ইসরায়েলে বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণ ইস্যুতে বরখাস্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী, বিক্ষোভে উত্তাল জনতা

ইসরায়েলে বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণ ইস্যুতে বরখাস্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী, বিক্ষোভে উত্তাল জনতা

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : বিচারব্যবস্থা সংস্কারের বিতর্কিত পরিকল্পনার বিরুদ্ধে কথা বলায় ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এর পরই প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে হাজার হাজার মানুষ। খবর বিবিসির।

ইয়োভ গ্যালান্টকে এক বৈঠকে ডেকে পাঠিয়ে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে গ্যালান্টের ওপর তার আর আস্থা নেই।

গালান্ট দেশটির কট্টর ডানপন্থী সরকারকে বিচারিক সংস্কার বন্ধ করতে আহ্বান জানানোর পরপরই তাকে বরখাস্ত করা হলো।

বরখাস্ত হওয়া ইয়োভ গ্যালান্ত একজন অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক, যিনি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে রিজার্ভ বাহিনীর সদস্যদের কাছ থেকে শুনে আসছেন যে তারা আইন পরিবর্তনে অসন্তুষ্ট।

মার্চের শুরুতে সরকারের প্রতি নজিরবিহীন এক বিক্ষোভে দেশটির একদল যুদ্ধ বিমানের পাইলটেরা প্রশিক্ষণে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এমন প্রেক্ষাপটেই এই ঘোষণা এলো।

বিচারব্যবস্থার ক্ষমতা সীমিত করার পরিকল্পনার বিরুদ্ধে কয়েক মাস ধরেই বিক্ষোভ চলছে ইসরায়েলে।

এই সংস্কার পরিকল্পনার মধ্যে সরকারকে বিচারক নিয়োগকারী কমিটির উপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দেয়ার কথা বলা হয়েছে।

বর্তমানে দেশটিতে বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয় প্যানেলের মাধ্যমে। এ প্যানেলে রাজনীতিবিদ ও অন্য বিচারকরা মতৈক্যে পৌঁছানোর মাধ্যমে বিচারক নিয়োগ করেন। প্রস্তাবিত সংস্কারে এ ব্যবস্থার পরিবর্তন আসবে এবং সরকার বিচারক নিয়োগে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।

এছাড়া সংসদ সদস্যদের কেউ দায়িত্ব পালনের জন্য অযোগ্য হলে, তাকে অপসারণ করাটা আদালতের জন্য আগের চাইতে কঠিন করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

এ বিষয়টি নিয়ে সাধারণ মানুষ সবচেয়ে বেশি ক্ষুব্ধ হয়েছে।

তারা মনে করে, এ বিধানটি ক্ষমতাসীন নেতা নেতানিয়াহুর স্বার্থ বিবেচনা করে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে এই মূহুর্তে দুর্নীতির একটি মামলা চলমান রয়েছে।

নেতানিয়াহু বলেছেন, সংস্কারের প্রস্তাব এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে তা আদালতের ক্ষমতার অতিরিক্ত ব্যবহার বন্ধ করতে পারে।

এবং এজন্য জনগণ গত নির্বাচনে ভোট দিয়ে তাদের নির্বাচিত করেছে।

নেতানিয়াহুর বাড়ির সামনে সমাবেশের পর বিক্ষোভকারীদের অনেকে, যারা ইসরায়েলের পতাকা উড়িয়ে এবং হাড়ি-কড়াই পিটিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছিলেন, তারা পুলিশকে এড়িয়ে ইসরায়েলের পার্লামেন্ট নেসেটে পৌঁছান।

তেল আবিবে জাতীয় পতাকা হাতে রাস্তায় নেমে এসে অন্যতম প্রধান একটি মহাসড়ক দুই ঘণ্টার বেশি সময় অবরোধ করে রাখে বিক্ষোভকারীরা। এরপর পুলিশ ও জলকামান ব্যবহার করে তাদের হটিয়ে দেওয়া হয়।

এছাড়া জেরুজালেমে নেতানিয়াহুর বাড়ির কাছে বিক্ষোভরত জনতার বিরুদ্ধেও জলকামান ব্যবহার করেছে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

বিক্ষোভের নেতারা অভিযোগ করেছেন, নেতানিয়াহু স্বৈরশাসকের মতো আচরণ করে দেশটির নিরাপত্তা ধ্বংস করছেন।

নেতানিয়াহু এ সপ্তাহের শেষে নতুন আইন পার্লামেন্টে উপস্থাপন করতে চান।

একজন সরকারী কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেছেন, তিনি মনে করেন, মি. নেতানিয়াহু “একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে যেসব নিয়মনীতি থাকা উচিত, এমন সমস্ত সীমা অতিক্রম করেছেন।”

তিনি বলছিলেন, “আমাদের যতটুকু গণতন্ত্র আছে সেটুকু রক্ষার চেষ্টা করছি আমরা, এবং এভাবে আমি রাতে ঘুমাতে যেতে পারি না। এই পাগলামি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আমি কিছু করতে পারছিনা।”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *