দেশের তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বেশ চাঙ্গাভাব

দেশের তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বেশ চাঙ্গাভাব

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : বৈশ্বিক মন্দার মাঝেও দেশের তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বেশ চাঙ্গাভাব রয়েছে। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি এই সাত মাসে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক পণ্য বিশ্ববাজারে রপ্তানি হয়েছে দুই হাজার ৭৪১ কোটি ৮০ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলারের, টাকার অঙ্কে যা দুই লাখ ৮৫ হাজার ১৪৭ কোটি ৪০ লাখ ৮০ হাজার টাকার (এক ডলার ১০৪ টাকার হিসাবে)। এই সময় ইউরোপ ও অপ্রচলিত বাজার বা নতুন বাজারে পোশাক রপ্তানিতে উচ্চ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। তবে মার্কিন বাজারে পোশাক রপ্তানি কিছুটা কমেছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) ও বিজিএমইএ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আগের অর্থবছর ২০২১-২২ সালের প্রথম সাত মাসে পোশাক রপ্তানি থেকে আয় ছিল দুই হাজার ৩৯৮ কোটি ৫২ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৪ শতাংশ বেড়েছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সব শেষ তথ্যে এই চিত্র উঠে এসেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পোশাক পণ্য রপ্তানি হয়েছে ইউরোপের বাজারে। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে, তৃতীয় যুক্তরাজ্য এবং চতুর্থ অবস্থান রয়েছে কানাডার বাজার।

ইপিবির তথ্য মতে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি অর্থাৎ গত সাত মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ১৫.৪ শতাংশ। ২০২১-২২ অর্থবছরের এই সময় ইউরোপের বাজারে ১১.৯৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পরিমাণ পোশাক পণ্য রপ্তানি হয়েছিল। সেখান থেকে প্রায় দুই বিলিয়ন বেড়ে ১৩.৭৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের এক হাজার ৩৭৩ কোটি ৯৭ লাখ ৪০ হাজার ডলারের পোশাক পণ্য গত সাত মাসে রপ্তানি হয়েছে। যা আগের বছরে ছিল এক হাজার ১৯৪ কোটি ৩০ লাখ ৪০ হাজার ডলার।

প্রচলিত বাজারের পাশাপাশি ২০২১-২২ অর্থবছরের তুলনায় ২০২২-২৩ অর্থবছরের অপ্রচলিত বাজারে রপ্তানি ৩.৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ৩৩.৪৪ শতাংশ বেড়ে ৪.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

এর মধ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারিতে জাপানে রপ্তানি ৯২০.২৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪৫.৯২ শতাংশ বেড়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *