বাংলাদেশি পাসপোর্টেঅন অ্যারাইভাল ভিসা পাবেন যেসব দেশে

বাংলাদেশি পাসপোর্টেঅন অ্যারাইভাল ভিসা পাবেন যেসব দেশে

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের পাসপোর্টের বৈশ্বিক অবস্থান খুব ভালো জায়গায় আছে তা বলা যাবে না। হেনলি পাসপোর্ট সূচকের ২০২৩ সালের তৃতীয় কোয়ার্টারে বাংলাদেশের পাসপোর্ট ১৯৯টি দেশের মধ্যে ৯৭তম অবস্থানে রয়েছে।

বছরের শুরুতে এই সূচকের প্রথম সংস্করণে বাংলাদেশ ১০১তম স্থানে ছিল। অর্থাৎ পূর্ববর্তী র‌্যাঙ্কিং থেকে চারটি দেশের পাসপোর্টের অবস্থান পেরিয়ে উপরে উঠে এসেছে বাংলাদেশি পাসপোর্ট।

হেনলি পাসপোর্ট সূচক মূলত ভিসা ছাড়াই দেশগুলো কতগুলো দেশে যেতে পারে তার ওপর ভিত্তি করে পাসপোর্টের মূল্যায়ন করে থাকে। ২০২৩-এর দ্বিতীয় কোয়ার্টারে অবশ্য বাংলাদেশি পাসপোর্ট সূচকের তালিকায় ৯৬তম স্থানে নেমেছিল।

বাংলাদেশে কত ধরনের পাসপোর্ট আছে

সাধারণ পাসপোর্ট: বাংলাদেশি নাগরিকত্বসহ যেকোনো সাধারণ বেসামরিক নাগরিককে সাধারণ পাসপোর্ট দেওয়া হয়।

সংবিধান মতে, দেশের যেকোনো নাগরিক ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য, যেমন- পড়াশোনা, ভ্রমণ, চিকিৎসা, ছুটি, বা ব্যবসায়িক ভ্রমণের জন্য এই পাসপোর্ট পাবেন।

অফিসিয়াল পাসপোর্ট: রাষ্ট্রের সরকারি কর্মচারীদের জন্য বাংলাদেশের সরকারি পাসপোর্ট জারি করা হয়।

দেশের যেকোনো ধরনের অফিসিয়াল ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ব্যক্তিদের জন্য একটি বিশেষ পদবী হিসেবে পাসপোর্টটি দেওয়া হয়ে থাকে।

অফিসিয়াল পাসপোর্টের বৈশিষ্ট্য সাধারণ পাসপোর্টের মতোই।

নির্দিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে ছাড়া, বিভিন্ন দেশে অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের জন্য ভিসার প্রয়োজনীয়তা মওকুফ করা হয়।

তবে অফিসিয়াল পাসপোর্টধারী একজন ব্যক্তির ভ্রমণের আগে তাদের নিজ নিজ সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে একটি এনওসি থাকতে হবে।

কূটনৈতিক পাসপোর্ট: বিভিন্ন বিদেশি মিশন ও দূতাবাসে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বকারী কূটনীতিকদের কূটনৈতিক পাসপোর্ট দেওয়া হয়।

এই পাসপোর্টগুলো জেনেভা কনভেনশন অনুযায়ী বিশেষ ক্ষমতা দেয়।

বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিসেস কর্পসের সদস্য ছাড়াও, বাংলাদেশ অর্ডার অব প্রিসিডেন্স অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, হাউসের স্পিকারদের জন্যও কূটনৈতিক পাসপোর্ট জারি করা হয়।

একজন কূটনৈতিক পাসপোর্টধারীর বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে ভিসা-মুক্ত প্রবেশাধিকার রয়েছে। তাদের কূটনৈতিক অনাক্রম্যতাও দেওয়া হয়, তাদের কোনোভাবে বিচার করা থেকে বিরত রাখা হয়।

বাংলাদেশি পাসপোর্টে চার ধরনের ভিসা

বর্তমানে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীরা বিশ্বের ৪০টি দেশে চার ধরনের ভিসা সেবা উপভোগ করে।

ভিসা মুক্ত প্রবেশ: ভিসা-মুক্ত প্রবেশ দুই দেশের মধ্যে সরাসরি ভ্রমণের অনুমতি দেয়। এটির মাধ্যমে বৈধ পাসপোর্ট থাকলেই ওইসব দেশে প্রবেশ করা যায়।

তবে ভিসা-মুক্ত প্রবেশের শর্তটি কৌশলগত সম্পর্ক ও অন্যান্য পারস্পরিক সুবিধার প্রচারের জন্য দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বা একতরফা চুক্তির মাধ্যমে নির্ধারিত হয়।

