২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১লা জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

দুটি মন্দ স্বভাব থেকে বিরত থাকা জরুরি

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : দুটি স্বভাবকে মন্দ বলেছেন নবিজি মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। এ স্বভাব দুটি কাফেরদের আচরণ। স্বভাব দুটি মুমিন মুসলমানদের জন্য দোষণীয় কাজ। কোনোভাবেই স্বভাব দুটি অনুসরণ করা যাবে না। নবিজি ঘোষিত মন্দ স্বভাব দুটি কী?

হ্যাঁ, স্বভাব দুটি বাস্তবেই মর্যাদার ওপর আঘাত। একটি হলো কাউকে বংশ তুলে কটাক্ষ করা বা গালি দেওয়া। আত্মীয়-স্বজনের মধ্যে কেউ মারা গেলে বিলাপ করে কান্নাকাটি করা। হাদিসে পাকে এ স্বভাব দুটিকে কুফরি স্বভাব হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। তাহলো-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, মানুষের মাঝে এমন দুটি স্বভাব বা দোষ রয়েছে, যা আসলে কাফেরদের আচরণ। একটি হলো- বংশের প্রতি কটাক্ষ করা। এবং অপরটি হলো- মৃত ব্যক্তির জন্য উচ্চস্বরে বিলাপ করা।’ (মুসলিম)

  • বংশের প্রতি কটাক্ষ

বংশের প্রতি কটাক্ষ করা। যেমন কাউকে এ কথা বলা, তুমি নিচু বংশের অভদ্র লোক কিংবা তোমার বংশই খারাপ কিংবা দাসীর পেটের আর কত ভালো হবে। এ জাতীয় কথা বলে অন্যকে কষ্ট দেওয়া। এগুলো বলা কাফেরদের স্বভাব ও অনুকরণ।জাহেলি সমাজে চরিত্র ও বংশ গৌরবের খুব প্রচলন ছিল। অথচ সব মানুষই আদাম সন্তান। আদাম সন্তানের মর্যাদা তার আল্লাহভীরুতার উপর নির্ভর করে।

  • বিলাপ করা

মৃত ব্যক্তির জন্য বিলাপ করা অর্থাৎ মৃত ব্যক্তির গুণ উল্লেখ করে মাতম করা বা উচ্চস্বরে কাঁদা; উভয়টাই কাফেরদের আচরণ। নবিজি এ আচরণ পরিহার করতে বলেছেন। সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, কারও বংশ নিয়ে কটাক্ষ না করা এবং কেউ মারা গেলে তার জন্য বিলাপ না করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কাফেরদের এ স্বভাবগুলো পরিহার করার তাওফিক দান করুন। হাদিসের ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com