৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৮শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

নবজাতকের প্রাপ্ত উপহারে শরয়ী সমাধান

  • মুফতি আবু সালেহ মোহাম্মদ জাকারিয়া

প্রিয় পাঠক! ধারাবাহিক “দ্বীনী জিজ্ঞাসা- শরয়ী সমাধান” বিষয়ক কলামে নতুন একটি প্রশ্ন যোগ হয়েছে। আজকে সে বিষয়টি নিয়েই আমরা আলোচনা করবো।

এক বোন জানতে চেয়েছেন, আমাদের দেশে নবজাতকের জন্ম সংবাদ পেয়ে অনেক আত্মীয়রাই ছুটে আসেন। ভালোবাসা ও স্নেহ প্রকাশে অনেকেই শিশু কিংবা শিশুটির মা-বাবার হাতে শিশুটির জন্যে কিছু টাকা বা উপহার স্বরূপ বিভিন্ন কিছু দিয়ে যান। বলে যান, এগুলো যেন তাকে দেয়া হয়।

আমার জানার বিষয় হচ্ছে, উপহার হিসেবে পাওয়া শিশুটির এই অর্থগুলো মা-বাবা নিজেদের ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করতে পারবেন কি? পাশাপাশি প্রাপ্ত সামগ্রী শিশুটির ব্যক্তিগত কাজে ব্যয় করার সুযোগ আছে কি?

بسم الله الرحمن الرحيم

উত্তর:
নাবালেগের উপহার হিসেবে পাওয়া টাকা-পয়সাতে কেবল তারই মালিকানা থাকবে। যদিও তা বালেগ হওয়া পর্যন্ত বাবা মার কাছে আমানত হিসেবে থেকে যাবে। প্রাপ্ত অর্থ বা উপহার সামগ্রী নাবালেগের যেকোনো ব্যক্তিগত প্রয়োজনে খরচ করা যাবে। যেমন, আক্বিকা সমাপন ইত্যাদি। তবে পিতা মাতা নিজেদের ব্যক্তিগত কাজে তা ব্যয় করতে পারবেন না।

কেননা আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেছেন:

ﻳَﺎ ﺃَﻳُّﻬَﺎ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺁﻣَﻨُﻮﺍْ ﻻَ ﺗَﺄْﻛُﻠُﻮﺍْ ﺃَﻣْﻮَﺍﻟَﻜُﻢْ ﺑَﻴْﻨَﻜُﻢْ ﺑِﺎﻟْﺒَﺎﻃِﻞِ ﺇِﻻَّ ﺃَﻥ ﺗَﻜُﻮﻥَ ﺗِﺠَﺎﺭَﺓً ﻋَﻦ ﺗَﺮَﺍﺽٍ ﻣِّﻨﻜُﻢْ ﻭَﻻَ ﺗَﻘْﺘُﻠُﻮﺍْ ﺃَﻧﻔُﺴَﻜُﻢْ ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻠّﻪَ ﻛَﺎﻥَ ﺑِﻜُﻢْ ﺭَﺣِﻴﻤًﺎ

অনুবাদ:

হে ঈমানদারগণ! তোমরা একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না। কেবলমাত্র তোমাদের পরস্পরের সম্মতিক্রমে যে ব্যবসা করা হয় তা বৈধ। আর তোমরা তোমাদের নিজেদেরকে হত্যা করো না। (নিঃসন্দেহে) আল্লাহ তা’আলা তোমাদের প্রতি দয়ালু।
(সূরা নিসা-২৯)

হাদীস শরীফে এসেছে:

“قال رسول الله صلي الله عليه وسلم: ﻻ ﻳﺤﻞ ﻣﺎﻝ ﺍﻣﺮﺉ ﻣﺴﻠﻢ ﺇﻻ ﺑﻄﻴﺐ ﻧﻔﺲ ﻣﻨﻪ “

অনুবাদ:

নবী কারীম সা, বলেন: “কোনো মুসলমানের জন্য অন্য কোনো মুসলমানের মাল তার অন্তরের সন্তুষ্টি ব্যতীত হালাল হবে না।
(তালখিসুল হাবীর-১২৪৯)

সুতরাং নবজাতকের উপহার হিসেবে পাওয়া সকল অর্থ, সামগ্রী কেবলমাত্র তার ব্যক্তিগত কাজেই ব্যবহার করা যাবে।

তবে যদি একান্ত অপারগতা বশত খরচ করতেই হয়, তবে ব্যয় করা অর্থ নাবালেগের পক্ষ হতে পিতা মাতার উপর ঋণ হিসেবে থেকে যাবে। যা পরবর্তীতে শিশুটি বালেগ হবার পর আদায় করে দিতে হবে।

উল্লেখ্য, নাবালেগের মালিকানায় নেসাব (যাকাত ফরজ হওয়ার নির্ধারিত পরিমাপ) পরিমাণ সম্পদ থাকলেও তার উপর যাকাত ফরজ হবে না। সুতরাং, পিতা মাতার জন্যে উক্ত সম্পদ থেকে যাকাত হিসেবে ব্যয় করার সুযোগ নেই।

আল্লাহই ভালো জানেন।

যেকোনো ধরণের মাসআলা-মাসায়েল জানতে পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকমের ইমেইলে প্রশ্ন পাঠান। আমরা আপনাদের সকল মাসআলার কুরআন-হাদীস ও ইসলামী ফতোয়ার আঙ্গিকে উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। ইনশাআল্লাহ। এছাড়া যেকোনো ধরনের লেখা আমাদের ইমেইলে পাঠাতে পারেন।

ইমেইল: patheo24@gmail.com

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com