২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ৪ঠা রজব, ১৪৪৪ হিজরি

যেখানে শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : দেশের উত্তরের জেলা দিনাজপুরে গতকাল রবিবার থেকে শুরু হয়েছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল রবিবার দিনাজপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটি এই মৌসুমে জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এক সপ্তাহে জেলায় তাপমাত্রা কমেছে ৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁও ও গাইবান্ধা এবং পশ্চিমাঞ্চলের চুয়াডাঙ্গায়ও শীত জেঁকে বসেছে। এতে এই চার জেলায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

গতকাল সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, অস্থায়ীভাবে মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জেলায় যেকোনো সময় বৃষ্টিপাত হতে পারে। বৃষ্টি হলে সেখানে তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসতে পারে।

জেলায় শীতজনিত রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। কয়েক দিন ধরে মানুষ সারা দিন শীতের কাপড় পরে চলাচল করছে। বাজারে পুরনো ও গরম কাপড়ের বেচাকেনা বেড়েছে বলে জানান পুরনো কাপড় ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবহাওয়া সহকারী আসাদুজ্জামান জানান, জেলায় শীত বাড়ছে। বৃহস্পতিবার থেকে তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার ১৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, শুক্রবার ১২.৫, শনিবার ১০.২ ও রবিবার ৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। আকাশে মেঘের আনাগোনা শুরু হয়েছে। যেকোনো সময় বৃষ্টি হতে পারে। পরিবেশবিদ মোসাদ্দেক হোসেন জানান, বৃষ্টি হলে শীতের তীব্রতা আরো বাড়বে।

চুয়াডাঙ্গা শহরে সন্ধ্যার পর থেকে তীব্র শীতের কারণে মানুষের উপস্থিতি কমে যাচ্ছে। নিম্ন আয়ের মানুষকে পুরনো কাপড়ের দোকানে শীতবস্ত্র কিনতে দেখা যাচ্ছে। সদর উপজেলার বেলগাছি গ্রামের কৃষক হামিদ আলী জানান, তীব্র শীত ও কুয়াশার কারণে বীজতলার ক্ষতির আশঙ্কা আছে। আলু ও ভুট্টা ক্ষেতে রোগবালাই দেখা দিতে পারে।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ রকিবুল ইসলাম জানান, চুয়াডাঙ্গায় গতকাল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাতে কুয়াশা থাকছে। মাঝেমধ্যে হিমেল বাতাস থাকায় শীত অনুভূত হচ্ছে বেশি।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. ফাতেহ আকরাম জানান, শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে শিশু ও বয়স্করা হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। শিশুরা নিউমোনিয়ায়, বয়স্করা শ্বাসকষ্ট ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন।

গাইবান্ধায় বিকেল না গড়াতেই হিমেল হাওয়া ও ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে চারদিক। সারা রাত ঝরছে কুয়াশা। গতকাল দিনভর সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। গ্রামের সড়কগুলোতে সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত হেডলাইট জ্বালিয়ে চলেছে যানবাহন। তীব্র শীতের কারণে সন্ধ্যার পরই জেলা ও উপজেলা শহরগুলোতে মানুষের উপস্থিতি কমে যায়।

বিপাকে আছে ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, ঘাঘট নদীর বাঁধ, চর ও তীরের মানুষ। অতিদরিদ্র এসব মানুষ অপেক্ষায় আছে সরকারি-বেসরকারি শীতবস্ত্র সাহায্যের জন্য।

গাইবান্ধার বোয়ালী এলাকার কৃষিজীবী ইদ্রিস আলী জানান, প্রতিদিনই শীতের তীব্রতা বাড়ছে। এতে ফসলের মাঠে কাজ করতে গিয়ে সমস্যা হচ্ছে। দুপুর ১২টার আগে জমিতে কেউ নামতে চায় না।

ব্রহ্মপুত্র বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রিত সফুরণ বিবি বলেন, ‘বিকেল থেকে উত্তুরে শীতল হাওয়া কাঁপন ধরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের বেড়া সারানো হয়নি। রাতে শীতে জমে যাওয়ার অবস্থা। এখন কম্বল পাওয়া খুবই জরুরি। কিন্তু কেউই খোঁজ নিচ্ছে না।’

ভারপ্রাপ্ত জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জুয়েল মিয়া জানান, জেলার জন্য শীতের শুরুতে পাওয়া ৪২ হাজার কম্বল ইউএনওদের কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়নে ৪৯০টি কম্বল বিতরণ করা হবে।

গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতাল সূত্র জানায়, শীতজনিত ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়াসহ নানা রোগে শিশু ও বৃদ্ধরা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। গত এক সপ্তাহে তিন শতাধিক রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ডায়রিয়া ওয়ার্ডে স্থান সংকুলান না হওয়ায় মাটিতেও শয্যা পাততে হচ্ছে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com