২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৬ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিশুর ছানিপড়া রোগ থেকে রক্ষার উপায়

শিশুর ছানিপড়া রোগ থেকে রক্ষার উপায়

আফরোজা নাজনীন : মানবদেহের চোখ একটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর সংবেদনশীল অঙ্গ, যার সাহায্য আমার এই সুন্দর পৃথিবী দেখতে পাই, তার রূপ উপভোগ করি। চোখে দেখতে না পাওয়া মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় অভিশাপ।

১২ বছরের শিশু নয়ন। কিন্তু তার নয়নে আলো নেই। মাত্র চার বছর বয়সে ছানি পড়ে তার চোখের আলো নিভে গেছে। সময়মতো চিকিৎসা না করায় একসময় পুরোপুরি অন্ধ হয়ে যায় সে। নয়ন এখন মোহাম্মদপুরের বেড়ি বাঁধ এলাকায় বসে ভিক্ষা করে। তার মা সকালে তাকে বসিয়ে দিয়ে যায়, বিকেলে নিয়ে যায়। নয়নের চোখের চিকিৎসা হয়েছে কি না এ প্রশ্নের জবাবে তার মা সালেহা বেগম জানান, আমাদের বাড়ি ছিল গ্রামে। নদী ভাঙনের কারণে শহরে চলে আসি। গ্রামের কবিরাজের কাছে চিকিৎসা করিয়েও কোনো ফল পাননি।

চোখের আইরিশ বা কালো পর্দার পিছনে স্বচ্ছ ও পরিস্কার কাঁচের মত যে বস্তু থাকে তাকে লেন্স বলে। আলোকরশ্মি এই লেন্সের ভিতর দিয়ে চোখের পিছন দিকে স্নায়ুপর্দা বা রেটিনাতে পড়ে। তারপর আমরা কোন জিনিস দেখতে পাই। যদি কোনো কারণে এই লেন্সটি অস্বচ্ছ বা ঘোলাটে হয়ে যায় তখন তাকে ছানিপড়া বলা হয়। আলোকরশ্মি কোন অস্বচ্ছ বস্তুর মধ্য দিয়ে প্রবেশ করতে পারে না। তাই ছানি পড়ে গেলে আলোকরশ্মি চোখের রেটিনাতে পৌঁছাতে পারে না। দৃষ্টিশক্তি আস্তে আস্তে কমে আসে। চিকিৎসা না করালে এক সময় কিছুই দেখা যায়।

পৃথিবীব্যাপী অন্ধত্বের চারটি প্রধান কারণের মধ্যে ছানি একটি। অন্য কারণগুলো- কর্ণিয়ার রোগ, গ্লুকোমা ও ডায়াবেটিসজনিত চোখের রোগ। আমাদের দেশে চোখে ছানিপড়া অন্ধত্বের একটি অন্যতম প্রধান কারণ। ছানির লক্ষণসমূহ হলো- চোখের দৃষ্টি ধীরে ধীরে কমতে থাকে; প্রাথমিক অবস্থায় দূরের জিনিস ঝাপসা বা কুয়াশাচ্ছন্ন দেখা যায়; দৃষ্টিশক্তি কমতে কমতে চোখ দৃষ্টিহীন হয়ে যায়; লেন্স সাদা বা বাদামী হয়ে যায়।

