২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২৪শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

ঘরে ঢুকে চেয়ারম্যানপুত্রকে কুপিয়ে হত্যা

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার ঢেউখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমানের বাড়িতে ঢুকে তাঁর শিশুপুত্র আল রাফসানকে (১০) কুপিয়ে হত্যা করেছে এক দুর্বৃত্ত। ছেলেকে বাঁচাতে যাওয়া চেয়ারম্যানের স্ত্রী দিলজাহান বেগম রত্নাকে (৩৫) কুপিয়ে জখম করা হয়।

বুধবার বিকেল ৪টার দিকে সদরপুর উপজেলা পোস্ট অফিসের সামনে চেয়ারম্যানের বাড়িতে এই হামলার ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত রত্নাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সময় চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ঢাকায় অবস্থান করছিলেন।

চেয়ারম্যানের করা সালিসের রায় বিপক্ষে যাওয়ায় এরশাদ মোল্লা (৩৫) নামের এক যুবক এই হামলা চালিয়েছেন বলে স্বজন ও এলাকাবাসী জানিয়েছে। ঘটনার পর এরশাদকে ধাওয়া করে এলাকাবাসী। তখন তিনি একটি টেলিফোনের টাওয়ারে উঠে পড়েন। এক পর্যায়ে টাওয়ারের ওপর থেকে পড়ে তিনি মারা যান বলে দাবি পুলিশের।

এদিকে ক্ষুব্ধ লোকজন এরশাদ মোল্লাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও আগুন ধরিয়ে দেয়। তা ছাড়া তাঁর ভাই ইমরান মোল্লাকে (২৯) পিটুনি দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয় তারা।

গত ৫ জানুয়ারি ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী হন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান। তাঁর দুই ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে আল রাফসান স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ত। বড় ছেলে মাধ্যমিকের ছাত্র।

রত্নার বোন মুক্তা জানান, ঘটনার সময় রত্না ছোট ছেলেকে নিয়ে বাড়ির একটি কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলেন। বড় ছেলে পাশেই তাঁদের বাড়িতে এসেছিলেন। এক পর্যায়ে রত্নার চিৎকার শুনে তাঁরা গিয়ে দেখেন এক ব্যক্তি দৌড়ে পালাচ্ছে। পরে রত্না ও রাফসানকে সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়।

সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ওমর ফয়সাল বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই রাফসানের মৃত্যু হয়েছে। রত্নার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ফরিদপুরে স্থানান্তর করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, ঢেউখালী মোল্লাবাড়ির বাসিন্দা এরশাদ সম্প্রতি তাঁর স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার উদ্যোগ নেন। এ নিয়ে গত সোমবার এক সালিস বৈঠকে ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। সালিসে দেনমোহর বাবদ এরশাদের স্ত্রীকে বুধবারের মধ্যে সাড়ে তিন লাখ টাকা প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়। এতে ক্ষুব্ধ ছিলেন এরশাদ।

এদিকে চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্যাহর ভাইয়ের কুলখানি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ঢাকায় অবস্থান করছিলেন। হামলার খবর পেয়ে তিনি ফরিদপুরে আসেন। তবে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ফরিদপুরে ভর্তি করা হয়েছে।

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান বলেন, চেয়ারম্যানের স্ত্রীর মাথাসহ শরীরের ক্ষতগুলো মারাত্মক। অস্ত্রোপচার চলছে। এখনো তিনি শঙ্কামুক্ত নন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভাঙ্গা সার্কেল) ফাহিমা কাদের চৌধুরী বলেন, বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সদরপুরের আটরশি এলাকায় টাওয়ার থেকে পড়ে মারা যান এরশাদ মোল্লা। এর আগে ৭টার দিকে পাশের ভাঙ্গা উপজেলার বালিয়াহাটি বাজার এলাকায় গণপিটুনির শিকার হয়ে আহত হন এরশাদের ভাই ইমরান মোল্লা (২৯)। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে আটক করে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com