২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২৭শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

করোনার বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুরু, লক্ষ্য দেড় কোটি মানুষ

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : দেশব্যাপী করোনা টিকার তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুরু হচ্ছে আজ শনিবার। ১০ জুন পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে। এ সময় করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার চার মাস পূর্ণ হয়েছে এমন টিকাগ্রহীতাদের বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে।

এ সাত দিনে দেড় কোটি মানুষকে বুস্টার ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

সকাল ৯টা থেকে টিকা দেওয়া শুরু হবে এবং কেন্দ্রে যতক্ষণ টিকাগ্রহীতা থাকবেন, ততক্ষণ পর্যন্ত টিকা দেওয়া হবে। দেশের যেকোনো টিকাদান কেন্দ্রে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার কাগজ নিয়ে গেলেই বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে। অগ্রাধিকার পাবেন বয়স্ক, নারী, অন্তঃসত্ত্বা ও প্রতিবন্ধীরা। দেওয়া হবে ফাইজার, মডার্না ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা।

এ ব্যাপারে কভিড-১৯ টিকাবিষয়ক বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাতৃ, নবজাতক ও শিশু স্বাস্থ্য কর্মসূচির পরিচালক ডা. মো. শামসুল হক বলেন, ‘কর্মসূচির সব পরিকল্পনা ঠিক আছে। কোনো পরিবর্তন হয়নি। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার চার মাস পূর্ণ হয়েছে, এমন লোকজন যাতে সহজেই বুস্টার ডোজ নিতে পারেন, সেজন্য সবকিছু সহজ করা হয়েছে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, সাত দিনের এ কর্মসূচিতে ইউনিয়ন পর্যায়ে দুদিন বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে। ইউনিয়নে টিকা দেওয়া হবে কমিউনিটি ক্লিনিকে এবং সিটি করপোরেশন এলাকায় সরকারি হাসপাতাল ও আগের নির্ধারিত কেন্দ্রগুলোতে। অন্যদিকে যেখানে ফাইজার টিকা দেওয়ার ব্যবস্থাপনা আছে এমন উপজেলা ও জেলাগুলোতে বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে সাত দিন। উপজেলার হেলথ কমপ্লেক্স ও জেলার সরকারি হাসপাতালে গেলেই টিকা পাবে মানুষ।

অধিদপ্তরের পরিকল্পনা অনুযায়ী, সারা দেশে ১৬ হাজার ১৮১ টিকা কেন্দ্রে বুস্টার ডোজ টিকা দেওয়া হবে। এর মধ্যে ৬২৩টি স্থায়ী কেন্দ্র ও ১৫ হাজার ৫৫৮টি অস্থায়ী কেন্দ্র। অস্থায়ী কেন্দ্রে টিকা দেওয়ার তারিখ স্থানীয় পর্যায়ে প্রচার-প্রচারণা ও মাইকিং করে জানিয়ে দেওয়া হবে। ৪৫ হাজার ৫৩৫ জন টিকাদানকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবী টিকাদান কাজে নিয়োজিত থাকবেন।

উপজেলা ও পৌরসভা পর্যায়ে বুস্টার ডোজ হিসেবে মডার্না বা অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা দেওয়া হবে। সিটি করপোরেশনের আওতাধীন যেসব টিকা কেন্দ্রে ফাইজার টিকা দেওয়া হয়, সেসব কেন্দ্রে বুস্টার হিসেবে ফাইজার ও যেসব কেন্দ্রে ফাইজার দেওয়া হয় না, সেসব কেন্দ্রে মডার্না বা অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা দেওয়া হবে।

ঢাকায় ৪১ কেন্দ্র : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৭টি কেন্দ্রে ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৪টি কেন্দ্রে করোনা টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কেন্দ্রগুলো হল- শ্যামলীর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট টিবি হাসপাতাল, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট, মিরপুরে ঢাকা ডেন্টাল কলেজ, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ), ঢাকা শিশু হাসপাতাল, মহাখালীর কভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল, ঢাকা কুর্মিটোলা ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল, উত্তরায় বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতাল, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতাল, জাতীয় বাতজ¦র ও হৃদরোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শেখ রাসেল গাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, ঢাকা সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল, জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, মোহাম্মদপুর ফারটিলিটি সেন্টার, জাতীয় নাক কান গলা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ সংসদ সচিবালয় ক্লিনিক, জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, জাতীয় কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজি ইনস্টিটিউট, মেডিকেল স্কোয়াড্রন (বিএএফ শাহীন), বিএনএস হাজী মহসিন, মিরপুরের লালকুঠি হাসপাতাল, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান, মেডিকেল স্কোয়াড্রন (বিএএফ বঙ্গবন্ধু), র‌্যাব ফোর্সেস হাসপাতাল।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কেন্দ্রগুলো হলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, রাজারবাগে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ফুলবাড়িয়ায় সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, মাতুয়াইলে শিশু মাতৃস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, মুগদা ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতাল, আজিমপুর মা ও শিশু হাসপাতাল, ঢাকা মহানগর জেনারেল হাসপাতাল, কামরাঙ্গীরচর ৩১ শয্যা হাসপাতাল, বাংলাদেশ সচিবালয় ক্লিনিক, লালবাগে ঢাকা মহানগর শিশু হাসপাতাল, পিলখানা বিজিবি হাসপাতাল।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com