্জ তাহমিনা আখতার জানিয়েছেন তাদের এ অভিনব উদ্যোগের কথা।

এ ক্যাপসুল হোটেলে চেক ইন ও চেক আউট প্রসংগে তিনি জানান, সকাল আটটা থেকে বিকেল ছ’টার মধ্যে চেক-ইন করা যাবে। তবে দুরের জেলা থেকে আগতদের ট্রেন-বাসের সময়ের কথা বিবেচনা করে রাত আটটা পর্যন্ত তাদের প্রবেশের সময় নির্ধারণ করে দেয়া আছে। রাতে কোন অতিথি প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

শনিবার (১০ অক্টোবর) এখানে অবস্থানরত একজন ছাত্রী জানালেন, ঢাকার তার কোন আত্মী-স্বজন নেই। কুষ্টিয়া থেকে এসেছে চাকুরির ইন্টারভিউ দিতে। এখানকার পরিবেশ তার খুবই পছন্দ হয়েছে।

মিরপুরের পল্লবীতে অবস্থিত বাংলাদেশে প্রথম ক্যাপসুল হোটেল বাসন্তী নিবাস। প্রায় ১৭০০ বর্গফুটে আয়তন বিশিষ্ট এ নিবাসটিতে রয়েছে মোট ৩৮টি ক্যাসুল বেড। চারটি করে ব্যাংক বেড রয়েছে একই ফ্রেমে। যাতে থাকছে বিছানা, লাইট ও মোবাইল চার্জার পয়েন্ট। বিছানার নিচে আলাদা লকার; যাতে বড় ব্যাগপত্র রাখা যায়। আর কক্ষের দেয়ালগুলি রাঙানো হয়েছে বাসন্তী রঙে।

উদ্যোক্তারা জানান, ঘটনাটা বছর দেড়েক আগের। চট্টগ্রাম ফিরতে বাসের টিকিট পাননি বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের একজন মহিলা স্বেচ্ছাসেবী। নিরুপায় হয়ে সিদ্ধান্ত নেন স্বামীসহ হোটেলে রাত যাপনের। আর্থিক সঙ্কটে থাকা দম্পত্তি রাত্রি যাপনের জন্য সস্তায় একটি হোটেলে কক্ষ ভাড়া নেন। মাঝরাতে সেখানে হোটেল ম্যানেজার ও তার সঙ্গীদের হাতে তাদেরকে নানাভাবে হেনস্তা হতে হয়। পরদিন হোটেল ছাড়ার পর সেই ভয়াবহতার চিত্র মনে করে অসুস্থ হয়ে পড়েন এ নারী। সেই থেকেই বিদ্যা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা কিশোর কুমার দাশ নারীদের নিরাপত্তায় হোটেল নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। এরপর বছখানেকের চেষ্টায় গত ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে রাজধানীর মিরপুরের পল্লবীতে চালু করা হয় ১ টাকার ‘বাসন্তী নিবাস’।

/এএ

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com