২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৪ঠা সফর, ১৪৪২ হিজরী

স্মরণীয় হয়ে থাকবে মোহাম্মদ নাসিমের বর্ণাঢ্য জীবন

ফিরে দেখা । মাসউদুল কাদির

স্মরণীয় হয়ে থাকবে মোহাম্মদ নাসিমের বর্ণাঢ্য জীবন

বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির সোপানে প্রবীণ রাজনীতিক ও আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম ও তাঁর বাবা শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর কথা চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। দেশের একটি আলোচিত ও সংগ্রামী পরিবারে জন্মেছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। নিজেও সাক্ষর রেখে গেছেন বিপুল সম্ভাবনাময় কাজের মাধ্যমে। নিজের রাজনৈতিক জীবন এমনভাবে রাঙিয়েছেন সব মানুষের যেনো তিনি বন্ধু হয়ে গিয়েছিলেন।

যে কারণে জীবনের শেষ দিক এসে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্যের দায়িত্বের পাশাপাশি চৌদ্দ দলের তিনি আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন। মানুষের ভালোবাসার এই গুণী মানুষটিকে দেশ হারালো গতকাল শনিবার। আর রাজধানীর প্রেসক্লাব এবং জাতীয় সংসদ ভবনের নিজের আসনের পক্ষে তিনি কথা বলবেন না। চির বিদায় নিয়েছেন জনতার বন্ধু সিরাজগঞ্জের মাটি ও মানুষের প্রিয় নেতা মোহাম্মদ নাসিম। মোহাম্মদ নাসিম নিজের একান্ত বিশ্বস্ত সহচর ছিলেন আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পিতার (জাতীয় চারনেতার অন্যতম ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী) মতোই মোহাম্মদ নাসিম আমৃত্যু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে গেছেন। সব ধরনের ঘাত-প্রতিঘাত উপেক্ষা করে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা প্রতিষ্ঠায় তিনি অনন্য অবদান রেখেছেন। মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন দেশপ্রেমিক ও জনমানুষের নেতাকে হারালো। আমি হারালাম একজন বিশ্বস্ত সহযোদ্ধাকে। প্রধানমন্ত্রী তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী মোহাম্মদ নাসিমের জন্ম ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। তার বাবা ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বরের জেল হত্যাকা-ের শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন। জাতীয় চার নেতার অন্যতম মনসুর আলী ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্কালে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে গঠিত বাংলাদেশ সরকারে অর্থ, শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এবং স্বাধীনতা পরবর্তী বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রীসভায় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে মোহাম্মদ নাসিমের নাম চির ভাস্বর হয়ে থাকবে। আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে মোহাম্মদ নাসিম ছিলেন নির্ভীক যোদ্ধা।

ছাত্রজীবন থেকে গণমানুষের জন্য রাজনীতি করা মোহাম্মদ নাসিম সত্যিকার অর্থেই স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তাঁর বর্ণাঢ্য জীবন থেকে আগামী প্রজন্ম পেতে পারে অনেক কিছু। সৎ ও আদর্শ মানুষ গঠনের চেষ্টা ও দেশের উন্নয়নের জন্য লড়াইয়ের অদম্য যে মানসিকতা ছিলো মোহাম্মদ নাসিমের তা নতুন প্রজন্মকে অনুসরণ করা উচিত বলেই আমরা মনে করি। মোহাম্মদ নাসিমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং তাকে জানাই আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Design & Developed BY ThemesBazar.Com