১৭ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৩ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

আল্লাহ আল্লাহ ডাকার ক্ষেত্রে কোনো শর্ত নেই : আল্লামা মাসঊদ

আল্লাহ আল্লাহ ডাকার ক্ষেত্রে কোনো শর্ত নেই : আল্লামা মাসঊদ

পাথেয় রিপোর্ট (তাড়াইল থেকে) : মহান আল্লাহ তাআলাকে ডাকার মধ্যে কোনো ধরনের শর্ত জুড়ে দেননি অভিমত ব্যক্ত করে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান ও ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার গ্র্যান্ড ইমাম শাইখুল হাদিস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, বান্দার কলবে যেনো আল্লাহ তাআলা ছাড়া আর কোনো কিছুর স্মরণ যেনো না থাকে। যতক্ষণ বান্দা আল্লাহকে ডাকবে ততক্ষণই বান্দা সবল থাকবে।

গোনাহ হয়ে গেলেও আল্লাহকে ভুলে না যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, একজন ঘুষখোর, জ্বিনাকার, একজন পাপী যেনো কোনোভাবেই আল্লাহকে ভুলে না যায়। আল্লাহকে ছাড়া  অন্য কাউকে কলবে স্থান দিলে আল্লাহতাআলা খুবই গোস্বা হন। পাপ হয়ে গেলেও সঙ্গে সঙ্গে বান্দা যখন আল্লাহকে স্মরণে রাখে তখন আল্লাহর কাছে বান্দা ফিরে আসতে পারে। এ কারণেই হৃদয়ে আল্লাহর জিকির জারি রাখতে হবে।

আল্লাহকে স্মরণ রাখলে বান্দা সব গোনাহ থেকে বাঁচার রাস্তা বাকি থেকে যায় বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

বৃহস্পতিবার বাদ ঈশা কিশোরগঞ্জের তাড়াইল ইসলাহী ইজতেমায় দ্বীনী তালিমের হালকায় আল্লামা মাসঊদ এসব কথা বলেন।

আল্লাহর নামের বাইরে কোনো কাজ যেনো না হয় এর প্রতি সযত্ন থাকার আহ্বান জানিয়ে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ আগত মুসল্লীদের উদ্দেশে বলেন, ভাই, আমরা তো আল্লাহর নাম নেওয়ার জন্যই এখানে এসেছি। আল্লাহর নামের আওয়াজকে ভারী করার জন্যই আমরা কাজ করবো।

প্রসঙ্গত, ৭ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে তাড়াইলের ইসলাহী ইজতেমা। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার বেলঙ্কা গ্রামে ৪ দিন ব্যাপী ইসলাহি ইজতেমা শুরু হয়েছে। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে কিশোরগঞ্জবাসীর পরম আরাধ্যের আল্লাহপ্রেমীদের এ মিলনমেলা।

মানুষকে এক আল্লাহর পথে আসার আহবান ও রাসূলের মতাদর্শ অনুযায়ী জীবনকে পরিচালনা করা এবং মানুষের নৈতিক উন্নয়নের দাওয়াত নিয়ে বিগত বছরগুলোর ন্যায় এবারও আওলাদে রাসূল হজরত ফিদায়ে মিল্লাত আসাদ মাদানি (রহ.)-এর খলিফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের আহ্বানেই কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে শুরু হয়েছে এ ইসলাহী ইজতেমা।

ইজতেমায় দেশ বিদেশের উলামা-মাশায়েখরা দিনভর কুরআন-হাদীসের আলোকে বয়ান ও মাঠের আমলের মাধ্যমে আগত ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীদের মাঝে দ্বীনের দাওয়াত প্রচার করেন। তিনদিনব্যাপী ইজতেমার বিভিন্ন পর্বে ইসলাহী বয়ান, আম বয়ান, বিশেষ বয়ান, কোরআন তালিম ও তেলাওয়াত, জিকির ও দরূদের আমলসহ ধারাবাহিক আত্মোন্নয়নমূলক বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন আগত মুসল্লিরা।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা : মাসউদুল কাদির

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com