২০শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৬ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ কমেছে : যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ২০২০ সালে সারা বিশ্বে সন্ত্রাসবাদ বেড়েছে ১৫ শতাংশ। তবে বাংলাদেশে এটি আগের চেয়ে হ্রাস পেয়েছে। সন্ত্রাসবাদ কমার পাশাপাশি এ সংক্রান্ত তদন্ত ও গ্রেফতার বৃদ্ধি পেয়েছে। গত বছর দেশে তিনটি নির্দিষ্ট সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে। তবে এসব ঘটনায় কারও মৃত্যু হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক বার্ষিক প্রতিবেদন ‘কান্ট্রি রিপোর্ট অন টেরোরিজম ২০২০’-এ উঠে এসেছে এসব তথ্য।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০২০ সালে বিশ্বজুড়ে মোট সন্ত্রাসী হামলার সংখ্যা ছিল ১০ হাজার ১৭২টি, আগের বছরের তুলনায় যা এক হাজার ৩০০ বেশি। এসব হামলায় হতাহত হয়েছেন ২৯ হাজার ৩৮৯ জন, আগের বছর যা ছিল ২৬ হাজার ২৭৩। অর্থাৎ, এক বছরে হতাহতের পরিমাণ বেড়েছে ৩ হাজার ৭১৬ জন।

মার্কিন ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালে বাংলাদেশে তিনটি সন্ত্রাসী হামলা হয়, ঘটনাগুলোতে কেউ মারা যায়নি। এর মধ্যে ২৮ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে পুলিশ বক্সে বোমা বিস্ফোরণ এবং নওগাঁ জেলায় ৩১ জুলাই হিন্দু মন্দিরে হামলা হয়। চট্টগ্রামের হামলায় দুজন পুলিশ ও একজন বেসামরিক নাগরিক আহত হয়। নওগাঁর ঘটনায় কেউ আহত হয়নি। আইসিস এই দুটি হামলার দায় স্বীকার করেছে। এছাড়া ২৪ জুলাই ঢাকায় পুলিশের মোটরসাইকেলে বোমা পাওয়া যায়, কিন্তু পরে দেখা যায় সেটা ছিল নকল বোমা।

আগের বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে বাংলাদেশে এ ধরনের হামলা হয়েছিল ছয়টি। সবগুলোর দায় আইসিস স্বীকার করে। এরমধ্যে পাঁচটি ছিল পুলিশের ওপর হামলা আর অপরটি খুলনায় আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা বিস্ফোরণ। অর্থাৎ, ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে বাংলাদেশে এ জাতীয় সন্ত্রাস অর্ধেক কমে গেছে।

মার্কিন প্রতিবেদনে বাংলাদেশে সন্ত্রাস দমন কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলা হয়, কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট এবং র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) বছরজুড়ে উগ্রবাদ দমন ও পুনর্বাসন কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।

কান্ট্রি রিপোর্ট অন টেরোরিজমে আরো বলা হয়েছে, গত বছর বিদেশে দুজন বাংলাদেশি সন্ত্রাসবাদী কার্যক্রমের জন্য গ্রেপ্তার হয়। নভেম্বরে সিঙ্গাপুরে আইসিসের হয়ে প্রচারণা চালানো, সশস্ত্র সহিংসতায় উৎসাহ দেওয়া এবং সিরিয়াভিত্তিক হায়াত তাহরির আল-সামকে অর্থ প্রদানের অভিযোগে একজন গ্রেপ্তার হয়। এর আগে ২৭ এপ্রিল স্পেনে বসবাসরত একজন বাংলাদেশিকে আইসিসের হয়ে তহবিল সংগ্রহের জন্য সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সহযোগিতার বিষয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সীমান্ত ও প্রবেশ বন্দরগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে কাজ করছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্রে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কে৯ টিম মাঝে মধ্যে বিমানবন্দরে টহল দিয়ে থাকে। এছাড়া ইন্টারপোলকে সবসময় তথ্য দিয়ে থাকে বাংলাদেশ। পাশাপাশি চিহ্নিত ও সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের তালিকা তৈরির জন্য সক্ষমতা বৃদ্ধিতে দুই দেশ একসাথে কাজ করছে।

প্রতিবেদনের বিষয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিবছর এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে আগের বছরের সন্ত্রাসবাদের পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ওয়াশিংটনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে এটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com