৬ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

দেওবন্দী মাদরাসাতে মওদুদীর অনুসারীদের আগমন শোভনীয় নয়

ফাইল ছবি

  • আমিনুল ইসলাম কাসেমী

মওদুদী সাহেবের অনুসারী ভায়েরা ইদানিং দেওবন্দী মাদরাসাতে যাতায়াত শুরু করেছেন। অনেকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন সেটাকে। অনেকে তাদের আলিঙ্গনের ছবি অনলাইনে দিয়ে ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসাবে প্রচার করতে ভুল করছেন না। সে সংবাদগুলো এখন কওমী তথা দেওবন্দী মাদরাসাগুলোতে তুমুল আলোচনা হচ্ছে। কেউ পক্ষে আর কেউ বিপক্ষে। মানে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিচ্ছে।

এখানে আমাদের বোঝা উচিত। কোনো ব্যক্তির সাথে দেওবন্দী আলেমদের মতবিরোধ নেই। মূলতঃ মতবিরোধ হলো মওদুদী সাহেবের ভ্রান্ত আকিদার সাথে। মওদুদী সাহেব কুরআন-হাদীসের অপব্যাখ্যা, সাহাবায়ে কেরামের সাথে বেয়াদবী, এমনকি আম্বিয়া আলাইহিমুচ্ছালামদের শানে গোস্তাখি করেছেন। যে কারণে দেওবন্দী ওলামায়ে কেরাম মওদুদী সাহেবকে তার জীবদ্দশা থেকে বয়কট শুরু করেন।

যদিও এক সময় দেওবন্দী হালকার অনেক ওলামায়ে কেরাম মওদুদী সাহেবের সঙ্গে ছিলেন। তাঁরা মওদুদী সাহেবের যোগ্যতার প্রশংসাও করেছিলেন। কিন্তু সেটা তার গোস্তাখি প্রকাশ পাওয়ার পূর্বের কথা। কিন্তু সে যখন ক্ষুরধর লিখনী দ্বারা ইসলামের মূল ভিত্তির উপর আঘাত শুরু করে এবং সেই আকিদা থেকে যখন ফিরে না আসে, তখন থেকে ওলামায়ে কেরাম মওদুদী সাহেবকে বয়কট শুরু করেছেন। অদ্যবধি কোনো দেওবন্দী সুচিন্তার আলেম মওদুদী সাহেবের চিন্তাধারাকে সমর্থন করেনি, বরং তাকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

আমাদের বাংলাদেশে বহু মওদুদী সাহেবের অনুসারী রয়েছে। যারা সেই ভ্রান্ত আকিদা বিশ্বাসের অনুগামী। মওদুদী সাহেবের চিন্তাধারাকে আঁকড়ে আছেন। তাদের লিডারগণও বলেন, মাওলানা মওদুদী এবং জামায়াতে ইসলামী এক-অভিন্ন। মানে তারা ওই ভ্রান্ত আকিদা বিশ্বাসের উপর অটল- অবিচল। তারা সেই গন্ডি থেকে ফিরতে রাজি নয়।

এজন্য মওদুদী সাহেবের অনুসারীদের দেওবন্দী হালকাতে আগমন এবং বিভিন্ন মাদরাসাতে বিচরণ অশোভনীয় মনে হয়। কেননা মনের ভিতরে ভ্রান্ত চিন্তা লালন করে দেওবন্দী আলেম-উলামা এবং তলাবাদের সাথে আলিঙ্গন হঠকারিতা ছাড়া আর কিছু নয়। এটা যেন উপহাস করা হচ্ছে। তারা জেনে শুনে দেওবন্দী মাদরাসা এভাবে গিয়ে আলেমদের সাথে সাক্ষাত প্রতারণা ছাড়া আর কিছু নয়।

সত্যিকার যদি দেওবন্দী আলেমদের তারা ভালবাসেন, দেওবন্দী তলাবাদের মহব্বত করেন, তাহলে ভ্রান্ত চিন্তা-চেতনা থেকে ফিরে আসেন না কেন? নিজের মনের ভিতরে কুমতলব বা ভ্রান্ত চিন্তা রেখে খালেছ হক্কানী আলেম ওলামাদের সাথে অবাধে সাক্ষাত করা উপহাস ছাড়া আর কিছু নয়।

দেওবন্দী হালকার বহু আলেম তাদের অসারতা সস্পর্কে এবং মওদুদী সাহেবের ভ্রান্ত-আকিদা বিশ্বাসের ব্যাপারে বারবার কথা বলেছেন। কিন্তু তারা তাদের সিদ্ধান্তে অনড়। অনেক আলেম তাদেরকে আলোচনার টেবিলে বসার আহবান করেছেন। কিন্তু তারা যেন কানে ছিপি ঢুকিয়ে রাখেন। তাদের কেউ ভুল রাস্তা থেকে ফিরে আসার ইরাদা করে না, বরং কেউ কেউ তো বাগাড়াম্বর করেন। কাউকে অহেতুক বাড়াবাড়ি করতে দেখা যায়। আবার এখনো তাদের কিছু আলেম সেই ভ্রান্ত আকিদা বিশ্বাসকে সঠিক বলে চালানোর চেষ্টা করেন। যেটা খুবই দুঃখজনক।

মোটকথা ভ্রান্ত আকিদা বিশ্বাসী মওদুদী অনুসারীদের দেওবন্দী আলেমগণ কখনো বরদাশত করবে না। যতক্ষণ তারা তাদের সেই চিন্তা-চেতনা থেকে ফিরে না আসবে। আমরা আশাকরি দেওবন্দী মাদরাসাগুলোতে মওদুদীবাদীদের সফর করার পূর্বে সেই ভ্রান্ত চিন্তা থেকে ফিরে আসার দরকার। একেবারে প্রকাশ্যে তাদের বলা চাই, আমরা মওদুদীবাদে বিশ্বাসী নই, তাহলে অবশ্যই দেওবন্দী আলেমগণ তাদের সাধুবাদ জানাতে পারেন। নচেৎ মওদুদীবাদ প্রত্যখ্যান করবে সকলে। আল্লাহ তায়ালা সকলকে সহিহ বুজ দান করুন। আমিন।

  • লেখক: শিক্ষক ও কলামিষ্ট

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com