৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

আদালতে মুসলিম বিচারকের হিজাব পরিধান

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : আদালতে নতুন ডিজাইন করা হিজাব পরিধান করে সবাইকে চমকে দিয়েছেন দুজন ব্যারিস্টার। লন্ডনের ডায়টি স্ট্রিটের হিউম্যান রাইটস চেম্বারসের দুজন জুনিয়র ব্যারিস্টার আদালতে নতুন ডিজাইনের মানসম্মত হিজাব চালু করেছেন। মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সাদা ও কালো রঙের নতুন ডিজাইন করা হিজাব চালু হয়।

মানবাধিকার চেম্বার ডুটি স্ট্রিট থেকে দুজন জুনিয়র ব্যারিস্টার একসাথে আদালতের জন্য হিজাব ডিজাইন করেছেন ও নিজেরা তা পরেছেন। নিয়ন্ত্রণ ও অপরাধ বিষয়ক আইনজীবী কারলিয়া লিকারগো ও ফোজদারি আইনজীবী মারয়াম মির যৌথভাবে এবার আদালতের মুসলিম নারীদের হিজাব পরিধানের উদ্যোগ নেন।

এর আগে মুসলিম নারী বিচারকরা আদালতে ‘বিধিসম্মত’ হিজাব পরিধানে নানা ধরনের বাধাবিপত্তির সম্মুখীন হতো। হিজাব পরিধানের অভ্যস্ত বিচারকরা প্রচলিত হিজাব আদালতের ভেতর পরতে পারেন না। আর হিজাবের ধরন কেমন হবে এ ব্যাপারেও কোনো নির্দেশনা নেই।

অবশেষে আদালতে নারী বিচারকদের পোশাক আইভি অ্যান্ড নরম্যান্টন প্রতিষ্ঠানে প্রস্তুত করা হয়। ২০২০ সালে প্রতিষ্ঠানটি ব্যারিস্টার লিকারগো আদালতের একমাত্র নারীদের পোশাক সেলাই প্রতিষ্ঠান হিসেবে চালু করেন।

২০০৬ সালে যুক্তরাজ্যের লিডস বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়াকালে মারয়াম মির ও কারলিয়া লিগারগোর মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়। পরবর্তীতে মারয়াম হিজাব নিয়ে আদালতে সমস্যায় পড়ার কথা কারলিয়ার কাছে তুলে ধরেন। কারণ আদালতে পরার জন্য উপযুক্ত কোনো হিজাব তিনি খুঁজে পাচ্ছিলেন না।

লিগ্যাল চেক-কে এক সাক্ষাতকারে মারয়াম জানান, আমার হিজাব পরিধান অনেক বেশি কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। কারণ কোর্টের হিজাবগুলো আরামদায়ক ছিল না। ফলে তা পরে থাকা স্বস্তিদায়ক ছিল না।

কারলিয়া বলেন, ‘আদালতে হিজাব নিয়ে মারয়ামের সমস্যার কথা শুনে আমার কাছে তা সামান্য বিষয় বলে মনে হয়। কারণ সে একজন বুদ্ধিমতী ও কর্মতৎপর বিচারক। এখন হয়ত আকার-আকৃতি, রঙ ও নকশায় আদালতের উপযুক্ত কোনো হিজাব খুঁজে পেতে ব্যর্থ হবে।’

কারলিয়া আরো বলেন, ‘তাই আমি নতুন ডিজাইনের হিজাব পরিধানের সিদ্ধান্ত নেই। যা হিজাবি বিচারকদের জন্য পরার উপযুক্ত হবে। পাশাপাশি পোশাকের সাজসজ্জার সঙ্গেও পুরোপুরি মাননসই হবে। অবশেষে বাঁশের সিল্ক দিয়ে নতুন হিজাব তৈরি করা হয়। শীতকালে তা দেহকে উষ্ণ রাখবে এবং গ্রীষ্মকালে ঠাণ্ডা রাখবে।’

কারলিয়া জানান, ‘যুক্তরাজ্যের আদালতে খুব বেশি হিজাবি বিচারক নেই। তবে ক্রাউন কোর্টে সাদা রঙের হিজাব দেখেছি এবং ম্যাজিস্ট্রেটদের মধ্যে কালো রঙের হিজাব পরিধান করতে দেখেছি। তাই আমি উভয় রং একসঙ্গে করে একটি হিজাব তৈরির প্রস্তুতি নেই।’

আরও পড়ুন: করোনা টিকা না নিয়েও রমজানে ওমরাহ পালনের সুযোগ

হিজাবি বিচারক হিসেবে নতুন ডিজাইনের হিজাব পরে নিজের অনুভূতিক জানান ব্যারিস্টার মারয়াম মির। তিনি বলেন, পুরো বিশ্বের কাছে আমার বার্তা হলো, ‌‘বর্তমান সময়ে পেশাদার পৃথিবীকে সব শ্রেণীর মানুষকে নিয়ে উদযাপন করতে হবে। সাফল্যের জন্য আপনাকে আপোষ করতে হবে না। আপনাকে দেখতে বা শুনতে কেমন লাগে তা নির্ধারণে অন্যের শরণাপন্ন হবেন না। নিজের কাছে সত্যবাদী হোন এবং নিজের পরিচয়ে আত্মবিশ্বাসী হোন। সাফল্য আপনার কাছে এসে যাবে।’

২০২০ সালে মে মাসে যুক্তরাজ্যের প্রথম ডেপুটি ডিস্ট্রিক জজ হিসেবে রাফিয়া আরশাদ দায়িত্ব পালন শুরু করেন।

সূত্র : স্কাই নিউজ

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com