২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২৫শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

দীনকে টেকাতে কওমী মাদরাসার গুরুত্ব অপরিসীম : আল্লামা মাসঊদ

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : দীনকে টিকিয়ে রাখতে হলে কওমী মাদরাসাগুলোকে টিকিয়ে রাখতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ও বেফাকুল মাদারিসিদ্দীনিয়া বাংলাদেশ-এর চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, শাইখুল ইসলাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

তিনি বলেন, সারা দুনিয়ায় কেবল কওমী মাদরাসাতেই পরিপূর্ণভাবে ইসলাম ধর্ম পালনের শিক্ষা দেয়া হয়। এই কওমী মাদরাসাগুলো বন্ধ হয়ে গেলে দীনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যাবে। পৃথিবীতে দীন চর্চা করার কোনো স্থানই বাকি থাকবে না। সুতরাং এই দীনকে টিকিয়ে রাখতে হলে কওমী মাদরাসাগুলোকে টিকিয়ে রাখতে হবে।

শুক্রবার (০৩ জুন) হাজীপাড়া ঝিল মসজিদ কমপ্লেক্সে জুমার বয়ানে এসব কথা বলেন শাইখুল ইসলাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

একমাত্র কওমী মাদরাসাতেই বিশুদ্ধ ইলম পাওয়া যায় উল্লেখ করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, আখিরাতে জান্নাতে যেতে হলে দুনিয়াতে আমল করতে হবে। আর আমল করার জন্য সঠিক ইলম থাকতে হবে। কীভাবে নামাজ পড়তে হয়, কীভাবে রোযা রাখতে হয়, কীভাবে হজ্জ ও যাকাত আদায় করতে হয় তা জানার জন্য সঠিক ইলমের প্রয়োজন। আর কওমী মাদরাসাগুলোতেই এই সঠিক ইলম পাওয়া যায়।

জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিতরাও কওমী মাদরাসার উপর নির্ভরশীল জানিয়ে আল্লামা মাসঊদ বলেন, সমাজে একজন ইঞ্জিনিয়ার বা ডাক্তারের প্রয়োজন অনস্বীকার্য। কিন্তু এই প্রকৌশল বিদ্যা বা চিকিৎসাশাস্ত্র কীভাবে কাজে লাগালে আল্লাহ তাআলা সন্তুষ্ট হবেন, তা জানতে ও শিখতে তাদেরকে কওমী মাদরাসারই শরণাপন্ন হতে হবে।

“মাদরাসা বিরান হয়ে পড়লে একসময় মসজিদও বিরান হয়ে পড়বে”

মাদরাসা ও মসজিদের সম্পর্ক একই সূত্রে গাঁথা জানিয়ে শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম বলেন, এক শ্রেণীর লোকেরা মাদরাসাগুলোকে বন্ধ করে দিতে চায়। তারা জানে, মাদরাসাগুলো বন্ধ করে দিলে একদিন মসজিদও বন্ধ হয়ে যাবে। মসজিদে আর কোনো মুসল্লি পাওয়া যাবে না। কারণ মসজিদে এসে যেসব আমল করতে হয়, তা শেখানো হয় মাদরাসাতেই। মাদরাসা না থাকলে মানুষ নামাজ-রোযা সম্পর্কে জানবেও না এবং তা পালন করার জন্য মসজিদেও আসবে না। মাদরাসা বিরান হয়ে পড়লে একসময় মসজিদও বিরান হয়ে পড়বে। তাই মাদরাসাগুলোকে বন্ধ করে দিতে একদল লোক উঠেপড়ে লেগেছে। কোটি কোটি টাকা এর পেছনে খরচ করছে। বিভিন্ন রিপোর্ট ইত্যাদি প্রকাশ করে জনসাধারণের মনে মাদরাসা সম্পর্কে বিরূপ ধারণা সৃষ্টি করছে। এতে করে মুসলিম জনসাধারণ ইসলামের চর্চাকেন্দ্র মাদরাসাগুলো থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। আমাদেরকে এসব ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে।

কওমী মাদরাসা নিয়ে এসব মিথ্যা প্রচারণা ও বক্তব্যকে প্রত্যাহার করার দাবি জানিয়ে আল্লামা মাসঊদ বলেন, একদল লোক আলেম ও আওয়ামকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেশে অরাজক পরিস্থির সৃষ্টি করতে যাচ্ছে। তাদের কর্মকাণ্ডে দেশে কোনো ধরনের অরাজকতা সৃষ্টি হলে এতে বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হবে, দেশ ও দেশের মানুষকে ছোট করা হবে। তাই যারা দেশকে ভালোবাসেন, যারা ইসলামকে ভালোবাসেন, যারা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে ভালোবাসেন, তাদের উচিত ইসলাম বিরোধি ও দেশদ্রোহী এসব বক্তব্য ও প্রচারণার প্রতিবাদ করা।

আর যারা এই হীন কর্মকাণ্ড করছেন, আমি তাদেরকে আহ্বান জানাচ্ছি, তারা যেন অবিলম্বে এসব থেকে বিরত হন এবং তাদের বক্তব্য প্রত্যাহার করেন নেন। এসব বক্তব্য প্রত্যাহার না করলে আল্লাহ তাআলা শক্তভাবে তাদের পাকড়াও করবেন বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন এই আধ্যাত্মিক রাহবার।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com