১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১৭ই শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

রাসূলের আয়নায় মওদুদিকে দেখি না, তাই পছন্দ করি না : আল্লামা মাসঊদ

রাসূলের আয়নায় মওদুদিকে দেখি না, তাই পছন্দ করি না : আল্লামা মাসঊদ

পাথেয় টোয়েন্টিফোর ডটকম : ব্যক্তি মওদুদিকে আমি ঘৃণা করি না আর ব্যক্তি আবু হানিফাকে পছন্দ করি না বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ও বেফাকুল মাদারিসিদ্দীনিয়া বাংলাদেশ-এর চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী (রহ.) এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

হক ও বাতিল চিনতে হলে তাকে রাসুলের আয়নায় দেখতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, রাসুল সা. এর আয়নায় আমি আবু হানিফাকে দেখি, তাই তাকে ভালোবাসি; সে আয়নায় মওদুদিকে দেখি না বলেই তাকে পছন্দ করি না। ব্যক্তি মওদুদিকে আমি ঘৃণা করি না আর ব্যক্তি আবু হানিফাকেও পছন্দ করি

বৃহস্পতিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) বিকালে ইকরা বাংলাদেশ মিলনায়তনে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর আলোচনা ও পরামর্শ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরে এ সময় আল্লামা মাসঊদ জানান, বর্তমান বিশ্বের সর্বত্রজুড়ে মুসলিমরা প্রচন্ডভাবে নিস্পেষিত ও পদপিষ্ট হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের এ করুণ অবস্থা দূরীকরণে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ‘এক হও, নেক হও’ এর শ্লোগানে যাত্রা করছে। একতাহীন অনৈক্য আর নেক না হওয়ার দরুন দুনিয়াভর মুসলমানদের এই নিপীড়িত অবস্থা। তিনি বলেন, নেক হওয়ার উপর নির্ভর করে ব্যক্তির আখেরাতের নাজাত এবং এক হওয়ার উপরে নির্ভর করে তার পার্থিব সাফল্য।

বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান বলেন, নেক ও এক হতে হলে ৩টি কাজ করতে হবে। এক. দিলের সাথী আল্লাহকে বানাতে হবে। দুই. আমলের সাথী বানাতে হবে রাসুলুল্লাহ সা. কে। তিন. পথচলার সাথী বানাতে হবে সাহাবায়ে কেরাম রা.কে। এক হওয়ার পন্থা বাতলে দিয়ে তিনি আরও বলেন, ঐক্য তৈরীতে ৪টি আমলে মনোনিবেশ করতে হবে- দাওয়াত, তালিম, তাযকিয়া ও মুজাহাদা। আর এ সমস্ত বিষয় আয়ত্তে আনা এবং অর্জনে একজন আল্লাহ্ওয়ালার সোহবত-সাহচর্য অত্যাবশ্যকীয়। যেমন- সাহাবায়ে কেরাম রাসুলের সোহবতে ছিলেন, তাবেয়ীগন ছিলেন সাহাবাদের সোহবতে।

হক ও বাতিলের পরিচয় দিতে গিয়ে শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম বলেন,আদম আ. থেকে রাসূল সা. পর্যন্ত ভাষা, বর্ণ, গোত্র, জাতি ও সভ্যতার পরিবর্তন-বিবর্তন হলেও সব নবীদের বক্তব্যের মূলসূত্র এবং মূল সুর এক ও অভিন্ন ছিল। প্রায়োগিক ব্যাখ্যায় পরিবর্তন হলেও হকের মূল সুর সবসময় অভিন্ন হয়। উলামায়ে দেওবন্দ থেকে নিয়ে রাসূল সা. পর্যন্ত সকলের বক্তব্যের ও চেতনার মূল সুর এক ছিল। পক্ষান্তরে বাতিলের পরিচয় মেলে তাদের বক্তব্যে। কার্ল মার্কস, লেলিন, ফ্রয়েড ও আইনস্টাইন থেকে সব চেতনাধারী ও দার্শনিকদের প্রত্যেকের বক্তব্য, চিন্তাধারা ভিন্নতর। মূল সুরে সবাই অন্যকে দোষারোপ করে চলেছে। কারণ তাদের চেতনার উৎস কোন ঐশ্বরিক মূলসূত্র থেকে নয়।

মওদুদিবাদকে সব বাতিলের নির্যাস উল্লেখ করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, বর্তমান যামানায় মওদুদিবাদ পূর্বের সব বাতিলের নির্যাস। খাওয়ারিজম থেকে শুরু করে যাবতীয় বাতিলের নির্যাস দিয়ে তৈরী হয়েছে জামাত-শিবির। বর্তমানে বাতিল চেনার সবচেয়ে সহজ উপায় হল দেখবেন, কে মওদুদিকে পছন্দ করে, মওদুদির ব্যাপারে সরব হয় না এবং নিশ্চুপ অবস্থান করে। মওদুদির বিরুদ্ধে সরব না হলে সেও বাতিল।

এছাড়াও বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার এ পরামর্শ ও আলোচনা সভায় সংগঠনটির ঢাকা মহানগরী জেনারেল সেক্রেটারি মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুনকে কার্যকারী সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা শোয়াইব আহমদকে জেনারেল সেক্রেটারি নির্বাচন করা হয়।

সাংবাদিক মাসউদুল কাদিরের সঞ্চালনায় ও বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা দেলওয়ার হোসাইন সাইফীর সভাপতিত্বে পরামর্শ সভায় আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার মহাসচিব মাওলানা আব্দুর রহীম কাসেমী, বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সহসভাপতি মাওলানা ঈবরাহিম শিলিস্তানি, মহানগরীর নব নির্বাচত কার্যকারী সভাপতি মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুন, মহানগরীর নব নির্বাচত জেনারেল সেক্রেটারি মাওলানা শোয়াইব, সহকারী সংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ফারুক হোসাইন, জামিআ ইকরা বাংলাদেশ সিনিয়র মুহাদ্দিস মুফতি ফয়জুল্লাহ আমান কাসেমীসহ আরো অনেকে। এছাড়াও পরামর্শ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরীর সদস্য, কর্মী ও নেতৃবন্দ।

শেয়ার করুন


সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ১৯৮৬ - ২০২২ মাসিক পাথেয় (রেজিঃ ডি.এ. ৬৭৫) | patheo24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com