ছানি প্রধানত দুই ধরণের হয়ে থাকে। জন্মগত ছানি এবং বয়সজনিত ছানি। বিভিন্ন কারণে শিশু ছানি নিয়ে জন্ম গ্রহণ করতে পারে বা জন্মের পর পরই ছানি দেখা দিতে পারে। এ ধরণের ছানিকে জন্মগত ছানি বলে। এরমধ্যে এক তৃতীয়াংশ জন্মগত ছানি সাধারণত: বংশগত। বাংলাদেশে প্রতি ১০ হাজারে ৫ থেকে ৬ জন শিশু জন্মগত ছানি নিয়ে জন্ম গ্রহণ করে। শিশুদের জন্মগত ছানি সাধারণত মা গর্ভকালীন রুবেলা ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত হলে, গর্ভকালীন মায়ের পুষ্টিহীনতা, ক্যালসিয়াম বা ভিটামিন ‘ডি’ এর অভাব, স্টেরয়েড জাতীয় ঔষধ সেবন এবং রেডিয়েশনের প্রভাবে জন্মগত ছানি হতে পারে। কোনো নবজাতক যদি ৩৫ সপ্তাহের আগে জন্মগ্রহণ করে এবং তার ওজন যদি দুই কেজি বা তার কম হয় তাহলে তার অন্ধত্বের ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়া চোখে আঘাত, কর্ণিয়ার সংক্রমণ এবং ঘন ঘন চোখের প্রদাহের কারণেও শিশুর চোখে ছানি পড়তে পারে।

বয়সজনিত ছানিপড়া যেকোনো বয়সের মানুষের হতে পারে। তবে চল্লিশ বছর বয়সের পর থেকে চোখের ছানিপড়া বৃদ্ধি এবং দৃষ্টিশক্তি কমতে থাকে। পুষ্টিহীনতার কারণে, আঘাতজনিত কারণে, রেডিয়েশন এর প্রভাবে, চোখের বিভিন্ন রোগের প্রতিক্রিয়ায় যেমন চোখের প্রেসার বৃদ্ধিজনিত রোগের কারণে, ডায়াবেটিস রোগের পার্শ¦প্রতিক্রিয়া হিসেবে, কর্ণিয়ার আলসার বা ঘা এর কারণে, দৃষ্টিস্বল্পতা বা মাইওপিয়া এর কারণে, রেটিনার পর্দার রোগ যেমন রেটিনাইসিস পিগমেনটোসা, রেটিনাল ডিটাগমেন্ট এর কারণে, ইউভিআইটিস ইত্যাদি রোগের কারণে চোখের ছানিপড়া রোগ হতে পারে। বয়স ৬০-৭০ হলে ছানিপড়াটা খুব স্বাভবিক। তবে অনেকের বংশগত কারণে ৪০-৪৫ বছর বয়সেও ছানি পড়তে পারে। বয়স বেশি হলে ছোখের লেন্সের মধ্যে কিছু রাসায়নিক পরিবর্তন হয়, লেন্স অস্বচ্ছ বা ঘোলাটে হয়ে যায় এবং ছানি পড়ে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২০১৭ সালের তথ্যানুযায়ী, দেশে প্রায় ১৩ লাখ শিশুর দৃষ্টিত্রুটি রয়েছে এবং প্রায় দেড় লাখের বেশি শিশু ক্ষীণদৃষ্টি সমস্যায় আক্রান্ত। ৮০ শতাংশের ক্ষেত্রেই অন্ধত্বের মূল কারণ চোখে ছানি পড়া। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ছানি ও অন্যান্য কারণে দেশে দৃষ্টিহীন শিশুর সংখ্যা বাড়ছে। শিশু অন্ধত্ব শুধু বাংলাদেশেই নয়, বৈশ্বিক শিশু স্বাস্থ্যের জন্য এক মারাত্মক সমস্যা। শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলের মানুষের অজ্ঞতা, শিশু চক্ষু বিশেষজ্ঞের স্বল্পতা এবং পুষ্টিহীনতা ও ছানিজনিত জটিলতায় দৃষ্টিহীন হচ্ছে শিশুরা। তবে সঠিক সময়ে চিকিৎসা দিলে অর্ধেকের বেশি শিশুর ক্ষেত্রে এসব সমস্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব।

গবেষণায়ও দেখা গেছে, দৃষ্টিহীন মানুষের ৮০ শতাংশ গ্রামে বাস করে, যাদের ৯০ ভাগ দরিদ্র। তাদের উন্নত চিকিৎসা নেয়ার সামর্থ নেই। অন্যদিকে ৯০ ভাগ চক্ষু চিকিৎসক ও তাদের সহযোগীদের বসবাস শহরাঞ্চলে। বাংলাদেশে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ছাড়াও ১২টি শিশু অন্ধত্ব নিবারণ কেন্দ্র রয়েছে। ঢাকায় ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল ও জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে অন্ধ রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হয়। অরবিস ইন্টারন্যাশনাল ৯টি চক্ষু হাসপাতালের মাধ্যমে অন্ধত্ব নিবারণে কাজ করছে। এ ছাড়া চট্টগ্রাম, পাহাড়তলী, ময়মনসিংহ, মৌলভীবাজার, দিনাজপুর, রংপুর, কুমিল্লা, সিলেট, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ এবং চাঁদপুরে একটি করে অন্ধত্ব নিবারণ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে।

জন্মের কয়েক সপ্তাহ পরই যদি শিশুর পূর্ণ ছানি দেখা দেয় তবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ছানি অপারেশন করা উচিত। দেরিতে বা বেশি বয়সে ছানি অপারেশন করলে চোখ ভাল হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। বড়দের ক্ষেত্রে ছানিপড়া ওষুধে কোনো উপকার হয় না। অপারেশনই এ রোগের একমাত্র চিকিৎসা।

চক্ষু বিশেষজ্ঞগণের মতে, চোখ মানবদেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। কিন্তু এ বিষয়ে সাধারণ মানুষ যথেষ্ট সচেতন নয়। চোখের কিছু রোগ শিশুরা জন্ম থেকে বহন করে আর কিছু জন্মের পর সৃষ্টি হয়। অনেক রোগ রয়েছে, যা অভিভাবকরা একটু সতর্ক হলে অন্ধত্ব দূর হয়ে যায়। তাই জন্মের সঙ্গে সঙ্গেই নজর রাখতে হবে শিশুর চোখে কোনো সমস্যা আছে কিনা। ছয়মাস পর্যন্ত শিশুকে মায়ের দুধ খাওয়াতে হবে। কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ও ইলেক্ট্রোনিক খেলনা ব্যবহার থেকেও শিশুর দূরে রাখতে হবে।

পুষ্টিবিজ্ঞানীদের মতে, চোখ ও চোখের দৃষ্টি ভাল রাখতে নিয়মিত কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ও ভিটামিন জাতীয় খাবার খেতে হবে। ভিটামিনের মধ্যে ‘এ’ চোখের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। এছাড়া ভিটামিন ‘ই’ এবং ‘সি’ দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। শিশুদের ৬ মাস বয়স থেকে বুকের দুধের পাশাপাশি শাক-সবজি, ফলমূল খাওয়াতে হবে। সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মি চোখের ক্ষতি করে। তাই সূর্যালোক থেকে দূরে রাখতে হবে। চোখ ভালো রাখতে প্রতিদিন ঘুমাতে যাবার আগে ঠান্ডা ও পরিষ্কার পানি দিয়ে চোখ ভালোভাবে ধুয়ে ঘুমানো উত্তম।

মানবদেহের অমূল্য সম্পদ চোখকে কোনোভাবেই অবহেলা করা ঠিক নয়। শিশুদের রাতকানা ও অন্ধত্ব আমাদের কাম্য নয়। গর্ভবতী মাকে অনাগত শিশুর সুস্থতার জন্য গর্ভাবস্থায় পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। শিশুদের মায়ের বুকের দুধের পাশাপাশি ভিটামিন ‘এ’ ও অন্যান্য পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার প্রতিদিন বেশি করে খাওয়াতে হবে এবং সময় মতো চিকিৎসকের পরমর্শ নিতে হবে। দেশের প্রতিটি শিশু তীক্ষ্ম দৃষ্টিশক্তি নিয়ে বেঁচে থাকবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক : কলামিস্ট

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২১ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com