সাবেক এমপি মুফতি শহিদুল ইসলামের ইন্তেকাল

সাবেক এমপি মুফতি শহিদুল ইসলামের ইন্তেকাল

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : আল মারকাজুল ইসলামীর (এএমআই) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, নড়াইল-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুফতি শহিদুল ইসলাম ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

জানা গেছে, রোববার দিবারাত সাড়ে ১২টার দিকে মানিকগঞ্জে তার প্রতিষ্ঠিত মাদরাসা আবু হুরায়রায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ডায়াবেটিস, প্রেসারসহ বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন।

মুফতি শহিদুল ইসলাম ১৯৮৮ সালে আল মারকাজুল ইসলামী এএমআই প্রতিষ্ঠা করেন। শুক্রবার বাদ জুআ বায়তুল মোকাররমে নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

তার মৃত্যুতে দেশ-বিদেশে আলেম-ওলামা ও কওমি শিক্ষার্থীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। মৃত্যুর খবরে আলেম-ওলামা, শিক্ষার্থী ও শুভানুধ্যায়ীরা ছুটে আসেন বাসভবন মুহাম্মদপুর বাবর রোড় চত্বরে। শ্রদ্ধাভাজন এ মানুষটিকে এক নজর দেখার জন্য আকুতি জানান।

অনেকেই প্রখ্যাত এই আলেমের ইন্তেকালে গভীর শোক জ্ঞাপন, তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ১৯৮৮ সালে মুফতি শহিদুল ইসলাম (এমপি) কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত আল মারকাজুল ইসলামী ঢাকাসহ দেশের আনাচে কানাচে পর্যন্ত প্রায় সব রকমের মানবসেবামূলক কাজ করে আসছে। হাসপাতাল, এম্বুলেন্স সার্ভিস থেকে শুরু করে বহু ক্ষেত্রে মানবসেবামূলক অবদান রেখেছে এই প্রতিষ্ঠান। বিশেষত করোনা দুর্যোগকালীন ত্রাণ বিতরণসহ করোনা আক্রান্তদের লাশ দাফন করে ব্যাপক আলোচিত হয়েছে এর অনেকগুলো স্বেচ্ছাসেবক টিম।

তিনি শহিদুল ইসলাম (এমপি) রাজনৈতিক কারণে দীর্ঘদিন মিডল ইস্টে বসবাসরত ছিলেন। তবে কিছুদিন আগে তিনি দেশে এসেছিলেন। তিনি একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ ও নড়াইল-২ আসনের সাবেক সাংসদ। তিনি ২০০২ সালের উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের জ্যেষ্ঠ নায়েবে আমির ছিলেন। ২০০৯ সালে বাংলাদেশ গণসেবা আন্দোলন নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন তিনি।

মুফতি শহীদুল ইসলাম ১৫ মার্চ ১৯৬০ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) ফরিদপুরের ঝিলটুলী এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। পৈত্রিক নিবাস নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলায়। তার পিতা শামসুল হক সরদার। তিনি পাকিস্তানের করাচী নিউটাউন মাদরাসা থেকে ১৯৮৮ সালে দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স) ডিগ্রি অর্জনের পর মুফতী (ইসলামি আইনশাস্ত্রের পণ্ডিত) ডিগ্রি লাভ করেন।

২০০৯ সালে বাংলাদেশ গণসেবা আন্দোলন নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। তিনি এ দলের চেয়ারম্যান। এর আগে তিনি ইসলামী ঐক্যজোটের মজলিমে শূরার সদস্য ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের জ্যেষ্ঠ নায়েবে আমির ছিলেন। ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নড়াইল-২ আসনে শেখ হাসিনার কাছে ৪ হাজার ২৩৩ ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন। শেখ হাসিনা আসনটি ছেড়ে দিলে উপনির্বাচনে শহীদুল বিজয়ী হন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *