৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৯শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

কোনও মোবাইল ফোন সেট বন্ধ হবে না : মোস্তাফা জব্বার

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ‘দেশের সব মোবাইলের বায়োমেট্রিক (আঙুলের ছাপ) নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে। এবার হলো মোবাইল ফোন সেটের নিবন্ধন। আমরা চেয়েছি মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী যেন নিরাপদে তার হ্যান্ডসেট, সিমটি ব্যবহার করতে পারেন।’

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) ভার্চুয়াল ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্টারের (এনইআইআর) পরীক্ষামূলক কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এসব এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যারা অবৈধ মোবাইল ফোন সেট তৈরি, আমদানি ও বিক্রির সঙ্গে জড়িত তাদের কার্যক্রম বন্ধের জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

এনইআইআর সিস্টেম চালু দেশের জন্য একটি মাইলফলক উল্লেখ করে বলেন, যারা ব্যক্তি, সমাজ, দেশকে নিরাপদ রাখার চেষ্টা করেন তাদের জন্য এটি একটি হাতিয়ার। তিনি বলেন, সাম্প্রতিককালে দেশে অপরাধের প্রবণতা দেখা যাচ্ছে তারমধ্যে অনলাইনও আছে। এটার ক্ষেত্র সীমাহীন। ফলে এই বিষয়টিতে আমাদের সতর্ক ও সচেতন থাকতে হবে।

বিটিআরসি ও সংশ্লিষ্টদের এই বিষয়টির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে মন্ত্রী বলেন, ৩০ জুন পর্যন্ত দেশে যেসব মোবাইল সেট চালু ছিল, সেগুলোর নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে তা নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজন হলে প্রতিটি সিম ধরে ধরে নিবন্ধন করতে হবে। কোনওভাবেই যেন কোনও মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী হয়রানির শিকার না হন সে বিষয়ে সবাইকে মন্ত্রী সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার আহ্বান জানান।

কোনও মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী যেন তাকে (মন্ত্রী) মেসেজ দিয়ে, ফোন করে মোবাইল সেট নিবন্ধন নিয়ে হয়রানির কথা না জানান সে বিষয়েও সবাই সতর্ক থেকে কাজ করার আহ্বান জানান।

এনইআইআর সিস্টেমে গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও সিম নম্বরের (এমএসআইএসডিএন) সঙ্গে ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের আইএমইআই সম্পৃক্ত করে নিবন্ধন করা হবে। এটির উদ্যোগ নিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। কারিগরি বাস্তবায়ন করছে সিনেসিস আইটি।

অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন বলেন, এটি চালু হলে সরকারের রাজস্ব বাড়বে। লেনদেনে স্বচ্ছতা আসবে। দেশের সাইবার অপরাধ কমে যাবে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে শৃঙ্খলাও ফিরে আসবে।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্পেক্ট্রাম বিভাগের কমিশনার এ কে এম শাহীদুজ্জামান। এনইআইআর সিস্টেম নিয়ে বিস্তারিত উপস্থাপন করেন একই বিভাগের মহাপরিচালক ব্রি. জেনারেল মো. শহিদুল আলম। তিনি বলেন, কোনও সেট বন্ধ হবে না। ১ জুলাই থেকে সেট চালু করলে তা নেটওয়ার্কে সচল থাকবে। গ্রাহককে মেসেজ দিয়ে জানানো হবে সেটটি বৈধ না অবৈধ। তারপর সেটটি বৈধ করার প্রক্রিয়া শুরু হবে। অবৈধ হলেও সেট তিন মাস চালু থাকবে। তারপর সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

তিনি জানান, ৩০ জুনের মধ্যে দেশের সব মোবাইলের ডাটা মাইগ্রেশন সম্পন্ন হয়েছে। ফলে ৩০ জুনের মধ্যে নেটওয়ার্কে চালু থাকা সব মোবাইল ফোনের নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত ছিলেন বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, লিগ্যাল ও লাইসেন্স বিভাগের কমিশনার আবু সৈয়দ দিলজার হোসেন প্রমুখ।

টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাবউদ্দিন বলেন, টেলিটক এখনও এই প্রক্রিয়ায় সংযুক্ত হতে পারেনি। সেপ্টেম্বর মাসে টেলিটক এই প্রক্রিয়ায় সংযুক্ত হবে।

