২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৬ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

এবার ভারতে জিকা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ভারতের কেরালায় ২৪ বছর বয়সী এক নারীর শরীরে মরণঘাতী জিকা ভাইরাসের সন্ধান মিলেছে। গত ৭ জুন ওই নারী সন্তান জন্ম দেন। জিকা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেওয়ায় ২৮ জুন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার পর উদ্বেগ বেড়েছে ভারতে। জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এরই মধ্যে আরও ১৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষার জন্য যাদের নমুনা পাঠানো হয়েছে পুনের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ভাইরোলজিতে।

জিকা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ায় এডিস মশার মাধ্যমে। অন্তঃসত্ত্বারা আক্রান্ত হলে ভ্রুণের ক্ষতি করতে পারে এ ভাইরাস। গর্ভের শিশু বিকলাঙ্গ হয়ে জন্ম নিতে পারে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, জিকা ভাইরাস শরীরে প্রবেশের পর নানারকম উপসর্গ দেখা যেতে পারে। গায়ে লাল লাল বিন্দু দেখা যেতে পারে, পেশীতে যন্ত্রণা, কনজাঙ্কটিভাইটিস, মাথা ব্যথা, বমি ভাব হতে পারে। জ্বরও আসতে পারে। এই ধরনের উপসর্গ দেখা দিলেই দ্রুত সরকারি হাসপাতালে যোগাযোগ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জিকা ভাইরাসের চিকিৎসায় এখনো পর্যন্ত কোনো ওষুধ আবিষ্কার হয়নি। নেই কোনো টিকাও। ১৯৪৭ সালে উগান্ডার জিকা জঙ্গলে প্রথম এই ভাইরাস পাওয়া গেছিল। কিন্তু তারপর এত দিন কেটে গেলেও কোনো ওষুধ বা টিকা আবিষ্কার হয়নি।

এর আগে মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগে নাজুক অবস্থা ছিল কেরালা ও পশ্চিমবঙ্গে। ডেঙ্গুর প্রকোপে কেরালা, পশ্চিমবঙ্গ এবং দিল্লিতে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তবে করোনাকালে ডেঙ্গুর প্রকোপ আগের চেয়ে খানিকটা কমেছে।

এদিকে করোনা মহামারির সাথে প্রতিনিয়ত লড়াই করতে হচ্ছে ভারতীয়দের। দেশটিতে করোনাভাইরাসে দৈনিক সংক্রমণ কমলেও বেড়েছে মৃত্যুর পরিমাণ। শুক্রবার (৯ জুলাই) সকালে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৩৯৩ জন। একই সময়ে মারা গেছেন ৯১১ জন।

এর আগের দিন দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছিল ৪৫ হাজার ৮৯২। একই সময়ে মারা গিয়েছিল ৮১৭ জন। অর্থাৎ দৈনিক সংক্রমণ প্রায় ৫ শতাংশ কমলেও মৃত্যু বেড়েছে প্রায় ১২ শতাংশ। ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে তিন কোটি ৭ লাখ ৫২ হাজার ৯৫০ জনে। শেষ ২৪ ঘণ্টার ৯১১ জনসহ মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে চার লাখ পাঁচ হাজার ৯৩৯ জনে।

সূত্র: ডয়েচে ভেলে, আল জাজিরা

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com