অবনতিশীল দেশের তালিকায় এখন বাংলাদেশ

অবনতিশীল দেশের তালিকায় এখন বাংলাদেশ

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম: পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে বিশ্বে এমন দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম অন্তর্ভুক্ত করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপ (আইসিজি)। ব্রাসেলসভিত্তিক ওই নীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠান গত অক্টোবর মাসের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে গতকাল শুক্রবার নতুন তালিকা প্রকাশ করেছে।

এই তালিকায় গুয়াতেমালা, মিয়ানমার, তুর্কিয়ে, মোজাম্বিক, কঙ্গো, রুয়ান্ডা, সুদান, ইসরায়েল/ফিলিস্তিন, লেবানন, সিরিয়া ও ইয়েমেনের নাম রয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে চলমান যুদ্ধ ও সংঘাতের পাশাপাশি সম্ভাব্য সংকটগুলো নিয়ে পূর্বাভাস ও বিশ্লেষণ প্রকাশ করে।

তাদের সেই পূর্বাভাস, প্রতিবেদন ও বিশ্লেষণগুলো বিশ্বে দ্বন্দ্ব-সংঘাত নিরসনে নির্ভরযোগ্য বার্তা হিসেবে বিভিন্ন দেশ ও প্রতিষ্ঠান বিবেচনা করে।
বাংলাদেশ প্রসঙ্গে আইসিজির হালনাগাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘রাজধানী ঢাকায় বিএনপির বড় সমাবেশ ঘিরে সংঘর্ষে পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন নিহত হয়েছেন। আগামী জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় নির্বাচন সামনে রেখে সরকার দমন-পীড়ন বাড়িয়েছে।’

আইসিজি বলেছে, সরকারের ধরপাকড় ও বাধা উপেক্ষা করে বিএনপি বড় সমাবেশ করেছিল।

বিএনপির উদ্দেশ্য ছিল আগামী নির্বাচনের আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির পক্ষে নতুন মাত্রা যোগ করা। মূলত বিএনপি সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয়। এর ফলে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে সমাবেশ ছত্রভঙ্গ করে। এরপর শহরের বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষ হয়।

এতে একজন পুলিশ সদস্য ও একজন বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হন। আহত হয় কয়েক শ।
আইসিজি বলেছে, বড় অন্য শহরগুলোতে সহিংসতায় কয়েকজন বেসামরিক ব্যক্তি নিহত ও অনেক আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ সদস্যকে হত্যার অভিযোগে বিএনপির শীর্ষ ও জ্যেষ্ঠ নেতাসহ প্রায় ১০০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিএনপি দাবি করেছে, গত ২১ থেকে ২৯ অক্টোবরের মধ্যে তাদের দলের প্রায় তিন হাজার সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিএনপি ২৯ অক্টোবর হরতাল, ৩১ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর অবরোধ পালন করেছে।
আইসিজি বাংলাদেশের অর্থনীতি চাপে থাকার বিষয়টি তুলে ধরেছে। গত ১৮ অক্টোবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে আইসিজি বলেছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিট বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৭ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে। এটি প্রায় তিন মাসের আমদানি ব্যয়ের সমান। রিজার্ভ প্রতি মাসে প্রায় এক বিলিয়ন ডলার করে কমছে। বাংলাদেশ সরকার গত ১৯ অক্টোবর ৬৮১ মিলিয়ন ডলার ঋণের অর্থ ছাড়ের বিষয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গে কর্মকর্তা পর্যায়ে সমঝোতায় পৌঁছেছে। আইএমএফ বোর্ডের অনুমোদনসাপেক্ষে বাংলাদেশ ওই অর্থ পাবে।

এদিকে রোহিঙ্গা শিবিরে গত অক্টোবরেও সহিংসতার তথ্য দিয়েছে আইসিজি। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) গত ২ অক্টোবর আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) প্রধানের ‘আর্থিক সমন্বয়কারী এবং ব্যক্তিগত সহকারী’কে আটক করেছে। গত ৪ অক্টোবর সশস্ত্র গ্রুপের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক আরসা সদস্য নিহত হয়। প্রতিদ্বন্দ্বী রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশনের সন্দেহভাজন সদস্যরা গত ৯ অক্টোবর আরসার দুই সদস্যকে হত্যা করে। রোহিঙ্গা শিবিরে আসন্ন বিপর্যয় এড়াতে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার তহবিলের জন্য অনুরোধ করেছেন।

এর আগে গত মাসে আইসিজি এক পূর্বাভাসে বাংলাদেশে সংঘাতময় নির্বাচনের আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল। আইসিজি বলেছে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী বিএনপির মধ্যে উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে নির্বাচন বিতর্কিত বা নির্বাচনে কারচুপি হলে তা থেকে বড় ধরনের আন্দোলন দানা বাঁধতে পারে। নির্বাচন ভালো না হলে যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য পশ্চিমা দেশগুলো আওয়ামী লীগ সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তা বা প্রতিনিধিদের ওপর ভিসা বিধি-নিষেধের মতো আরো নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে। তবে এর ফলে ভারত ও চীনের ওপর বাংলাদেশ সরকারের নির্ভরতা আরো বাড়তে পারে বলেও আইসিজি উল্লেখ করেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *