৬ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৬শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

অবশেষে ভাঙার প্রক্রিয়া শুরু বিজিএমইএ ভবন

অবশেষে ভাঙার প্রক্রিয়া শুরু বিজিএমইএ ভবন

পাথেয় রিপোর্ট : রাজধানীর হাতিরঝিলে তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর আদালতের রায়ে অবৈধ বিবেচিত ভবন ভাঙতে প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)।

সর্বোচ্চ আদালত ভবন ভাঙার রায় দেওয়ার পর কয়েক দফায় সময় নেই তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকরা। সবশেষ আদালতের দেওয়া সাত মাস সময়সীমা গত ১২ এপ্রিল শেষ হয়।

সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার পর ১৬ই এপ্রিল মঙ্গলবার সকালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে বিজিএমইএ ভবনে যান রাজউকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

রাজউকের পরিচালক (প্রশাসন) খন্দকার অলিউর রহমান জানান, ‘ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে বিজিএমইএ ভবনে এসেছেন তাঁরা। ভবনটিতে এখনো দু–একটি অফিস রয়েছে। এটা ভবন ভাঙার কাজেরই একটা অংশ। মালামাল সরানোর জন্য কিছু সময় দেয়া হয়েছে, এরপর বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য লোক ডাকা হয়েছে। পরে আমরা ভবন ভাঙার কাজ শুরু করব’।

মুলত তারা “আমাদের কাছ থেকে তারা দুই ঘণ্টা সময় চেয়ে নিয়েছে। আমরা তাদের মালামাল সরিয়ে নেওয়ার জন্য সময় এবং সুযোগ দিয়েছি।”

এই ভবন ভাঙ্গারা পদ্ধতি জানতে চাইলে অলিউর বলেন, “আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে ভাঙা হবে। সেটা ডিনামাইট ব্যবহার বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে হতে পারে।”

এর আগে ঢাকায় বড় একটি ভবন ভাঙ্গার সময় দুর্ঘটনায় কয়েকজন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছিল।

সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার চার দিন পর পদক্ষেপ নেওয়ার প্রসঙ্গে রাজউক কর্মকর্তা অলিউর বলেন, “মহামান্য হাই কোর্ট ১২ এপ্রিল পর্যন্ত সময় দিয়েছিল। কিন্তু মাঝখানে কয়েকদিন বন্ধ ছিল, এরপর কর্মদিবস শুরু হয়েছে, আমরাও আমাদের কাজ শুরু করেছি।”

ভবন ভাঙার কাজ বন্ধ হওয়ারও কোনো সুযোগ নেই বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

উল্লেখ্য ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল হাইকোর্ট এক রায়ে বিজিএমইএর বর্তমান ভবনটিকে ‘হাতিরঝিল প্রকল্পে একটি ক্যানসারের মতো’ উল্লেখ করে রায় প্রকাশ করে ৯০ দিনের মধ্যে ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেয়। এর বিরুদ্ধে বিজিএমইএ লিভ টু আপিল করে, যা ২০১৬ সালের ২ জুন আপিল বিভাগে খারিজ হয়। রায়ে বলা হয়, ভবনটি নিজ খরচে অবিলম্বে ভাঙতে আবেদনকারীকে (বিজিএমইএ) নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে। এতে ব্যর্থ হলে রায়ের কপি হাতে পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে রাজউককে ভবনটি ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হলো।

নির্দেশনার পরে ভবন ছাড়তে উচ্চ আদালতের কাছে সময় চায় বিজিএমইএ। প্রথমে ছয় মাস এবং পরে সাত মাস সময়ও পায় তারা। সর্বশেষ গত বছর নতুন করে এক বছর সময় পায় সংগঠনটি। সে সময় তারা ভবিষ্যতে আর সময় চাওয়া হবে না মর্মে মুচলেকা দেয়

আদালতের নির্দেশনার পর বিজিএমইএ ঢাকার উত্তরায় ১১০ কাঠা জমির উপর ১৩ তলা নতুন ভবন তৈরি করছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সপ্তাহে তা উদ্বোধন করেন ।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com