১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

অপচয় করলে যে গুনাহ হয়

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ইসলাম জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে মিতব্যয়, সরলতা ও সংযমের নির্দেশনা দিয়েছে। অপচয়, বিলাসিতা প্রদর্শনের প্রতি শুধু নিরুৎসাহিতই করেনি বরং এ বিষয়ে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে। আল্লাহ তায়ালা অপচয়কারীদের পছন্দ করেন না। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, হে আদম সন্তান! তোমরা পানাহার কর তবে অপচয় করো না, নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা অপচয়কারীদের পছন্দ করেন না। (আল-আরাফ, ৩১)

অপচয়ের বিষয়ে শুধু কঠোরতা প্রদর্শন করা হয়নি বরং কোরআনে অপচয়কারীদের শয়তানের ভাই বলা হয়েছে। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘আর তোমাদের অর্থ-সম্পদ অপ্রয়োজনীয় কাজে খরচ করবে না। জেনে রেখো, যারা অপব্যয় করে তারা শয়তানের ভাই, আর শয়তান নিজ প্রতিপালকের ঘোর অকৃতজ্ঞ।’ (সুরা বনি ইসরাইল: ২৬, ২৭)

এছাড়াও ইসলাম জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে সংযম ও মধ্যপন্থা শেখায়, এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, আর তুমি তোমার হাত তোমার ঘাড়ে আবদ্ধ রেখো না ( যাতে কাউকে কিছু দিতে না পারো ) এবং তা পুরোপুরি প্রসারিত করো না, ( সব কিছু দিয়ে দিয়ো না ) তাহলে তুমি নিন্দিত ও নিঃস্ব হয়ে বসে পড়বে। (বনী ইসরাঈল, ২৯)

খাওয়ার জন্য স্বর্ণ-রূপার পাত্রের ব্যবহার, পুরুষের জন্য রেশমী কাপড়, বিয়ে উপলক্ষে নারীদের বাড়াবাড়ি পর্যায়ের সাজ-সজ্জা ইত্যাদি সবই অপচয়ের পর্যায়ে পড়ে যা একেবারেই হারাম এবং নিন্দনীয়। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিভিন্ন হাদিসে অপচয়ের বিষয়ে নিষেধ করেছেন।

ইবনে ওমর (রা.) সূত্রে এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, ‘একদা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাদ (রা.)-এর পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় সাদ (রা.) অজু করছিলেন। অজুতে তাঁর বেশি পানি খরচ হচ্ছিল। তা দেখে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, কেন এই অপচয়? সাদ (রা.) বললেন, অজুতেও কি অপচয় হয়? রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, হ্যাঁ, এমনকি বহমান নদীতে অজু করলেও অপচয় হয়। ’ (সুনানে ইবনে মাজাহ: ৪২৫)।

হাদিসে আরো বলা হয়েছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খাওয়া-দাওয়া শেষে তিনবার আঙুল চেটে খেতেন এবং বলতেন, তোমাদের খাবারের বাসন থেকে কিছু পড়ে গেলে উঠিয়ে পরিষ্কার করে খাও, তা শয়তানের জন্য ছেড়ে দিয়ো না। (আবু দাউদ: ৩৮৪৫)

কোরআন ও হাদিসে বর্ণিত এই অপচয় শুধু খাওয়া-দাওয়া, পোশাক ও সাজ-সজ্জার ক্ষেত্রে হারাম নয়, বরং সব কিছুতেই তা হারাম ও নিন্দনীয়। বর্তমানে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি, সব কিছুতেই অপচয় হয়। যা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এছাড়া হাদিসে বলা হয়েছে অপচয় ও অপব্যয়ের কারণে মানুষের জীবন থেকে বরকত কমে যায়।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com