যেসব দেশে যেতে পারবেন: ওশেনিয়ার দেশ- কুক দ্বীপপুঞ্জ, ফিজি, মাইক্রোনেশিয়া, নিউ; ক্যারিবিয়ান দেশ- বাহামাস, বার্বাডোজ, ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ, ডমিনিকা, গ্রেনাডা, হাইতি, জ্যামাইকা, মন্টসেরাট, সেন্ট কিট্স এবং নেভিস, সেন্ট ভিনসেন্ট এবং গ্রেনাডাইন্স, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো; এশিয়ার দেশ- ভুটান; আফ্রিকান দেশ- লেসোথো ও গাম্বিয়া।

অন অ্যারাইভাল ভিসা: এটিও ভিসা-মুক্ত প্রবেশের মতোই। তবে আগমনের ভিসার ক্ষেত্রে, একজন বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীকে একটি দেশে ভ্রমণ করতে অভিবাসনের মনোনীত বিভাগ থেকে ভিসা স্ট্যাম্প নিতে হবে। যদি ভিসা স্ট্যাম্প না পাওয়া যায়, তবে ওই দেশে তাকে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

যেসব দেশে যেতে পারবেন: ওশেনিয়ান দেশ- সামোয়া, টুভালু, ভানুয়াতু; এশিয়ার দেশ- কম্বোডিয়া, মালদ্বীপ, নেপাল, তিমুর-লেস্তে; আমেরিকার দেশ- বলিভিয়া; আফ্রিকান দেশ- বুরুন্ডি, কেপ ভার্দে দ্বীপপুঞ্জ, কোমোরো দ্বীপপুঞ্জ, জিবুতি, গিনি-বিসাউ, মাদাগাস্কার, মৌরিতানিয়া, মোজাম্বিক, রুয়ান্ডা, সেশেল্স, সিয়েরা লিওন, সোমালিয়া ও টোগো।

ই-ভিসা: ই-ভিসা প্রথাগত ভিসা পাওয়ার একটি সুবিধাজনক উপায়। প্রথাগত ভিসার তুলনায়, একটি ই-ভিসার প্রক্রিয়াকরণের সময় অনেক কম ও এক্সপ্রেস এন্ট্রির জন্য ডিজিটালভাবে তৈরি করা যেতে পারে।

যেসব দেশে যেতে পারবেন: অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা, আজারবাইজান, বেনিন, কম্বোডিয়া, কলম্বিয়া, জিবুতি, ইথিওপিয়া, গ্যাবন, জর্জিয়া, গিনি, কেনিয়া, কুয়েত, কিরগিজস্তান, মালয়েশিয়া, মলদোভা, মায়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সাও টোমে এবং প্রিনসিপে, সুরিনাম, তাজিকিস্তান, তুর্কি, উগান্ডা, উজবেকিস্তান, জাম্বিয়া ও জিম্বাবুয়ে।

এন্ট্রি পারমিট বা ইটিএ: কিছু দেশ ভিসার পরিবর্তে প্রবেশের অনুমতি দেয়। আমলাতান্ত্রিক আনুষ্ঠানিকতায় কিছু পার্থক্য ছাড়া ইটিএ প্রথাগত ভিসার মতোই কাজ করে।

ইটিএ মানে ইলেকট্রনিক ট্রাভেল অথরাইজেশন, যেটি মূলত ভিসা ছাড়া বিদেশ ভ্রমণকারীদের জন্য একটি ডিজিটাল এন্ট্রি পারমিট। এই দ্রুত অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সাধারণত স্বল্প মেয়াদে দেশান্তরের অনুমতি লাভ করা যায়।

এই সুবিধাটি বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য প্রদান করছে শ্রীলঙ্কার সরকার। এর আবেদন প্রক্রিয়াটি শ্রীলঙ্কার অভিবাসন বিভাগের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকেই সম্পূর্ণভাবে সম্পন্ন করা যায়। এর জন্য আবেদনকারীদের সশরীরে অভিবাসন সেন্টারে উপস্থিত থাকার কোনো প্রয়োজন নেই।

ইটিএর সময়সীমা প্রাথমিকভাবে শ্রীলঙ্কায় আগমনের তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে সীমাবদ্ধ। তবে এটি সর্বোচ্চ ছয় মাস পর্যন্ত বাড়ানো যায়। প্রতি ভিজিটে ইটিএ যোগ্য নাগরিকদের দেশে ৩০ দিন পর্যন্ত ভ্রমণের সুযোগ দেয়।

শ্রীলঙ্কা ইটিএ ডাবল এন্ট্রিরও অনুমতি দিয়ে থাকে। এর মানে হচ্ছে- বাংলাদেশি নাগরিকরা ইস্যু করার তারিখ থেকে ১৮০ দিন সময়সীমার মধ্যে দুইবার শ্রীলঙ্কায় প্রবেশ করতে পারবেন।

এই ডিজিটাল ছাড়পত্রটি ইলেকট্রনিকভাবে ভ্রমণকারীর পাসপোর্টের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে। একবার অনুমোদিত হয়ে যাওয়ার পর ভিসাধারী ব্যক্তি শ্রীলঙ্কায় আগমনের সময় যেকোন চেকপয়েন্ট অনায়াসেই পেরোতে পারবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *