১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২১শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

এসএসসি পরীক্ষা এবং আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, আপাতদৃষ্টিতে সেগুলো ইতিবাচক মনে হলেও প্রকৃতই কাজে আসবে কি না, সেটি নির্ভর করছে এর প্রয়োগের ওপর। সরকারের গৃহীত সিদ্ধান্তের মধ্যে রয়েছে পরীক্ষা শুরু হওয়ার আধা ঘণ্টা আগে পরীক্ষার্থীর আসনে বসা, পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে প্রশ্নপত্রের মোড়ক খোলা এবং পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা। চলতি বছর সারা দেশে অভিন্ন প্রশ্নে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি। এটাও অনেক বড় একটি সাফল্য।

আমরা মনে করি, প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধ করতে হলে প্রথমেই এর উৎসগুলো খুঁঁজে বের করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে কোচিং সেন্টারগুলো যে একটি বড় উপাদান হিসেবে কাজ করে, সে বিষয়ে সন্দেহ নেই। প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে কোচিং সেন্টারগুলো কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য করছে, সেই প্রমাণও আছে। সেদিক থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধের সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই।

প্রশ্নপত্র ফাঁস করা একটি বড়ধরনের প্রতারণা। এ প্রতারণা ইসলামের দৃষ্টিতেও বৈধ নয়। হারাম। এখন তো এ সমাজে হারামে হয়ে গেছে আরাম। অসততাকে পুঁজি করেই আমরা বেড়ে উঠতে চাই। এটা অত্যন্ত নিন্দনীয়। প্রশ্নপত্র ফাঁসের ক্ষেত্রে প্রতারণার পর প্রতারণা চলে। অনেক শিক্ষার্থী উচিত মূল্য দিয়েও ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র পায় না। আসলে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা যেহেতু একটা ব্যবসা। সে হিসেবে মিথ্যাচারের ব্যবসায়িক রূপ হিসেবে প্রশ্নপত্র ফাঁস না হলেও তারা কিছু প্রশ্ন বানিয়ে ফাঁস প্রশ্ন হিসেবে বিক্রি করে থাকে। সেগুলো দিয়েও আমাদের কোমলমতি সন্তানেরা বিভ্রমে পড়ে। পথহারায়। নানা ভাবে প্রশ্ন পেয়ে পরীক্ষার প্রতি একধরনের অনাসক্তি তৈরী হয় তাদের। ফলে কারও কারও পরীক্ষা ভালো হলেও অনেকেরই ভালো হয় না। নিজের আসল শক্তি প্রয়োগে একটা দুর্বলতা দেখা দেয়। সেটা অবশ্যই বড় ধরনের প্রতারণা ও ধোঁকা হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়। শরীয়ত এটাকে কোনোভাবেই একসেপ্ট করবে না।

আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে যে চক্রটি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি এবং চাকরির পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করেছে, সেই চক্রের বেশ কয়েকজন ধরা পড়েছে। এ ধরনের জালিয়াত চক্রকে কঠোর শাস্তি দেওয়া গেলে পাবলিক পরীক্ষাসহ সব পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে। তবে তার আগে সরষের ভেতরের ভূত তাড়াতে হবে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com