মোবাইল কেনার আগে যা করতে হবে

১ জুলাই থেকে যেকোনও মাধ্যম থেকে (বিক্রয় কেন্দ্র, অনলাইন বিক্রয় কেন্দ্র, ই-কমার্স সাইট ইত্যাদি) মোবাইল ফোন সেট কেনার আগে অবশ্যই হ্যান্ডসেটটির বৈধতা কয়েকটি পদক্ষেপ অনুসরণ করে যাচাই করতে হবে। টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি জানিয়েছে, হ্যান্ডসেট কেনার রশিদ সংরক্ষণ করতে হবে। মোবাইল ফোনটি বৈধ হলে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে এনইআইআর সিস্টেমে নিবন্ধিত হয়ে যাবে।

ধাপ-১: মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে কেওয়াইডি লিখে স্পেস দিয়ে ১৫ ডিজিটের আএমইআই নম্বরটি লিখতে হবে।

ধাপ-২: আএমইআই নম্বরটি লেখার পরে ১৬০০২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

ধাপ-৩: ফিরতি মেসেজের মাধ্যমে মোবাইল হ্যান্ডসেটের বৈধতা সম্পর্কে জানা যাবে।

বিদেশ থেকে কেনা বা উপহার পাওয়া ফোন নিবন্ধন করা যাবে যেভাবে

বিদেশ থেকে ব্যক্তি পর্যায়ে বৈধভাবে কেনা বা উপহার পাওয়া মোবাইল ফোন সেট দেশে এনে চালু করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নেটওয়ার্কে সচল হবে। তবে ফোন সচল হওয়ার ১০ দিনের মধ্যে নিবন্ধন সম্পন্ন করলে সেটটি বৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিবন্ধন সম্পন্ন করা না হলে সেটি বৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে না। এ বিষয়ে গ্রাহককে এসএমএস’র মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে এবং পরীক্ষাকালের জন্য নেটওয়ার্কে সংযুক্ত রাখা হবে। পরীক্ষামূলক সময় (৩ মাস) শেষ হলে হলে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোবাইল ফোন সেট নিবন্ধন করা যাবে এভাবে

ধাপ-১: www.neir.btrc.gov.bd লিংকে গিয়ে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন করতে হবে।

ধাপ-২: পোর্টালের স্পেশাল রেজিস্ট্রেশন সেকশনে গিয়ে মোবাইল সেটের আইএমইআই নম্বরটি দিতে হবে।

ধাপ-৩: প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট’র ছবি বা স্ক্যান কপি (যেমন: ভিসা, ইমিগ্রেশন তথ্যাদি, কেনার রশিদ ইত্যাদি) আপলোড করতে হবে এবং সাবমিট বাটনটি প্রেস করতে হবে।

ধাপ-৪: সেটটি বৈধ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হবে। মোবাইল ফোনসেটটি বৈধ না হলে এসএমএস’র মাধ্যমে গ্রাহককে জানিয়ে পরীক্ষাকালে নেটওয়ার্কে সংযুক্ত রাখা হবে। পরীক্ষামূলক সময় পার হলে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মোবাইল অপারেটরের কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে গিয়েও এই সেবা গ্রহণ করা যাবে।

প্রসঙ্গত, বিদ্যমান ব্যাগেজ রুলস অনুযায়ী একজন ব্যক্তি বিদেশ থেকে শুল্কবিহীন সর্বোচ্চ দুইটি এবং শুল্ক পরিশোধ সাপেক্ষে আরও ছয়টি মোবাইল ফোন সেট আনতে পারবেন।

ব্যবহৃত মোবাইল মোবাইল ফোন সেটের বর্তমান অবস্থা যাচাই প্রক্রিয়া

ব্যবহৃত মোবাইল ফোনসেটের বর্তমান অবস্থা জানতে হলে

ধাপ-১: মোবাইল ফোনসেট থেকে *১৬১৬১# নম্বরে ডায়াল করুন।

ধাপ-২: স্ক্রিনে প্রদর্শিত অপশন থেকে স্ট্যাটাস চেক অপশন সিলেক্ট করুন।

ধাপ-৩: অটোমেটিক বক্স এলে মোবাইল ফোন সেটের ১৫ ডিজিটের আইএমইআই নম্বরটি লিখে পাঠিয়ে দিন।

ধাপ-৪: হ্যাঁ বা না অপশনের একটি অটোমেটিক বক্স এলে হ্যাঁ সিলেক্ট করে নিশ্চিত করুন।

ধাপ-৫: ফিরতি মেসেজের মাধ্যমে ব্যবহৃত মোবাইল মোবাইল ফোন সেটের হালনাগাদ অবস্থা জানানো হবে। এ ছাড়া neir.btrc.gov.bd লিংকের মাধ্যমে বিদ্যমান সিটিজেন পোর্টাল বা মোবাইল অপারেটরের কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে গিয়েও এই সেবা গ্রহণ করা যাবে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com