বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে উদ্যোগ নিন

বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে উদ্যোগ নিন

বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে উদ্যোগ নিন

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : বিনিয়োগে বিদেশীদের অনাগ্রহ কী কারণে তা খতিয়ে দেখা উচিত। সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের বিদেশী বিনিয়োগকারীদের সুযোগ করে দিতে হবে। অন্যথায় ব্যবসা সূচকের তলানি থেকে আর কোনো দিনই বের হওয়া সম্ভব নয়।

বাণিজ্যে বসতে লক্ষ্মী এটি একটি বহুল প্রচলিত প্রবাদ। বাংলাদেশের লোককাহিনির দিকে তাকালে দেখা যাবে সেখানে রয়েছে চাঁদ সওদাগর, ধর্ম সওদাগরসহ বিপুলসংখ্যক সওদাগরের নাম। ইতিহাস বলে, প্রাচীন বাংলা অর্থাৎ গঙ্গারিডি ও রাঢ় বাংলায় একসময় নৌবাণিজ্যের প্রসার ছিল। এ দেশের ব্যবসায়ীরা লঙ্কা ও বিভিন্ন সমুদ্র-কূলবর্তী দেশের সঙ্গে বাণিজ্য করতেন। তারপর এলো ইউরোপীয়রা। পর্তুগিজ থেকে ইংরেজ বণিকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়লেন বাঙালি ব্যবসায়ীরা। মাঝে অবশ্য আশার আলো জাগিয়েছেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের দাদাঠাকুর প্রিন্স দ্বারকানাথ। যিনি ইংরেজদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ব্যবসা করেছেন। মহারানী ভিক্টোরিয়াও যাঁর প্রশংসা করেছেন তাঁর ডায়েরিতে। একাত্তরে জাতিরাষ্ট্র বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা ঘটে সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের স্বপ্নকে ধারণ করে। মুক্তিযুদ্ধে হানাদার পাকিস্তানি ও তাদের দোসরদের নৃশংসতায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় বাংলাদেশ। তবে রূপকথার ফিনিক্স পাখির মতো ভস্ম থেকে উড়াল দেওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছে এ দেশের মানুষ। বাহাত্তরে যে দেশকে বলা হতো তলাবিহীন ঝুড়ি সে দেশকে এখন বলা হয় অমিত সম্ভাবনার দেশ।

বাংলাদেশ এখন বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক দেশ। ধান, মাছ, সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম কাতারে। শিল্পায়নের মাধ্যমে সমৃদ্ধির সোপানে পা দিতে চাচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু নীতি প্রণয়নে খামখেয়ালিপনা ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতা দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দ্বৈত নীতিতে হোঁচট খাচ্ছেন দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। বাংলাদেশে প্রতি বছরই করপোরেট করের হারে পরিবর্তন আনা হয়। এটা কোনোভাবেই ঠিক নয়। একই ধরনের কর প্রযোজ্য হওয়া উচিত। ভ্যাট ও ট্যাক্স হলিডের ক্ষেত্রেও নেই কোনো স্থায়ী নীতিমালা। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এ দেশে করপোরেট করহার সবচেয়ে বেশি। সাত স্তরে আদায় করা হয় করপোরেট কর। বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জমি পেতে বিনিয়োগকারীদের মহাসমস্যায় পড়তে হয়।

সহজ ব্যবসা সূচকে বাংলাদেশ তলানিতে থাকায় বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আগ্রহ হারাচ্ছেন। দ্রুত শিল্পায়নের পথে যা বাধা হয়ে দেখা দিচ্ছে। এ সমস্যার সমাধানে সরকারের শীর্ষ মহলকে সজাগ হতে হবে। আমরা মনে করি, বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে নিতে হবে উদ্যোগ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *