২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২৮শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

সাফারি পার্কে প্রাণী মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত সম্পন্ন

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে ১ মাসে ১১টি জেব্রা, ১টি বাঘ ও ১টি সিংহী মারা যাওয়ার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

তদন্ত কমিটির প্রধান বন পরিবশে ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার ভৌমিক তথ্যটি নিশ্চিত করে জানান, ২০ ফেব্রুয়ারি রোববার ছিল তদন্ত প্রতিবেদন জমাদানের শেষ দিন। ওইদিনই প্রতিবেদনটি জমা দেয়া হয়েছে।

ওই কর্মকর্তা প্রতিবেদনে প্রাণী মৃত্যুর কারণ চিহ্নিত করার বিষয়ে কিছু বলতে চাননি। এটি মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হবে জানিয়ে তিনি বলেন, কমিটি সম্মিলিতভাবে ১৮ পৃষ্ঠার মূল প্রতিবেদন তৈরি করে। এতে নানা পরামর্শ হিসেবে আরও পাতা যুক্ত করা হয়েছে।

২৬ জানুয়ারি পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার ভৌমিককে আহ্বায়ক এবং এবং পরিবেশ-২ শাখার উপসচিব মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরীকে সদস্য-সচিব করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়।

পরে আবেদনের ভিত্তিতে কর্তৃপক্ষ আরও ১০দিন সময় বাড়িয়ে দেন এবং তদন্ত কমিটিতে তিনজনকে যুক্ত করা হয়। এছাড়াও সহযোগী বা পরামর্শক হিসেবে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আরও তিনজনকে যুক্ত করা হয়।

তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মনিরুল হাসান খান, বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চল, বন ভবন, ঢাকার বন সংরক্ষক এবং কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতালের প্রাক্তন চিফ ভেটেরিনারি অফিসার ডা. এ বি এম শহীদুল্লাহ এবং পরে যুক্ত হন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি অনুষদের অধ্যাপক মো. আবু হাদী নূর আলী খান, কেন্দ্রীয় রোগ অনুসন্ধান গবেষণাগারের (সিডিআইএল) প্রধান মো. আজম চৌধুরী ও জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি হিসেবে একজন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।

সহযোগী বা পরামর্শক হিসেবে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তিনজন কর্মকর্তা ছিলেন। তারা হলেন- কেন্দ্রীয় ভেটেরিনারি হাসপাতালের পরিচালক ডা. শফিউল আহাদ সরকার, ঢাকার কেন্দ্রীয় রোগ অনুসন্ধান গবেষণাগারে কর্মরত উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা সুকেশ চন্দ্র বৈদ্য ও বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানায় কর্মরত উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা নাজমুল হুদা।

পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার ভৌমিক বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আমরা মন্ত্রণালয়ে আমাদের প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। এ ব্যাপারে আমার কোন মন্তব্য নেই। আমি তদন্ত কমিটির প্রধান হিসেবে তদন্ত শেষ করেছি এবং তা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে জমাও দিয়েছি। পরে মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

প্রসঙ্গত, গত জানুয়ারি মাসে পার্কে ১১টি জেব্রা, ১টি বাঘ ও ৩ ফেব্রুয়ারি একটি সিংহী মারা যায়। ওইসব প্রাণীর মৃত্যু নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন এবং তদন্তের স্বার্থে পার্কের শীর্ষ পর্যায়ের তিন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। তদন্ত কমিটিকে জেব্রাগুলির মৃত্যুর প্রকৃত কারণ উদঘাটন, জেব্রাগুলির মৃত্যুর ঘটনায় সাফারি পার্কে কর্তব্যরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের গাফিলতি চিহ্নিতকরণ এবং এ ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে প্রয়োজনীয় সুপারিশ সমূহ নিয়ে নির্ধারিত মোট ২০ কার্যদিবসের যথাসময়ে প্রতিবেদনটি সম্পন্ন করেছে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com