সবজি ছাড়া সকল পণ্যে অস্বস্তি

সবজি ছাড়া সকল পণ্যে অস্বস্তি

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম: বাজারে সবজিসহ কয়েকটি পণ্যের দাম অনেকটাই কমেছে। রোজার আগে নিত্যপণ্যের বাজারে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছিল, তাতে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে। তবে চাল, ডাল, তেল, চিনিসহ আবশ্যক পণ্যগুলোর দাম এখনও চড়া।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে ক্রেতা বেশ কমে গেছে। তা ছাড়া রোজায় মাছ-মাংসের চাহিদা বেশি থাকায় সবজির বাজারে ভিড় কম। চাহিদা কমে যাওয়ায় দামে এর প্রভাব পড়েছে। ফলে কিছু কিছু কাঁচা পণ্যের দর কমতির দিকে।

এবার ভরা মৌসুমেও কম দামে সবজি কিনতে পারেননি ক্রেতা। প্রতিটি সবজির দাম ছিল অস্বাভাবিক। রোজার শুরুতেও কয়েকটির দর ছিল চড়া। তবে এখন কিছুটা সুবাতাস বইছে সবজির বাজারে। যদিও গত শুক্রবার কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের বেঁধে দেওয়া দর বাজারে বাস্তবায়ন হতে দেখা যায়নি।

শসা, বেগুন ও পেঁয়াজের দরে বেশ ছন্দপতন দেখা গেছে। রোজার শুরুতে লম্বা বেগুনের কেজি ছিল ৭০ থেকে ৯০ টাকা। গতকাল ঢাকার তেজকুনিপাড়া, হাতিরপুল, মহাখালী কাঁচা বাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। শসার কেজি রোজার শুরুতে ছিল ৮০ থেকে ১০০ টাকা। তবে গতকাল বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা দরে।

১০-১৫ দিন আগে লাউয়ের পিস কিনতে ভোক্তাকে খরচ করতে হয়েছিল ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এখন মিলছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়। ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া ঢ্যাঁড়স ও পটোল কেনা যাচ্ছে ৬০ টাকা দরে। নাগালে রয়েছে কাঁচামরিচও; কেজি মিলছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়।

তেজকুনিপাড়ার সবজি বিক্রেতা মাইনুল হোসেন বলেন, ‘কারওয়ান বাজারে পাইকারিতে সবজির দর কমেছে। এ কারণে আমরাও কম দরে বিক্রি করতে পারছি।’

রোজার আগে থেকেই দর বেশি ছিল পেঁয়াজের। তবে গত এক সপ্তাহে কেজিতে ৪০ থেকে ৫০ টাকার মতো দাম কমেছে। বাজারে এখন পেঁয়াজের কেজি কেনা যাচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়। গতকাল আলুর কেজি ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। তবে কেজিতে দুই থেকে পাঁচ টাকা কমে গতকাল বিক্রি হয়েছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা দরে।

স্থির রয়েছে মাংসের বাজার। রোজার শুরুতে ব্রয়লার মুরগির দর বেড়ে সর্বোচ্চ ২৩৫ টাকা ছুঁয়েছিল। তবে এখন কিছুটা কমেছে। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২১০ থেকে ২১৫ টাকা দরে। সোনালি জাতের মুরগির কেজি কিনতে খরচ করতে হবে ৩২০ থেকে ৩৩০ টাকা।

মুরগির সঙ্গে কমেছে ডিমের দামও। ফার্মের ডিমের ডজন কেনা যাচ্ছে ১২০ টাকা দরে। ১৫ থেকে ২০ দিন আগে প্রতি ডজন ডিমের দর ছিল ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা। গরুর মাংসের কেজি পাওয়া যাচ্ছে বাজারভেদে ৬০০ থেকে ৭৫০ টাকায়। মাছের বাজারও স্থির দেখা গেছে।

সবজি ও মাছ-মাংসের বাজারে কিছুটা স্বস্তি থাকলেও চাল, ডাল, তেল, চিনির মতো গুরুত্বপূর্ণ পণ্যগুলোর দাম এখনও চড়া। উল্টো দু-একটি পণ্যের দর বেড়েছে। গত এক সপ্তাহে সব ধরনের চালের কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা বেড়েছে। মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৩ টাকা। মোটা চাল ৫০ থেকে ৫২ টাকা।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল ৩০ প্রতিষ্ঠানকে ৮৩ হাজার টন চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে মন্ত্রণালয়। এ চাল আমদানি করে আগামী ২৫ এপ্রিলের মধ্যে তা বাজারজাত করার শর্ত দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ীদের।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *