২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৭ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

পথ ভুলে ভারতে ঢুকে পড়ল তিন কিশোর, ৯৯৯-এ ফোন করে উদ্ধার

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : নওগাঁর ধামৈরহাট থানাধীন সীমান্তবর্তী শিমুলতলি এলাকায় নদীর পাড়ে খেলা করতে করতে পথ ভুলে বাংলাদেশি তিন কিশোর বন্ধু ভারতে চলে যায়। এরপর তাদের দেখতে পেয়ে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) তাদের আটক করে।

তবে পথ হারিয়ে ফেলে তাদের একজন জাতীয় জরুরি সেবা- ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সহায়তা চায়। এতে জাতীয় জরুরী সেবা- ৯৯৯ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর মাধ্যমে পদক্ষেপ নিয়ে হারিয়ে যাওয়া ঐ তিন কিশোরকে উদ্ধার ও দেশে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়।

উদ্ধার হওয়া তিন কিশোর হলো- রবিউল ইসলাম (১৫), রবিউল আলম (১৪) ও বাদশা (১৩)। এরা সবাই নওগাঁ জেলার বাসিন্দা।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জাতীয় জরুরি সেবা- ৯৯৯ এর মিডিয়া শাখার পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার গণমাধ্যমে জানান, সোমবার (১০ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় নওগাঁর ধামৈরহাট থানাধীন সীমান্তবর্তী শিমুলতলি থেকে জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ নম্বরে ‘রবিউল ইসলাম’ নামে একজন ফোন করে জানান, তিনি ৮ম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী, বয়স ১৫।

কলদাতা কিশোর আরও জানান, তারা তিন বন্ধু নদীর পাড়ে খেলতে খেলতে পথ ভুলে ভারত সীমান্তে চলে গিয়েছেন, সেখানে তাদেরকে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) আটক করেছে। তাদেরকে উদ্ধারের ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ৯৯৯ এর কাছে অনুরোধ জানান কলদাতা এই কিশোর।

৯৯৯ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে ধামৈরহাট থানায় বিষয়টি জানানো হয় এবং একইসঙ্গে বিজিবির শিমুলতলী সীমান্ত ফাঁড়ির ক্যাম্প ইনচার্জকে অবহিত করা হয়। পরে ৯৯৯-এর ডিসপাচার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. রফিকুল ইসলাম ঐ কিশোর এবং সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করে উদ্ধার তৎপরতার ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

এরপর ঐ কিশোরের সঙ্গে বিজিবির ক্যাম্প ইনচার্জের কনফারেন্স কলের মাধ্যমে কথা বলিয়ে দেওয়া হয়। তার কাছ থেকে তাদের অবস্থানের সীমান্ত পিলারের নম্বর জানতে পেরে তাদের অবস্থান নিশ্চিত করা হয়। এরপর বিজিবি যোগাযোগ স্থাপন করে বিএসএফের সঙ্গে।

আনোয়ার সাত্তার বলেন, এরপর বিএসএফ পতাকা বৈঠকে বসে সোমবার রাতেই এই তিন কিশোরকে বিজিবি ক্যাম্পে ফিরিয়ে আনে। বিজিবি শিমুলতলি সীমান্ত ফাঁড়ির ১৪-এর ক্যাম্প ইনচার্জ নায়েক সুবেদার মো. শাহজাহান ৯৯৯-কে জানান যে, তিন কিশোরকে ভারত থেকে নিরাপদে উদ্ধার করে তাদের অভিভাবকের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এভাবেই শেষ হয় এই রুদ্ধশ্বাস অভিযান। তিন কিশোরের অভিভাবক উদ্ধার অভিযানে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সংশ্লিষ্ট সবাই কিশোরদের উপস্থিত বুদ্ধির প্রশংসা করেন এবং জাতীয় জরুরী সেবা- ৯৯৯-এর তড়িৎ পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানান।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com