২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং , ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১২ই রজব, ১৪৪২ হিজরী

সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে ফুঁসছে মিয়ানমারঃ আন্দোলনে শিক্ষকদের যোগদান

সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকমঃ মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে চলমান অসহযোগ আন্দোলন ক্রমাগত জোরালো হচ্ছে। শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের সঙ্গে এবার বিক্ষোভে শামিল হয়েছেন শিক্ষকরাও। শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ইয়াঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে শিক্ষকরা বিক্ষোভ করেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

গত ১লা ফেব্রুয়ারি ভোরে এক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। এদিন অভিযান চালিয়ে রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি এবং ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের আটক করা হয়। রাজধানী নেপিডো ও প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় রাস্তায় টহল দিতে শুরু করে সামরিক বাহিনীর সদস্যরা। দেশজুড়ে ঘোষণা করা হয় এক বছরের জরুরি অবস্থা। অপরদিকে সেনা অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে মিয়ানমারে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন সু চি সমর্থকরা। এতে শামিল হয়েছেন বিভিন্ন পেশার মানুষ। পাশাপাশি আরও বিভিন্ন সংগঠনের আন্দোলন-কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে।

শুক্রবার ইয়াঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন কয়েক শ’ শিক্ষক ও শিক্ষার্থী। সেসময় তারা প্রতীকীভাবে তিন আঙুলের স্যালুট প্রদর্শন করেন। ওই অঞ্চলের বিক্ষোভকারীরা কর্তৃত্ববাদী শাসনের বিরুদ্ধে নিজেদের বিরোধিতা প্রকাশ করতে এ প্রতীক ব্যবহার করে থাকেন।

মিন সিথু নামের এক শিক্ষার্থী বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘এ ধরনের সেনা কর্তৃত্বের অধীনে আমরা আমাদের প্রজন্মকে ভুগতে দেব না।’

‘আমরা এই সামরিক অভ্যুত্থান মানি না। তারা আমাদের নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে নিজেরা ক্ষমতা দখল করেছে। আমরা তাদের কোন সহযোগিতা করবো না। আমরা সামরিক শাসকদের পতন চাই’ বলছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক থাজিন হেইঙ। তাকে ঘিরে থাকা আন্দোলনকারীরা তখন তিন আঙুলের বিপ্লবী স্যালুট প্রদর্শন করছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নির্বাচনে জয়ী গণতান্ত্রিক দল এনএলডি’র পতাকার রঙের সঙ্গে মিলিয়ে লাল পতাকা হাতে বিক্ষোভ করেন। কেউ কেউ আবার লাল রিবন পরেছিলেন। তারা সু চির নাম ধরে গণতন্ত্রের পক্ষে স্লোগান দিচ্ছিলেন।

মিয়ানমারে আরও বেশ কিছু এলাকায় বিক্ষোভ হচ্ছে। কোনও কোনও শহরের বাসিন্দারা করোনা পরিস্থিতির কারণে বাড়িতে বসেই রাত্রিকালীন বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছেন। রাতে থালা-বাসন বাজিয়ে, ছাদে উঠে বিপ্লবী গান গেয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তারা।

সামরিক শাসকদের ব্যাপক ধরপাকরের মুখে স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক ও সরকারি কর্মচারীরা ছোট ছোট বিক্ষোভ আয়োজন করছেন, আবার কেউ কেউ ধর্মঘট পালন করছেন। অনেকে আবার লাল রিবনের মতো বিভিন্ন অবমাননার প্রতীক পরেই কাজ করছেন।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) মান্দালয় মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা। তাদের হাতে থাকা বিভিন্ন ব্যানারের একটিতে লেখা ছিল, ‘সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে জনসাধারণের বিক্ষোভ।’ আন্দোলনকারীরা স্লোগান দিচ্ছিলেন, ‘আমাদের গ্রেফতার হওয়া নেতাদের এখনই মুক্তি দিন, এখনই মুক্তি দিন।’

এদিকে শুক্রবার সকালে এনএলডির শীর্ষস্থানীয় নেতা উইন হতেইনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ৭৯ বছরের এই নেতাকে গ্রেফতার করা হলেও সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ আনা হয়নি। প্রভাবশালী এই নেতা অভ্যুত্থানের পর একাধিক সাক্ষাৎকারে সামরিকবাহিনীর কঠোর সমালোচনা করেছিলেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি
Design & Developed BY ThemesBazar.Com