৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শতবর্ষ অনুষ্ঠানে ১০ হাজার প্রতিনিধি পাঠাবে রাজ্য জমিয়ত

শতবর্ষ অনুষ্ঠানে ১০ হাজার প্রতিনিধি পাঠাবে রাজ্য জমিয়ত

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : চলতি বছরের শেষ দিকে সর্বভারতীয় জমিয়তে উলামা হিন্দের শতবর্ষ অনুষ্ঠাস উদযাপিত হবে। দেওবন্দে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। ৯ সদস্য নিয়ে শতবর্ষ উদযাপন কমিটি গঠন করা হয়েছে। পশ্চিমবাংলা থেকে এই কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী ও জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের রাজ্য সভাপতি মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী। কমিটির প্রধান হয়েছেন জমিয়তে উলামা হিন্দের সেক্রেটারি সাইয়্যিদ মাওলানা মাহমুদ আসআদ মাদানী। কমিটিতে রয়েছেন জামিআ কাসিমুল উলুম শাহী মুরাদাবাদের মুফতী ও উচ্চতর হাদীস বিভাগের সিনিয়র লেকচারার মুফতী সাইয়্যিদ মুহাম্মদ সালমান মানসুরপুরী ও আরো কয়েকজন ইসলামি চিন্তাবিদ।

শতবর্ষ উদযাপন সম্পর্কে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের রাজ্য সভাপতি মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, এই অনুষ্ঠান আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন ও বৃহত্তর পর্যায়ের হবে। জমিয়তের যে সমস্ত সদস্য ইউরোপ আফ্রিকাজুড়ে রয়েছেন, তাঁরাও এই শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। প্রায় ১৫ লক্ষ লোকের জামায়াত হবে ইনশাআল্লাহ। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গ থেকে ১০ হাজার সদস্য এবং কর্মী এই সম্মেলনে যোগ দেবেন। এ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় ছোট থেকে মাজারি সমাবেশ হবে অনুষ্ঠিত হবে।

ঈদুল ফিতরের পরপরই রাজ্যজুড়ে জমিয়তের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে জানিয়ে মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরি বলেন, দেশজুড়ে লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তার জন্য ঈদউল ফিতরের পরপরই রাজ্যজুড়ে জমিয়তের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। জমিয়তের ১০০ বছর পূর্ণ হওয়ার ইতিহাস তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে। তিনি বলেন, ১৯১৯ সালে জমিয়ত প্রতিষ্ঠার সময় সংগঠনের লক্ষ্য ছিল ইসলামকে শক্তিশালী করা এবং আরো উদ্ভাসিত করা। বর্তমান তরুণ প্রজন্মের কাছে জমিয়তে উলামা হিন্দের ইতিহাস আরো ভালোভাবে পৌঁছাতে হবে। তবেই জমিয়তে উলামা হিন্দ আগামী দিনে আরো ১০০ বছর এগিয়ে যাবে।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী বলেন, আমাদের আরও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমাদের আরও সহনশীল হতে হবে। তবেই কেউ বিপথগামী করতে পারবে না। সামনের লোকসভা নির্বাচনে সুস্ঠভাবে সবাইকে ধৈর্য ধরে ভোট দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ভারতে মুসলমানদের সবচাইতে বড় সংগঠনটির নাম জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। ১৯১৯ সালে অমৃতসরে সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়।

শতবর্ষের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। এ দেশে মুসলিমদের সবচাইতে বড় সংগঠন– যারা স্বাধীনতা আন্দোলনে অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করেছে। সেইসঙ্গে মুসলিম সমাজের সার্বিক উন্নয়নে কার্যকরী ভূমিকা রেখেছে। আজকে সারা দেশজুড়ে যে হট্টমেলা চলছে– সেখানে দৃঢ়তার সঙ্গে বিরোধিতার রাস্তায় নেমেছে। দেশে শান্তি– ন্যায় প্রতিষ্ঠা এবং সম্প্রদায়ে-সম্প্রদায়ে ভালোবাসা গড়ে তুলতে– দেশের গণতন্ত্র– ধর্মনিরপেক্ষতা ও সংবিধান অটুট রাখার লড়াইতে সবাইকে শামিল করার ব্রত নিয়েছে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ।

গ্রন্থনা : আদিল মাহমুদ
সম্পাদনা : মাসউদুল কাদির
সূত্র : পশ্চিমবঙ্গ, জমিয়তে উলামা হিন্দ

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com