২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ২৫শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

নামাজের সময় দৃষ্টি কোথায় থাকবে?

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : সালাতের সময় দৃষ্টি কোথায় থাকবে?— আমি কিছু কিছু জায়গায় পড়েছি যে, দাঁড়ানো অবস্থায় সিজদার জায়গায়, রুকুর সময় দুই পায়ের মাঝখানে, সিজদাহর সময় নাকের দিকে ও বসা অবস্থায় কোলের দিকে রাখতে হয়। কিন্তু এর পক্ষে কোনো দলিল পাইনি। এ বিষয়ে আমাকে সঠিক সুন্নাহ-পদ্ধতি জানিয়ে বাধিত করবেন।

এই প্রশ্নের উত্তর হলো- হাদিস শরিফে আয়েশা (রা.) বলেন, আমি আল্লাহর রাসুল (সা.)-কে জিজ্ঞাসা করেছি যে, নামাজে এদিক সেদিক তাকানোর ব্যাপারে আপনি কী বলেন? জবাবে তিনি বলেছেন, ‘এটা হলো শয়তানের ছোঁ মারা— যা দ্বারা শয়তান আল্লাহর বান্দাদের নামাজ থেকে গাফেল ও উদাসীন করে ফেলে।’ (বুখারি, হাদিস : ৭১৮)

বোঝা গেল যে, এখানে মূল বিষয় হলো- নামাজে এদিক-সেদিক না তাকানো। কেননা এটি নামাজে মনোযোগ ও একাগ্রতা রক্ষা করার জন্য অত্যন্ত শক্তিশালী হাতিয়ার ।

হানাফি মাজহাব মতে নামাজে দাঁড়ানো অবস্থায় সিজদার দিকে আর বসা অবস্থায় কোলের দিকে দৃষ্টি রাখা মুস্তাহাব। (হাশিয়াতুত তাহতাভি আলা মারাকিল ফালাহ : ২৭৭)

এ বিষয়ে ফিকাহবিদ ইমামরা একাধিক অভিমত দিয়েছেন। ইমাম আবু হানিফা (রহ.) বলেছেন, নামাজের সময় দাঁড়ানো অবস্থায় দৃষ্টি সিজদার দিকে থাকবে, রুকু অবস্থায় থাকবে দুই পায়ের মাঝখানে, বসা অবস্থায় থাকবে কোলের দিকে, সিজদা অবস্থায় থাকবে নাকের দিকে। (কিতাবুল মাবসুত : ১/২৮)

পক্ষান্তরে কোনো কোনো ইমাম বলেছেন, পুরো নামাজের সময় দৃষ্টি সিজদার দিকে থাকবে। হানাফি মাজহাবে এটাকে মুসতাহাব বলা হয়েছে। ফরজ-ওয়াজিব বলা হয় নি। সুতরাং এটি আবশ্যকীয় কোনো বিধান নয়।

ফতওয়ার কিতাবে এসেছে যে, নামাজের কিছু আদব-মুস্তাহাব রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো- নামাজে দাঁড়ানো অবস্থায় সিজদার দিকে আর বসা অবস্থায় কোলের দিকে দৃষ্টি রাখা। (আদ-দুররুল মুখতার : ০২/১৭৫)

কেউ কেউ বলেছেন, সালাতে কেবল তাশাহুদের বৈঠক ছাড়া অন্য সকল অবস্থায় সিজদার স্থানে দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখা সুন্নত। কেবল তাশাহুদের বৈঠকে দৃষ্টি থাকবে ডান হাতের শাহাদাত (তর্জনী) অঙ্গুলীর দিকে।

আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুল (সা.) যখন সালাতে দাঁড়াতেন, তখন মাথাটা নিচু করে ঝুঁকিয়ে রাখতেন এবং দৃষ্টি নিক্ষেপ করতেন জমিনের দিকে। (মুসতাদরাক হাকেম, হাদিস : ১/৪৭৯)

অপর এক হাদিসে বর্ণিত, ‘রাসুল (সা.) যখন কাবা ঘরে প্রবেশ করেন, তখন বের না হওয়া পর্যন্ত তার দৃষ্টি সিজদার স্থান থেকে অন্য দিকে ফেরাননি।’ (ইরওয়াল গালিল: ২/৭৩)

তাশাহুদে বসে তাশাহুদ আঙ্গুলী দ্বারা ইশারা করা এবং সে দিকে নিদৃষ্টি নিবন্ধ রাখা সুন্নত। রাসুল (সা.) থেকে বর্ণিত, ‘যখন তিনি তাশাহ্হুদের জন্য বসতেন, তখন তিনি তার বৃদ্ধাঙ্গুলের পাশে যে আঙ্গুলটি আছে (অর্থাৎ শাহাদাত বা তর্জনী আঙ্গুল) দ্বারা কিবলার দিকে ইশারা করতেন এবং তার দিকে দিক দৃষ্টি নিক্ষেপ করতেন।’ (ইবনু খুজুাইমা: ১/৩৫৫; হাদিস : ৭১৯)

অপর এক বর্ণনায় এসেছে, ‘তিনি বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে ইশারা করতেন, তবে ইশারার দিকে তিনি দৃষ্টিপাত করতেন না।’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস: ৪/৩; আবু দাউদ, হাদিস : ৯৯০)

সুতরাং এই মতের উপরও আমল করা যাবে, কোনো সমস্যা নেই।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com