২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২০শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

কাবা ও মসজিদে নববীতে জুমা হবে

কাবা ও মসজিদে নববীতে জুমা হবে

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : করোনার কারণে সৌদির বিভিন্ন মসজিদে জুমার নামাজ নিষিদ্ধ হলেও অবারিত থাকছে পবিত্র কাবা ও মদিনায় জুমার নামাজ। মহামারি করোনার দ্বিতীয় ধাপের প্রাদুর্ভাবের এ সময়েও পবিত্র নগরী মক্কার মসজিদে হারাম তথা কাবা শরিফ ও মদিনার মসজিদে নববিতে জুমা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা জানা গেছে। ইতিমধ্যে সৌদি আরবের বিভিন্ন অঞ্চলে ১০টি মসজিদে নামাজ পড়া স্থগিত করা হয়েছে। এর মধ্যেও হারামাইন কর্তৃপক্ষ জুমআর ও খুতবার জন্য দুই জন ইমাম নির্ধারণ করেছেন।

সৌদি আরবের মসজিদগুলোতে ইতিমধ্যে রাষ্ট্র পরিচালিত সব দাওয়াতি কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আরও কিছু অঞ্চলের মসজিদও স্থগিতের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছে দেশটির সংশ্লিষ্ট সূত্র।

করোনার দ্বিতীয় ধাপের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে পবিত্র দুই মসজিদে আজও অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র জুমআ। খুতবাহ শোনা থেকে নামাজ শেষ হওয়া পর্যন্ত প্রতিটি পর্যায়ে রয়েছে সুনির্দিষ্ট দিকনিদের্শনা ও থাকবে সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সতর্কতা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

মুসল্লিরা নিজ নিজ বিছানা নিয়ে আসবে, ফেসমাস্ক ব্যবহার করবে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে মসজিদে অবস্থান করবে। যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মুসল্লিরা খুতবাহ শুনবেন এবং নামাজ আদায় করবেন।

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ মোতাবেক ৩০ জুমাদা আল আখিরায় কাবা শরিফ ও মদিনায় খুতবাহ ও জুমআর নামাজ পড়ানোর জন্য হারামাইন কর্তৃপক্ষ দুইজন প্রসিদ্ধ ইমাম নির্বাচিত করেছেন। জুমআর খুতবাহ ও নামাজের ইমাম হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন-
> কাবা শরিফ
প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার প্রসিদ্ধ ইমাম ও খতিব শায়খ ড. বন্দর বিন আব্দুল আজিজ আল বালিলাহ।
> মসজিদে নববি
ইসলামিক স্কলার, প্রবীণ ইমাম ও খতিব শায়খ ড. আহমাদ হামেদ।

গত ২ সপ্তাহ আগে মুসল্লিদের নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ পড়া ও স্বাস্থ্যবিধি মানার সুবিধার্থে মসজিদে নববির ছাদ খুলে দেয়া হয়েছে। সেখানে প্রায় ১০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবে।

উল্লেখ্য, মসজিদে নামাজের সময় এবং তা খোলা ও বন্ধ করার ক্ষেত্রেও নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে দেশটির ইসলামিক দাওয়াহ ও দিকনির্দেশনা মন্ত্রণালয়। নতুন নির্দেশনায় জানানো হয়েছে-
– মসজিদে আজান দেয়ার ১০ মিনিটের মধ্যে জামাআত শুরু করা।

– আজান ও জামাআতের মধ্যে ১০ মিনিটের বেশি বিরতি না দেয়া। তবে ফজরের নামাজের জন্য আজান ও জামাআতের মধ্যবর্তী সময়ের বিরতি হবে ২০ মিনিট।

– সরকারি নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে- মসজিদসমূহ আজানের পর খোলা হবে এবং নামাজের ১০ মিনিট পর বন্ধ করে দেয়া হয়।

জুমআর ক্ষেত্রে-
– জুমআর নামাজের ক্ষেত্রে জামে মসজিদগুলো আজানের ৩০ মিনিট আগে খোলা হবে। আর নামাজের ১০ মিনিট পর বন্ধ করে দেয়া হবে।

– আগের মতো জুমআর খুতবাহ ও জামাআত ১৫ মিনিটের বেশি হতে পারবে না। এ মর্মে সব খতিবকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com